ফেব্রুয়ারি ৬, ২০১৬
Home » ব্রেকিং নিউজ » বিশ্বনাথে অন্ত:সত্ত্বা মহিলা খুনের ঘটনায় মামলা

বিশ্বনাথে অন্ত:সত্ত্বা মহিলা খুনের ঘটনায় মামলা

এইবেলা, সিলেট  ০৬ ফেব্রুয়ারি :: সিলেটের বিশ্বনাথে ৫ মাসের অন্তসত্ত্বা মহিলা হালিমা আক্তার হেলনের খুনের ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে নিহতের ভাই রফিক আহমদ বাদি হয়ে তিনজনের নাম উল্লেখ্য করে আরও ৪-৫ জনকে অজ্ঞাতনামা রেখে এ মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামিরা হলেন-উপজেলার দিঘলী খোজারপাড়া গ্রামের মৃত মোজেফর আলীর ছেলে নিহতের স্বামী আটক নুরুল ইসলাম জুলফিকার (২৫), জুলফিকারের ভাই শামছুল ইসলাম (৩৫) ও লাল মিয়া (২৩)।
মামলা এজাহার সূত্রে জানা গেছে, বিগত প্রায় ৭ মাস পূর্বে নিহত হালিমা আক্তার হেলনের বিয়ে হয় জুলফিকারের সঙ্গে। হালিমা আক্তার হেলন ৫ মাসের অন্তসত্ত্বা ছিল। বিবাহ পর থেকে তার সংসার কিছুদিন ভালই চলছিল। কিন্তু তার স্বামী জুলফিকার দুশ্চরিত্র হওয়ায় সে তার বড় ভাইয়ের স্ত্রী সঙ্গে অবৈধ সর্ম্পক গড়ে তোলে। গত তিন মাস পূর্বে নিহত হালিমা আক্তার হেলনকে আসামিরা যৌতুক হিসেবে একটি মোটরসাইকেল, ফ্রিজ, টিভি ও নগদ দুই লাখ টাকা দাবি করে। তাদের কথামতো টাকা না দিলে হালিমাকে তারা মারধর করে। বিষয়টি হালিমা তার ভাইদেরকে অবহিত করে। গত এক মাস পূর্বে প্রবাস ফেরত হালিমার ভাই জুলফিকারের কাছে ২০ হাজার টাকা তুলে দেন। এরপর থেকে আসামিরা কিছুদিন হালিমার সঙ্গে ভাল ব্যবহার করে। গত বৃহস্পতিবার রাতে হালিমা আক্তার হেলন খাওয়া-দাওয়া শেষে তার নিজ কক্ষে ঘুমাতে যাওয়ার পর তার স্বামী নুরুল ইসলাম জুলফিকার পুনরায় যৌতুক দাবি করে। এতে হালিমা প্রতিবাদ করলে আসামিরা তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে আঘাত করে হত্যা করে বলে এহাজারে বাদি উল্লেখ করেন।
মামলার দায়েরের সত্যতা স্বীকার করে থানার ওসি মাসুদুর রহমান জানান, গ্রেফতারকৃত নুরুল ইসলাম জুলফিকারকে শনিবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।
প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার সকালে উপজেলার দিঘলী খোজারপাড়া গ্রাম থেকে অন্তসত্বা হালিমা আক্তার হেলনের খুন হন। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তার স্বামী নুরুল ইসলাম জুলফিকারকে আটক করে। #