সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৬
Home » জাতীয় » রাজনগরে পুলিশের সাথে এক গরু চোরের অভিনব প্রতারণা

রাজনগরে পুলিশের সাথে এক গরু চোরের অভিনব প্রতারণা

এইবেলা, রাজনগর, ০৬  সেপ্টেম্বর :: রাজনগর উপজেলার মহলাল গ্রামের জাহান উদ্দীন লিটন (৩৫) পুলিশের সাথে প্রতারণার করে আবারও আটক হয়েছে পুলিশের হাতে। প্রাইভেট কারে করে গরু চুরি ছিল মূল পেশা।

তার নামে রাজনগর, কুলাউড়া, শ্রীমঙ্গল ও সদর উপজেলায় বিভিন্ন অপরাধে ৭-৮টি মামলা রয়েছে। সব’কটি মামলায় বর্তমানে সে জামিনে ছিল।

পুলিশের কাছে ভালো হাওয়ার প্রত্যয় করে মামলার গ্লানি আর অপরাধ জীবনে না থাকার অঙ্গিকার করে সে। ফিরে যেতে যায় আলোর পথে। সহযোগিতা চায় পুলিশের কাছে। পুলিশও এগিয়ে আসে আলোর পথ দেখাবার জন্য। পুলিশ ও সাধারণ মানুষের অনুপ্রেরণায় সে শপথ করে আর পা বাড়াবেন না অপরাদ জগতে। তার আগ্রহ ও শপথের কারনেই সাহায্যের হাতবাড়ান রাজনগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আজিজুর রহমান। তিনি ব্যাবসা করে পরিবার চালানোর জন্য তাকে নগদ ১৫ হাজার টাকাও অনুদান দেন। কিন্তু সবই ছিল তার প্রতারণা। পুলিশের হাত থেকে বাঁচার জন্যই ছিল অভিনব কৌশল। ফিরে গেছে তার চিরচেনা সেই আঁধার ভূবনে। তবে, রেহাই পায়নি সে। হাতেনাতে ধরে ফেলেছে পুলিশ।

রাজনগর থানা এলাকায় কোরবানীর ঈদকে রেখে গরু চুরি বৃদ্ধি পাওয়ায় তাকে নিয়ে সন্দেহ করে পুলিশ। কিন্তু কোনভাবেই তাকে চুরি সাথে সম্পৃক্ততার প্রমান করতে পারছিলো না পুলিশ। গত শনিবার রাত ৩টার সময় পুলিশের কাছে খবর আসে কুলাউড়ার বিখ্যাত গরুচোর ইব্রাহীম মৌলভীবাজার-কুলাউড়া সড়কের মহলাল বাজারে একটি প্রাইভেট কার পাঠাচ্ছে। ওই কারে করেই যাবে চুরি গরু। কারটি ধরার জন্য ওৎ পেতে থাকে এসআই আজিজুর রহমান ও এএসআই রাজিব হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ। থামার সঙ্গে সঙ্গে কারটি আটক করে পুলিশ। এসময় জাহান উদ্দীন লিটন এলে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পুলিশ তার (জাহান উদ্দীন) ব্যবহৃত মোবাইল ফোন নিয়ে দেখে চোর ইব্রাহিমের সঙ্গে বেশ কয়েকবার যোগাযোগ হয়েছে। তখনই তাকে আটক করে পুুলিশ।

রাজনগর থানার উপপরিদর্শক আজিজুর রহমান জানান, তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ৭-৮টি মামলা রয়েছে। সে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চেয়ছিলো। আমরাও তাকে সে সুযোগ করে দিয়েছিলাম। কিন্তু সে আসলে ভালো হতে চায়নি। প্রতারণা করে চুরির কৌশল পাল্টায়। তাকে আবারো হাতেনাতে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।#