এপ্রিল ১৩, ২০১৭
Home » জাতীয় » কুলাউড়ার জঙ্গি রিপন উপাখ্যান : মেধাবী ছাত্র থেকে জঙ্গি

কুলাউড়ার জঙ্গি রিপন উপাখ্যান : মেধাবী ছাত্র থেকে জঙ্গি

আজিজুল ইসলাম. ১৩ এপ্রিল :: সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে ফাঁসি কার্যকর ও দাফনের পরও কুলাউড়ার মানুষ বিশ্বাস করতে পারছে না জেএমবি সদস্য দেলোয়ার হোসেন রিপন একজন জঙ্গি। সাধারণ মানুষের বক্তব্য যদি সত্যি হয়ে থাকে, তবে তার ফাঁসিতে কোন আক্ষেপ নেই। বরং এলাকাবাসী কলঙ্কমুক্ত হয়েছে।

কে এই দেলোয়ার হোসেন রিপন? :-
কুলাউড়া উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের কোনাগাঁও গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত প্রাইমারি স্কুল শিক্ষক আবু ইউসুফ ও আজিজুন নেছা দম্পতির ৪ ছেলে ও ১ মেয়ের মধ্যে রিপন সবার বড়। ব্যক্তিগত জীবনে অবিবাহিত। রিপনের ভাই সামছুল হোসেন সিপন জানান, ১৯৯৭ সালে স্থানীয় জালালাবাদ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করার পর সিলেট মদনমোহন কলেজে ভর্তি হন। সেখানে এইচএসসি পাশ করে অনার্স ফাইনাল পরীক্ষা দিয়ে বাড়ি ফিরেন। বাড়িতে থাকাকালীন অবস্থায় কুলাউড়া শহরে ‘এক্স লোলডার’ নামে একটি জিম সেন্টার খুলেন।

যেভাবে জঙ্গির সাথে সম্পৃক্ততা-
জঙ্গি রিপন ছিলো একজন মেধাবী ছাত্র। সিলেট মদনমোহন বিশ^বিদ্যালয় কলেজে পড়ার শায়খ আব্দুর রহমান ওরফে বাংলা ভাই ও মুফতী হান্নানের সম্পৃক্ততা ও সান্নিধ্যে রিপন জঙ্গি কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত হন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে এলাকায় লোকমূখে একটি কথা প্রচলিত আছে জেএমবি শীর্ষ নেতা বাংলাভাই বিশেস আমন্ত্রণে রিপনের বাড়িতে এসেছিলেন। আর জিম সেন্টারের নামে চালাতো প্রশিক্ষণ। ২০০৬ সালে রিপনের এই জিম সেন্টার ছাড়া কারও কোন জিম সেন্টারই ছিলো না কুলাউড়ায়।

জঙ্গি হওয়া নিয়ে পরিবারের বক্তব্য-
সরেজমিন বৃহস্পতিবার ১৩ এপ্রিল সকালে জঙ্গি রিপনের বাড়িতে গেলে তার ভাই সামছুল হোসেন সিপন জানান, তার ভাইকে কখনও তিনি জঙ্গি কার্যক্রম সম্পৃক্ত থাকতে শুনেননি। ২০০৬ সালে ৪ সেপ্টেম্বও তার জিম সেন্টাওে পুলিশ হানা দেয়। খবর পেয়ে সকালে বাড়ি থেকে রিপন জিম সেন্টারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলে ব্রাহ্মণবাজার এলাকা থেকে পুলিশ তাকে আটক করে। পরদিন তার জনতে পারেন ব্রিটিশ হাই কমিশনারের উপর গ্রেনেড হামলার ঘটনায় তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মৃত্যুদন্ডের পর তার ভাইয়ের দাবি- তারা ন্যায় বিচার পাননি। এমনকি তারা কোন আইনজীবিও নিয়োগ করতে পারেননি।

দীর্ঘ কারাবাসের পর শেষ হলো রিপন অধ্যায়-
২০০৬ সালে ৪ সেপ্টেম্বর গ্রেফতারের পর থেকে ২০১৭ সালে ১২ এপ্রিল অর্থাৎ ১০ বছর ৫মাস ৮দিন হাজত বাসের পর ফাঁসির মাধ্যমে শেষ হয় জঙ্গি রিপন অধ্যায়। নিজ গ্রামের কোনাগাঁও জামে মসজিদের পাশে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

রিপনের অন্তিম ইচ্ছা ও খাবার :-
জঙ্গি রিপনের ভাই সামছুল হোসেন সিপন জানান, ফাঁসির খবর শুনানোর পর থেকেই রিপন প্রতিদিন রোযা রাখতেন। শেষ ইচ্ছা ছিলো পরিবারের লোকজনের তৈরি ইফতারীতে রোযা শেষ করার। সেই ইচ্ছামত জেল সুপারের নিদের্শে পরিবারের লোকজন বুধবার ১২ এপ্রিল সন্ধ্যায় ইফতারীসহ শেষ দেখা করতে যান কারঘারে। রিপনের মা বাবা ভাই বোন আত্মীয়-স্বজনসহ ৩০ জনের একটি বিশালবহর জেলগেটে দেখা করতে যান। পারিবারিক ইফতারী কিছুটা গ্রহণ করে বাকিটা তার কাছেই রেখে দেন রিপন।

এলাকাবাসীর বক্তব্য-
ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের আব্দুল মোস্তাকিম ও জাহাঙ্গির আলম কনা জানান, এই পরিকারের লোকজনের সাথে এলাকার মানুষের যোগাযোগ খুব একটা নেই। রিপন অপরাধি হওয়ায় তার শাস্তি হয়েছে। আমরা মনে করি এ শাস্তির মাধ্যমে পুরো এলাকাবাসী কলঙ্কমুক্ত হয়েছে। তবে কোনাগাঁও গ্রামের মানুষ রিপন যে একজন জঙ্গি এবং জঙ্গি কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত থাকতে পাওে তা বিশ^াস করতে পারছেন না।

উল্লেখ্য, সিলেটে শাহজালাল (রহ.) এর মাজারের প্রধান ফটকে ২০০৪ সালের ২১ মে তৎকালীন ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর উপর গ্রেনেড হামলা হয়। হামলায় তিন জন নিহত ও আহত হন ৭০ জন। এ ঘটনার মামলায় ২০০৮ সালের ২৩ ডিসেম্বর মুফতি হান্নান, শরীফ শাহেদুল ওরফে বিপুল, দেলওয়ার ওরফে রিপনকে মৃত্যুদ- এবং মহিবুল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমান ও আবু জান্দালকে যাবজ্জীবন দ- দেন সিলেট দ্রুত বিচার আদালত। হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্টে সেই সাজা বহাল থাকে।#