- জাতীয়, ব্রেকিং নিউজ, মৌলভীবাজার, স্থানীয়, স্লাইডার

সরকারি ত্রাণ তৎপরতা অপ্রতুল কমলগঞ্জে বন্যার্ত অসহায়দের দুর্ভোগ চরমে

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ, কমলগঞ্জ. ০৭ জুন :: টানা বর্ষনে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ধলাই ও মনু নদীর আটটি ভাঙ্গন দিয়ে সৃষ্ট বন্যায় মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার নিম্নাংশে এখনও পানিবন্দি রয়েছেন হাজারো মানুষ। পুরো উপজেলায় বন্যাক্রান্ত হলেও এখন পর্যন্ত সরকারি ত্রাণ তৎপরতা পরিলক্ষিত হয়নি। পানিবন্দি মানুষের মধ্যে বিশুদ্ধ পানি, অসহায় দুর্গতদের খাবার সংকট তীব্র রয়েছে। এছাড়া বন্যাক্রান্ত এলাকায় গৃহপালিত পশুর খাদ্য সংকট রয়েছে। মালামাল ও গৃহপালিত পশু নিয়ে অনেকেই উঁচু স্থানে এখনও রয়েছেন। গত চারদিন ধরে নিম্নাঞ্চলের ৪০টি গ্রাম পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যা দুর্গত এসব এলাকা পরিদর্শনে সরকারি কর্মকর্তাদের পরিদর্শনেও তেমন আগ্রহ পরিলক্ষিত হয়নি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে কিছু কিছু জনপ্রতিনিধিরা মঙ্গলবার অল্প পরিমাণে শুকনো খাবার বিতরণ করেছেন। সরকারি সাহায্য দুর্গত এলাকায় না পোঁছালেও মঙ্গলবার দিনব্যাপী কমলগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে ৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার ১৪শত পরিবারকে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও কমলগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো: জুয়েল আহমদ।

পতনউষার ইউনিয়নের বন্যাদুর্গত মানিক মিয়া, সুরমান আলী, কনা মিয়া বলেন, বন্যায় বোরো ফসল বিনষ্ট হওয়ার পর এখন আউশ ক্ষেতও বিনষ্ট হয়েছে। টানা চারদিনের জলাবদ্ধ পানি থাকার কারনে নিজেদের খাবারের পাশাপাশি গবাদি পশুর খাবার সংগ্রহ করতে এখন বিপাকে পড়েছেন। তারা বলেন, বন্যায় শাক-সবজি সম্পূর্ণরূপে বিনষ্ট হয়েছে। বন্যার চারদিনেও সরকারি কোন ধরণের ত্রাণ বা শুকনো খাবারও কেউ বিতরণ করেননি। বন্যা কবলিত অনেকেই বাড়িঘর ছেড়ে আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে কিংবা উচুঁ স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন। পতনঊষার গ্রামের সাফারুন বেগম জানান, আজ তিন দিন যাবত আমরা পানিবন্দি। পরিবারের ৭ সদস্য ও গরু-বাছুর নিয়ে আমরা রাস্তায় আছি। রোজার মাসে কোন ধরনের খাবার নেই আমাদের কাছে। এখন পর্যন্ত সরকারি কোন ত্রান পাইনি আমরা।

এ বিষয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক বলেন, সরকারিভাবে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নগদ ২৫ হাজার টাকা ও ৬ মে: টন চাল ত্রাণ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে কয়েকটি এলাকায় ত্রাণ তৎপরতা শুরু হয়েছে। তাছাড়া যথাসময়ে স্ব স্ব ইউনিয়নে ত্রাণ বিতরণ করার জন্য চেয়ারম্যানদের বলা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, গত সোমবার বিকালে কমলগঞ্জ পৌর এলাকায় ও রাতে শমশেরনগর সতিঝিরগ্রাম এলাকার একটি আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থানরতদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।#

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *