- সুনামগঞ্জ, স্লাইডার

ছাতকে ৪০ বছরেও পাকা হয়নি সড়ক: ব্রীজের জন্য দুর্ভোগে মানুষ

এইবেলা, ছাতক, ১৬জুন:

সুনামগঞ্জের ছাতকের চরমহল্লাবাজার থেকে নানশ্রী হয়ে প্রথমাচর সড়কটি দীর্ঘ ৪০বছরেও পাকা করা হয়নি। প্রায় ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সড়কটি বৃষ্টি হলেই কর্দমাক্ত হয়ে উঠে। বর্ষা মৌসুমে পানির প্রবল স্রোতে সড়কের বিভিন্ন স্থান ভাঙ্গন ধরে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এলাকার লোকজন অনেক সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে গিয়ে বিপদের সম্মুখীন হতে হয়েছে।

বিগত দিনে এসব ভাঙ্গন কবলিত জায়গা পারাপারের সময় পানির স্রোতে ভেসে গিয়ে অনেকেই আহত হয়েছেন। এলাকায় অবস্থিত আব্দুল খালিক উচ্চ বিদ্যালয়, চরমহল্লা উচ্চ বিদ্যালয়, নানশ্রী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চরদূর্লভ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চরচৌরাই সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চরচৌরাই হাফিজিয়া মাদ্রাসা, ভল্লবপুর হাফিজিয়া মাদ্রাসাসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্টানের শিক্ষার্থীরা এ সড়ক দিয়েই যাতায়াত করতে হয়। ভরা বর্ষা মৌসুমে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অনেকেই বিদ্যালয়ে আসা বন্ধ করে দেয়।

চরকালিদাস, নানশ্রী, মাটিয়ারচর, প্রথমাচর, চরবারুকা, টেটিয়ারচর সহ ১২-১৩টি গ্রামের ১০ থেকে ১৫ হাজার মানুষ থানা, জেলা সদর বিভাগীয় শহরে এ রাস্তা দিয়ে যুগ যুগ ধরে পায়ে হেঁটে যাতায়াত করে আসছেন। প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলেই রাস্তাটি ব্যবহারের অনুপযুক্ত ও ভয়াবহ হয়ে উঠে।  রাস্তার ভাঙ্গন অংশে পানির প্রবল স্রোত থাকায় পারাপারের জন্য খেয়া নৌকা ব্যবহার করা সম্ভব হয়না। বাঁশের সাঁকো তৈরী করে পারাপারে ব্যবস্থা সৃষ্টির মাধ্যমে যাতায়াতে সুবিধা করা এক মাত্র উপায় হলেও এ বিষয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা কোন আগ্রহ না দেখালে ঝুকি নিয়েই চলছে এ অঞ্চলের মানুষ। মুলত বর্ষা মৌসুমে অনাকাঙ্খিত পানিবন্দি অবস্থায় বসবাস করতে হয় এ অঞ্চলের মানুষকে।

সরেজমিনে দেখা যায়, নানশ্রী-চরকালিদাস গ্রামের মধ্যবর্তী স্থানে সড়কের শতাধিক ফুট দীর্ঘ ভাঙ্গন দিয়ে প্রবল বেগে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। পানির গভীরতা বেশী না হলেও এ অংশটুকু পায়ে হেটে পার হওয়া দুরহ ও ঝুঁকিপূর্ণ। মানুষের দৈনন্দিন প্রয়োজনে ও শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিষ্টানে যাওয়ার জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ ভাঙ্গা রাস্তা দিয়ে পায়ে হেটে যাতায়াত করতে গিয়ে পানির স্রোতে ভেসে গিয়ে অনেকেই আহত হয়েছেন বলে এলাকার লোকজন জানিয়েছেন। আবার নৌকা যোগে পারাপার হতে গিয়ে নৌকা ডুবেও অনেকে আহত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে এখানে। এলাকার ছাত্র-ছাত্রী ও এলাকার জনসাধারনের নিরাপদে যাতায়াত করার জন্য এ অংশে একটি ব্রীজের দাবী করে আসছিল এলাকাবাসী। পাশাপাশি সড়কটি পাকাকরনের মাধ্যমে এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য স্থানীয় এমপি মুহিবুর রহমান মানিকের শুভ দৃষ্টি কামনা করেছেন ভুক্তভোগিরা।

নানশ্রী গ্রামের মির্জা আনচব আলী, চরকালিদাসের নূরুল হক, নছিবুল হক, সাবেক মেম্বার সিরাজুল ইসলাম বলেন, স্বাধীনতার পরপরই এ সড়কটি নির্মিত হয়। কিন্তু দীর্ঘদিন পেরিয়ে গেলেও সড়কটি পাকাকরন কিংবা কোথাও কোন ব্রীজ নির্মান করা হয়নি। এ ব্যাপারে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের অবহিত করেও কোন সুফল পাওয়া যায়নি ।

রিপোর্ট-নুর উদ্দিন

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *