আগস্ট ২৭, ২০১৭
Home » জাতীয় » মির্জা আব্বাসের সফর : দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর কুলাউড়ায় নেতাকর্মী ও বানভাসী মানুষের ভাগ্যে জুটল পুলিশের লাঠিপেটা

মির্জা আব্বাসের সফর : দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর কুলাউড়ায় নেতাকর্মী ও বানভাসী মানুষের ভাগ্যে জুটল পুলিশের লাঠিপেটা

এইবেলা, কুলাউড়া, ২৭ আগস্ট :: মৌলভীবাজারের জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলায় বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শণে আসেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মির্জা আব্বাস। তার আগমনের খবর পেয়ে কুলাউড়ায় জড়ো হন বিএনপির সাবেক এমপি এমএম শাহীন সমর্থিত অংশের নেতাকর্মীরা। সেখানে বন্যা দুর্গতদের জন্য ত্রাণ বিতরণেরও ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু সেখানে নামেননি মির্জা আব্বাস। তাঁর ব্যক্তিগত সহকারী পুলিশের সহায়তা চাইলে পুলিশ সেখানে জড়ো হওয়া নেতাকর্মীদের এবং ত্রাণ নিতে আসা বানভাসী মানুষদের লাঠিপেটা করে তাড়িয়ে দেয়।

পুলিশের লাঠিপেটায় কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। রোববার ২৭ আগস্ট বেলা সাড়ে ৩টায় কুলাউড়া শহরের উত্তরবাজারে এ ঘটনা ঘটে।

Kulaura Mirza Abbas pic (2)

রোববার বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী মির্জা আব্বাস মৌলভীবাজারের জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলায় বন্যা দুর্গত এলাকায় ত্রাণ বিতরণে আসেন। খবরটি জানতে পেরে সাবেক এমপি শাহীন সমর্থিক বিএনপি নেতারা শহরের উত্তরবাজারে ত্রাণ বিতরণ ও পথসভার আয়োজন করে। সেখানে কয়েকশ নেতাকর্মী ও ত্রাণ নিতে আসা বানভাসী মানুষ জড়ো হন। সড়কপথে সিলেট থেকে কুলাউড়া হয়ে জুড়ী অভিমুখে যাবার সময় বিএনপি’র নেতাকর্মীরা মির্জা আব্বাসকে পথসভাস্থলে নেমে ত্রাণ বিতরণের অনুরোধ জানান।

কিন্তু তিনি সেখানে নামেননি। উল্টো তাঁর ব্যক্তিগত সহকারি নেতাকর্মীদের সরিয়ে দেয়ার জন্য পুলিশের সহযোগিতা চাইলে পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করে। এতে কমপক্ষে ১০ জন নেতাকর্মী পুলিশের লাঠিপেটায় আহত হয়। পুলিশের লাঠিপেটায় নেতাকর্মীরা রাস্তা ছেড়ে দিলে মির্জা আব্বাসসহ নেতাকর্মীরা জুড়ী চলে যান।

এসময় মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও মৌলভীবাজার উপজেলা চেয়ারম্যান মো. মিজানুর রহমান মিজান পথসভাস্থলে নেমে ত্রাণ বিতরণ করে নেতা কর্মীদের শান্তনা দিয়ে যান।

কুলাউড়া পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সুরমান আহমদ জানান, এটা দুঃখজনক ঘটনা। তিনি এক মিনিট দাঁড়িয়ে নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে গেলে পারতেন। তা না করে ব্যক্তিগত সহকারির নির্দেশে অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির সৃষ্টি করে পুলিশ।

কুলাউড়া থানার ওসি মো. শামীম মূসা জানান, মির্জা আব্বাছ সাহেব জুড়ী-বড়লেখার দিকে যাচ্ছিলেন। কুলাউড়া তাঁর কোন নির্ধারিত প্রোগাম ছিলো না। তার পরও কুলাউড়া বিএনপির নেতাকর্মীরা তাকে জোরপূর্বক আটকে তাদের প্রোগামে নিতে ছেয়েচিলো। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে তিনি চলে গেছেন। ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া হয়েছে।#