সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৭
Home » জাতীয় » জমি মালিকানা নিয়ে বিরোধ : কুলাউড়ায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

জমি মালিকানা নিয়ে বিরোধ : কুলাউড়ায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

এইবেলা, কুলাউড়া, ২৭ সেপ্টেম্বর ::

কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নে জমিজমার বিরোধের জের ধরে মিথ্যা মামলা দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানী করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্থানীয়ভাবে সালিশ বৈঠকে সিদ্ধান্তকে অমান্য করে ফের জোরপূর্বক জামিগুলোর মালিকানা দাবী করছেন। এতে মালিকানা না দেয়ায় নানাভাবে হামলা ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছেন বলে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী মোছাঃ খাতুনা বেগম জানান। তবে অভিযোক্ত আছকর মিয়ার দাবি তার ভূমি থেকে ১ লাখ টাকার গাছ কেটে নিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবার।

অভিযোগকারী মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী খাতুনা বেগম  ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হাজীপুর ইউনিয়নের বিলেরপার গ্রামের মৃত সিকন্দর আলীর ছেলে মুক্তিযোদ্ধা মৃত আমির আলী দীর্ঘদিন যাবত সরকারী খাস ভূমিতে বসবাস করছেন পরিবার নিয়ে। ২০০৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর মুক্তিযোদ্ধা আমির আলীর মৃত্যু হয়।

মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আমির আলীর ছেলে রমজান আলী জানান, তাদর পার্শ্ববর্তী বাড়ির শাদাদ হোসেন ও আছকর আলী জোরপূর্বক তাদের বাড়ির গাছ গাছালি কেটে বিনিষ্ট করছেন। এঘটনায় স্থানীয়ভাবে সালিশ বৈঠক হলেও অভিযুক্তরা হাজির না হয়ে উল্টো মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছেন।

এ ব্যাপারে এলাকার জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের ডাকে আছকর আলী ও শাদাদ হোসেন সাড়া না দিয়ে বেছে নেন বিকল্প রাস্তা। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর হয়রানী মূলক গাছ কাটার মিথ্যা মামলা দায়ের করেন।

সর্বশেষ গত ২৩ আগষ্ট আছকর মিয়াসহ গংরা জমিতে ঘর বানাতে গেলে বাধা দিয়ে হামলা চালান মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের উপর। স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ গন্যমান্যরা উপস্থিত হয়ে মিমাংসার কথা বললে পরিস্থিতি শান্ত হয়। এনিয়ে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী খাতুনা বেগম বাদি হয়ে কুলাউড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

এদিকে অভিযুক্ত আছকর মিয়া অভিযোগ করেন, তার জমি থেকে ১ লাখ টাকার গাছ কেটে নিয়েছে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার। এর প্রেক্ষিতে আছকর মিয়া বাদি হয়ে মৌলভীবাজার সিনিয়রজুডিসিয়াল ম্যাজিষ্টেট ৫নং আমল আদালতে একটি পিটিশন মামলা নং ৩৪৬/২০১৭ মামলা করছেন। এ মামলা মিথ্যা বলে অভিযোগ করেন মুক্তিযোদ্ধা পরিবার।

হাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাছিত বাচ্চু জানান, আমার জানামতে মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আমির আলী ও তার স্ত্রী পুত্র পরিবারদেরকে নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত বসবাস করেছেন। অপর পক্ষ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছেন।

কুলাউড়া থানার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সাব্বির আহমদ ঘটনা ও মামলার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর থানায় উভয় পক্ষকে ডাকা হয়েছে। তদন্তক্রমে বিষয়টি দেখা হবে। #