এপ্রিল ৮, ২০১৮
Home » জাতীয় » পূর্ব শত্রুতার জের- কমলগঞ্জে ৩ মাসের অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধূর উপর হামলা

পূর্ব শত্রুতার জের- কমলগঞ্জে ৩ মাসের অন্ত:সত্ত্বা গৃহবধূর উপর হামলা

এইবেলা, কমলগঞ্জ, ০৮ এপ্রিল ::

মামলা করা নিয়ে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মৌলভীবাজারের আদমপুরে দক্ষিণ ভানুবিল গ্রামে এক গৃহবধূ দোকানীকে কুপানোর অভিযোগ উঠেছে। গুরুতর আহতাব্স্থায় গৃহবধূ কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীণ আছেন। শনিবার ০৭ এপ্রিল সকাল সাড়ে ৮টায় আদমপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ ভানুবিল গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন দক্ষিণ ভানুবিল গ্রামের শাহিন মিয়ার স্ত্রী গ্রাম্য দোকানী ৩ মাসের অন্তসত্ত্বা সুমাইয়া বেগম (২৮) অভিযোগ করে শনিবার সন্ধ্যায় এ প্রতিনিধিকে বলেন, গত ২৪ মার্চ রাতে তার দোকান গৃহ ভাঙ্গচুর ও লুটপাট হয়েছিল। এ ঘটনার নেতৃত্বে ছিলেন একই গ্রামের মৃত জাফর মিয়ার ছেলে কনু মিয়া (৫৫)। এদিন রাতেই তিনি কমলগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করলে পুলিশ কনু মিয়াকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে। সম্প্রতি কনু মিয়া জামিনে মুক্ত হয়ে এসে পরিকল্পিতভাবে শনিবার সকালে লোকজন নিয়ে এসে হামলা চালান। হামলাকারীদের দায়ের কুপে তিনি গুরুতরভাবে আহত হয়ে এ দিন বেলা সাড়ে ১১টায় কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছেন। ঘটনার সময় তার স্বামী শাহিন মিয়া বাড়িতে না থাকার সুযোগে একা পেয়ে তার উপর এ হামলা চালানো হয় বলেও তিনি জানান। এ ঘটনায় তিনি নতুন করে থানায় আরও একটি অভিযোড়গ দিবেন বলেও জানান।

কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও চিকিৎসক ডা: সজল চন্দ্র দাস দায়ের কুপে আহত হয়ে গৃহবধূ সুমাইয়া চিকিৎসাধীন থাকার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তার মাথায় ৭টি সেলাই লেগেছে। গৃহবধূ ৩ মাসের অন্তসত্ত্বা বলেও তিনি জানান। তিনি আরও বলেন, গৃহবধূর দেহের বিভিন্ন অংশে আঘাতের দাগও আছে।

কমলগঞ্জ থানার এসআই মো: জাকির হোসেন গত ২৪ মার্চে সুমাইয়া বেগমের বাড়ি ও দোকান গৃহে হামলা ও লুটপাটের অভিযোগ গ্রহনের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন এ অভিযোগে কনু মিয়াকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছিল। আসামী কনু মিয়া আবার জামিনে মুক্ত হওয়ার কথা নিশ্চিত করেন। শনিবার আবার দোকানী গৃহবধূ সুমাইয়াকে কুপানোর ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে এসআই জাকির হোসেন বলেন, এ ঘটনার অভিযোগ পেলে তদন্তক্রমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করে দক্ষিণ ভানুবিল গ্রামের কনু মিয়া বলেন, আসলেই সুমাইয়া বেগম ও তার স্বামী মামলাবাজ। তারা গত ২৪ মার্চের ঘটনায় তাকে অহেতুক আসামী করে কারাগারে পাঠিয়েছিল। এ ধরনের কোন ঘটনার সাথে তিনি বা তার স্বজনরা জড়িত নন। শনিবার সকালে নতুন করে কুপানোর ঘটনা শুনছেন দাবি করে কনু মিয়া বলেন, এ ঘটনায়ও তাকে নতুন করে অভিযুক্ত করা হয়েছে। তিনি জোর দাবি করে বলেন, পুলিশ সরেজমিন তদন্ত করলেও গ্রামবাসীর বক্তব্য নিলে প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে।#