- ব্রেকিং নিউজ, মৌলভীবাজার, স্থানীয়, স্লাইডার

কুলাউড়ায় ব্যবসায়ীকে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা : মামলা করে বিপাকে পরিবার

এইবেলা, কুলাউড়া, ০৭ মে :: ব্যবসা-বানিজ্য ও জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে এক ব্যবসায়ীকে আগুনে পুড়িয়ে মারার চেষ্টার অভিযোগ মামলা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলা করে এখন বিপাকে পড়েছেন ওই ব্যবসায়ীর পরিবার।

রাতের আধারে প্রানে হত্যার উদ্দেশ্যে ওই ব্যবসায়ীর বসতঘরে আগুন লাগায় দুস্কৃতকারীরা। আগুনে ওই ব্যবসায়ীর বাম হাত, বাম পা ও পিঠের অনেকাংশ পুড়ে যায়। এসময় তার স্ত্রী ও একমাত্র শিশু সন্তানও আগুনে দ্বগ্ধ হয়। ঘটনাটি গত ২৭ এপ্রিল কুলাউড়া উপজেলার রাউৎগাঁও ইউনিয়নের মনরাজ গ্রামের ব্যবসায়ী আহমদ আলীর বাড়িতে ঘটে। এ ঘটনায় আহমদ আলীর স্ত্রী রোমেনা বেগম বাদী হয়ে একই গ্রামের অলিল মিয়া (৩৫)’ এর নামোল্লেখ করে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ৩-৪ জন রয়েছেন।

আহমদ আলীর স্ত্রী রুমেনা বেগম জানান, অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ অলিল মিয়াকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরন করে। কিন্তু অলিলের ভাই ও তার সহযোগিরা মামলা তুলে নেয়ার জন্য প্রতিনিয়ত আমাকে হুমকি-ধামকি দিচ্ছে। মামলা না তুললে তাদেরকে আবারো পুড়িয়ে মারার হুমকি দিচ্ছে। যারকারনে তিনি অসুস্থ স্বামী-সন্তান নিয়ে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এদিকে বিষয়টি ৪-৫ দিন হাতে রেখেও কোন সুরাহা করেননি স্থানীয় ইউপি সদস্য ইছমাইল আলী। ওই সদস্য উল্টো তাদেরকে মামলা তুলে আনার জন্য চাপ সৃষ্টি করছেন। বরং মামলা না তুললে তাদের আরও ক্ষতি হবে বলেও তিনি নিয়মিত তাদেরকে হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত ২৬ এপ্রিল গভির রাতে আহমদ আলী ও তার পরিবারকে প্রানে মারার উদ্দেশ্যে ঘরের ভেতরে কেরোসিন ফেলে আগুন লাগিয়ে দেয় অলিল ও তার সহযোগীরা। এতে আহমদ আলীর বাম হাত, বাম পা, কোমর, পিঠের অনেকাংশসহ পুরুষাঙ্গ পুড়ে যায়। এসময় আহমদ আলীর স্ত্রী ও ছেলে আগুনে দগ্ধ হয়। এছাড়াও ঘরের অনেক আসবাবপত্র পুড়ে যায়। তাদের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে আগুন নেভান এবং দগ্ধদের উদ্ধার করে কুলাউড়া হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

এব্যাপারে কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ শামীম মূসা জানান, আলামতসহকারে মূল আসামী অলিলকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। তদন্ত স্বাপেক্ষে বাকিদেরকেও আইনের আওতায় আনা হবে।#

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *