আগস্ট ১৯, ২০১৮
Home » আন্তর্জাতিক » শ্রীমঙ্গলে অভিনীত ‘সিগারেটের শেষ পর্যায়’ নামক শর্টফিল্ম ভারতের ফেস্টিভ্যালে মনোনিত!

শ্রীমঙ্গলে অভিনীত ‘সিগারেটের শেষ পর্যায়’ নামক শর্টফিল্ম ভারতের ফেস্টিভ্যালে মনোনিত!

এইবেলা, বিনোদন, ১৯ আগষ্ট ::

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন মনোমুগ্ধকর স্থানে শুটিং করা ধুমপান নিয়ে জনসচেতনতা মুলক শর্ট ফিল্ম ‘সিগারেটের শেষ পর্যায়’ (The last stage of cigarette) নামক শর্ট ফিল্ম ভারতের চন্দন নগর ইন্টারন্যাশনাল ফেস্টিভ্যালের মনোনয়ন পেয়েছে। শ্রীমঙ্গলের শিল্পিদের দ্বারা নির্মিত এ শর্টফিল্মটি ইন্টারন্যাশনাল ফেস্টিভ্যালের প্রথম আসরে চান্স পেয়ে চমক সৃষ্টি করেছে।

ফিল্মটিতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন Towfix Cc 2.16 চ্যানেলের কনটেন্ট ক্রিয়েটর সাদিক আহমেদ। এছাড়া পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয় করেছেন একই চ্যানেলের অন্য কনটেন্ট ক্রিয়েটর শেখ মাসুম। তারা দুজনই শ্রীমঙ্গলের বাসিন্দা। ফিল্মটির ক্যামেরায় ছিলেন তাহমিদুল ইসলাম তানিম।

ভারতের চন্দননগরে ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের প্রথম আসরে বিশ্বের ৩৫ টি দেশের ৭৮৯ টি ফিল্ম জমা হয়। আয়োজক কমিটি দুটি ধাপে সর্বমোট ৫০ টি ফিল্ম মনোনীত করেছেন। যার মধ্যে প্রথম ধাপের ১৯ নাম্বার স্থান পায় ‘সিগারেটের শেষ পর্যায়’ শর্ট ফিল্মটি। ২২ টি কেটাগরিতে পুরষ্কার দেয়া হবে ফেস্টিভ্যালে। আগামি ২৩ ও ২৪ আগস্ট চন্দননগরের রবিন্দ্র ভবনে বিকাল ৪ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত চলবে পুরষ্কার কার্যক্রম।

শর্ট ফিল্মটির ডিরেকশন দিয়েছেন শ্রীমঙ্গলের “তৌফিকুল ইসলাম”। পেশাগত জীবনে তিনি টেলিকমিউনিকেশন ডিপার্টমেন্টের ছাত্র হলেও দীর্ঘদিন যাবৎ মিডিয়ার সাথে জড়িত। তিনি বর্তমানে নিজের ইউটিউব চ্যানেল ” Towfix Cc 2.16 ″ এর চীফ কনটেন্ট ক্রিয়েটর।

এ ব্যাপারে মুভির ডিরেক্টর তৌফিকুল ইসলাম বলেন” এটা আমার বানানো ৪র্থ শর্ট ফিল্ম। চার বছরের অর্জন। খুব অল্প বয়সে এত বড় একটা পাওয়া কল্পনাও করতে পারি নাই। সকলের দোয়া ও সহযোগীতায় এটা সম্ভব হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, শর্ট ফিল্মটিতে সিগারেটের কুফল ও শেষ পরিণতি অত্যন্ত ভয়ানক ভাবে ফুটিয়ে তুলা হয়েছে। একটি মানুষ সিগারেট খাওয়ার ফলে কিভাবে ধীরে ধীরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে তা, করাত দিয়ে একটি গাছকে টুকরো টুকরো করে কাটার সাথে তুলনা করা হয়েছে ফিল্মটিতে। যার শেষ হয় একটি বালকের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে। ফিল্মটির দৃশ্য ধারণ করা হয়েছে শ্রীমঙ্গলের ভাড়াওড়া চা বাগান ও সিন্দুরখান রোডের হাজী খান’স স’মিলে।