সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৮
Home » জাতীয় » বড়লেখায় হাওরপাড়ে ২ গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৪০ : গ্রামে থমতমে পরিস্থিতি

বড়লেখায় হাওরপাড়ে ২ গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ৪০ : গ্রামে থমতমে পরিস্থিতি

দোকানে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ

এইবেলা, বড়লেখা, ২৩ সেপ্টেম্বর ::

বড়লেখা উপজেলার হাকালুকি হাওরপাড়ের সুজানগর ইউনিয়নের ভোলাকান্দি গ্রামে রোববার সকালে দুই গ্র“পের সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ৪০ ব্যক্তি আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ২৫ জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। গ্রামের মসজিদের মোতওয়াল্লী নিয়ে বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে বলে গ্রামের লোকজন জানিয়েছেন। স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমরুল ইসলাম লাল ও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করলেও থমতমে পরিস্থিতি বিরাজ করায় পুলিশ মোতায়েন অব্যাহত থাকতে দেখা গেছে।

সরেজমিনে জানা গেছে, ভোলারকান্দি গ্রামের জামে মসজিদের মোতওয়াল্লী নিয়ে গ্রামে দুইটি গ্র“পের সৃষ্ঠি হয়। একপক্ষের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বর্তমান মোতওয়াল্লী মোক্তার আলী ও অপরপক্ষের নেতৃত্বে রয়েছেন ইউপি মেম্বার মাসুক আহমদ। মোক্তার আলীর বাড়ির সামনে তার মালিকানাধীন একটি মুদির দোকান রয়েছে। রোববার সকাল দশটার দিকে তুচ্ছ ঘটনায় কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে একরাম আলী মসজিদ কমিটির মোতওয়াল্লী মোক্তার আলীর মাথায় আঘাত করেন। এরপর দুই পক্ষের লোকজন লাঠিসোটাসহ দেশিয় অস্ত্র নিয়ে নিয়ে মূখোমুখি সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এতে মোতওয়াল্লী মোক্তার আলী, তার পক্ষের আফতার আলী, মইন উদ্দিন, হাফিজুর রহমান, ছায়াদ আহমদ, আবুল হোসেন, আবু বক্কর, ওবায়দুর রহমান, নজই মিয়া, ছলু মিয়া, আফজাল উদ্দিন, মালিক উদ্দিন, কমরুন নেছা প্রমূখ আহত হন। অপর পক্ষের আহতরা হলেন কাশিম আলী, ইসলাম উদ্দিন, নিজাম উদ্দিন, একরাম আলী, পাখি মিয়া, সজ্জাদ আলী, সৈয়দ আলী, ইকবাল হোসেন, আব্দুল হাসিম, আতাউর রহমান, আফিয়া বেগম, নেয়ারুন বেগম প্রমূখ।

আহত মোতওয়াল্লী মোক্তার আলী অভিযোগ করেন ইউপি মেম্বার মাসুকের নেতৃত্বে তার ওপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে তার দোকান ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। এরপর নিরীহ লোকজনকে লাঠিসোটা দিয়ে পিটিয়ে ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে আহত করা হয়েছে।

ইউপি মেম্বার মাসুক আহমদ জানান, মোক্তার আলী গ্রামের মুরব্বি হয়েও নিরীহ লোকজনকে মারধর করেছেন। তিনি বিবাদ মিটাতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন। মোক্তার আলী ও তার পক্ষের লোকজনের সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত ১০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বড়লেখা থানার সেকেন্ড অফিসার প্রভাকর রায় জানান, সংঘর্ষের খবর পেয়ে ৪ জন অফিসারসহ এক দল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছেন। উভয় পক্ষের আহতদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রামে থমতমে পরিস্থিতি বিরাজ করায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। উভয় পক্ষই মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে।