ডিসেম্বর ২০, ২০১৮
Home » জাতীয় » কুলাউড়ায় নৌকার দু’টি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর : আহত ১২: মামলা দায়ের

কুলাউড়ায় নৌকার দু’টি নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর : আহত ১২: মামলা দায়ের

এইবেলা, কুলাউড়া, ২০ ডিসেম্বর :: মৌলভীবাজার-২ কুলাউড়া আসনের মহাজোটের প্রার্থী এমএম শাহীনের নৌকা প্রতিকের নির্বাচনী কার্যালয়ে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার ১৯ডিসেম্বর রাতে উপজেলার ভূকশীমইল ইউনিয়নের নবাবগঞ্জ বাজারে এবং হাজিপুর ইউনিয়নের মনু বাজারে এ ঘটনাটি ঘটে।

পৃথক ঘটনায় নৌকা প্রতিকের ১২জন কর্মী-সমর্থক আহত হয়েছেন। দু’টি বাজারেই বিএনপি-জামায়াতের কর্মী-সমর্থকরা হামলা চালিয়ে অফিস ভাঙচুর করেছে বলে অভিযোগ নৌকা সমর্থকদের। এসব ঘটনায় এলাকাগুলোতে তুমুল উত্তেজনা বিরাজ করছে।

খবর পেয়ে কুলাউড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। এদিকে গত ১৬ ডিসেম্বর রাতে কাদিপুর ইউপির ঢুলিপাড়া বাজারে নৌকা প্রতিকের নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হয়। সেখানেও নৌকার ৫জন কর্মীসমর্থক আহত হন। এ নিয়ে পর পর ৩টি কার্যালয়ে হামলার ঘটনায় জনমনে আতংক বিরাজ করছে।

ভূকশিমইল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জাঙ্গির আলম জানান, বুধবার ১৮ ডিসেম্বর রাত ৮টার দিকে ভূকশিমইলে ধানের শীষ প্রতিকের প্রার্থী সুলতান মো. মনসুর সমর্থনে জনসভা চলছিল। সমাবেশ শেষে তাঁর নেতাকর্মীরা মিছিল সহকারে এসে অতর্কিতভাবে নৌকার অফিসে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।

এসময় অফিসে বসা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক শিবলু মিয়া (২০), বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি এবাদুর রহমান (২৫), রনি মিয়া (১৯), বেলাল আহমদ (২০), এনামুল ইসলাম (২২) ও মামুন আহমদ (১৯)সহ ৬-৭জন নৌকার কর্মীসমর্থক আহত হয়েছেন। আহতদের কুলাউড়া হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে হাজীপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল ওয়াহিদ মনা জানান, আমরা ৮-১০ নৌকা কর্মী-সমর্থক অফিসে বসে নির্বাচনী আলাপ-আলোচনা করছিলাম। এমতাবস্থায় রাত আনুমানিক ১০টার দিকে দুই সিএনজি ও কয়েকটি মটরবাইক যোগে ১৫-২০ জনের একটি দল এসে অতর্কিতভাবে আমাদের উপর হামলা চালিয়ে কার্যালয় ভাঙচুর করে। এতে বিধান দে কালা (৪২), আব্দুল আজিজ (৪৩), আব্দুল ওয়াহিদ (৪৮), নজরুল ইসলাম (৪০), জয়নাল আবেদিন (৩৫) ও আব্দুল হান্নান (৪২) আহত হন।

কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) সঞ্জয় চক্রবর্তী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, কাদিপুরের হামলার ঘটনায় ৬৪ জনের নামোল্লেখসহ আরও অজ্ঞাতনামা ২০-২৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। ভুকশিমইল ইউনিয়নের ঘটনায় ৩১ জনের নামোল্লেখসহ আরও ৩০-৩৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। হাজীপুর ইউনিয়নের ঘটনায় ৫০ জনের নামোল্লেখসহ আরও অজ্ঞাতনামা ২০-২৫ জনকে আসামী করা হয়েছে।

কুলাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শামীম মূসা জানান, হাজীপুরের মনু বাজারে ও ভূকশীমইলের নবাবগঞ্জে নৌকার নির্বাচনী কার্যালয়ে ভাঙচুরের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিভিন্ন ইউনিয়নে পুলিশি টহল জোরদার করা হয়েছে।#