- জাতীয়, ব্রেকিং নিউজ, রাজনীতি, স্থানীয়, স্লাইডার

শ্রীমঙ্গলে নৌকা প্রতীক পেতে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌঁড়ঝাঁপ

সাজু মারছিয়াং, ২৪ জানুয়ারি ::

আসন্ন শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন – ২০১৯ কে সামনে রেখে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেতে শ্রীমঙ্গল উপজেলায় মনোনয়নপ্রত্যাশীরা দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। উপজেলার বিভিন্ন জনগণের সাথে আলাপ করে জানা যায়, বর্তমানে যারা রয়েছেন, চলমান মেয়াদে তাদের কর্মতৎপরতা সন্তোষজনক এবং আগামীতে উপজেলার জনগণের সেবাদানের জন্য উপযুক্ত। যদিও চেয়ারম্যান, ভাইস – চেয়ারম্যান পদে নৌকা মার্কা চাইতে পারেন একাধিক মনোনয়নপ্রত্যাশী। বিভিন্ন সুত্র থেকে প্রাপ্ত খবরে জানা যায়, বর্তমান চেয়ারম্যান রনধীর কুমার দেব শ্রীমঙ্গল উপজেলায় সকল শ্রেণীর মানুষের নিকট জনপ্রিয় এমনকি পার্শ্ববর্তী উপজেলা কমলগঞ্জেও রয়েছে তাঁর ব্যাপক জনসমর্থন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কায় মনোনয়ন চেয়েছিলেন তিনি, উপজেলা চেয়ারম্যানদেরকে সংসদ সদস্য হিসেবে মনোনয়ন না দেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্তের কারনে এবং দলীয় বিবেচনায় অভিজ্ঞ সাংসদ ড. মো. আব্দুস শহীদ এমপির উপর মনোনয়নবোর্ড পুনরায় আস্থা রাখলে মনোনয়ন প্রাপ্তি থেকে ছিটকে পড়েন তিনি। তবে, বিগত নির্বাচনে নেতা – কর্মীদের নিয়ে নৌকা মার্কার পক্ষে ড. আব্দুস শহীদ এমপির সাথে দিবারাত্রি মাঠে থাকায় এবং নৌকার বিজয়ে অবদান রাখায় তাঁর ভাবমুর্তি আরো উজ্জ্বল হয়। তবে, চেয়ারম্যান হিসেবে নৌকা মার্কার সম্ভাব্য মনোনয়নপ্রত্যাশী হিসেবে রনধীর কুমার দেব, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তিযুদ্ধা কমান্ডার এম এ মন্নান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. আছকির মিয়া, শ্রীমঙ্গল উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন ফয়েজ, শ্রীমঙ্গল সদর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মো. আফজল হক মনোনয়নপ্রত্যাশীদের দৌড়ে রয়েছেন।
এছাড়া, প্রচ্ছন্নভাবে শ্রীমঙ্গল সদর ইউপি চেয়ারম্যান ভানু লাল রায় এর নামও শোনা যাচ্ছে। এ ব্যাপারে ভানু লাল রায়ের সাথে এ প্রতিবেদকের কথা হলে তিনি জানান, এখন পর্যন্ত উপজেলা নির্বাচন নিয়ে তাঁর কোন ভাবনা নেই। তবে, বিগত সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন কেনা বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান যদি কোন কারনে আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা না করেন তাহলে তিনি নির্বাচনে আসতে পারেন। বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান রনধীর কুমার দেব আসন্ন নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশী এবং তাঁর ব্যাপক জনসমর্থন রয়েছে বলে জানান। উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তিযুদ্ধা কমান্ডার এম এ মান্নান বলেন, তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নৌকা মার্কার মনোনয়নপ্রত্যাশী। প্রত্যাশিত মার্কায় মনোনয়ন না পেলে স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করবেন কিনা এ প্রশ্নের হাঁ বা না সরল উত্তর না দিয়ে এ মুহুর্তে বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। মহাজোট জোটগতভাবে নির্বাচন না করার সিদ্ধান্ত নিলে জাতীয় পার্টির নেতা মো. কামাল হোসেন লাঙ্গল প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করতে পারেন। তবে, উপজেলা চেয়ারম্যান নাকি ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপ্রত্যাশী এ বিষয়টি কৌশলগত কারনে প্রকাশ করতে চাননি। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, শ্রীমঙ্গল পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর হেলেনা চৌধুরী, পাশাপাশি বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগের শ্রীমঙ্গল থানা কমিটির সহ -সভানেত্রী হাজেরা খাতুন ও মিতালী দত্ত নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারেন।
এছাড়া, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে বর্তমানে দায়িত্বরত সাগর হাজরা আগামী নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন চাইবেন এটি নিশ্চিত এবং অপেক্ষাকৃত তরুন ও আওয়ামী লীগ নেতা তহিরুল ইসলাম মিলন মনোনয়ন চাইতে পারেন, আরেক ভাইস-চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আলহাজ¦ মাওলানা এম এ রহিম নোমানী কোন দলের পক্ষ থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার কথা নাকচ করে দেন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করার কথা জানান।
আওয়ামীলীগ দলীয় সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের নির্দেশনা মোতাবেক উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন প্রসঙ্গে তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মতামতের ভিত্তিতে জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষরকৃত একক প্রার্থী অথবা অনধিক তিনজনের একটি তালিকা আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড বরাবর পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগামী আগামী ২৬ জানুয়ারী বিকেলে শ্রীমঙ্গলে নির্বাচন সংক্রান্ত একটি বর্ধিত সভা অনুষ্টিত হওয়ার কথা রয়েছে।
এছাড়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকার অভূতপুর্ব বিজয় ধরে স্থানীয় আওয়ামীলীগ রাখতে মরিয়া। শুধু তাই নয়, এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যাতে দলীয় নেতাকর্মীদের বর্তমান উষ্ণ সম্পর্ক ও নৈকট্য ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সেদিকে জোর খেয়াল রাখা হবে। স্থানীয় আওয়ামীলীগে কোনো কোন্দল নেই। নেতা – কর্মীদের মধ্যে স্মরণকালের সর্বোচ্চ নৈকট্য বজায় রয়েছে। উপজেলা নির্বাচন নিয়ে দলের গণতান্ত্রিক চর্চা হিসেবে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ লক্ষ্যনীয়।
অপরদিকে, শ্রীমঙ্গল উপজেলা বিএনপির (একাংশ) সাধারণ সম্পাদক নেতা মো. ইয়াকুব আলী বিএনপির নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রসঙ্গে জানান, ‘কেন্দ্র থেকে উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ নিয়ে কোন নির্দেশনা এখনও আসেনি, এ সংক্রান্ত কোন নির্দেশনা আসলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আপাতত, স্থানীয় বিএনপির নির্বাচন নিয়ে কোন প্রস্তুতি বা ভাবনা নেই।

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *