- জাতীয়, ব্রেকিং নিউজ, মৌলভীবাজার, স্থানীয়, স্লাইডার

বড়লেখায় অসহায় মুক্তিযোদ্ধার বসতঘর নির্মাণে বাঁধা : উচ্ছেদের পায়তারা

আব্দুর রব, বড়লেখা, ২৩ এপ্রিল ::

বড়লেখায় গত দুই বছর ধরে অসহায় এক মুক্তিযোদ্ধার বসতঘর পুনঃনির্মাণে প্রতিবেশি এক প্রভাবশালীর বাঁধা দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে জরাজীর্ণ বসত ঘরে স্ত্রী, কন্যা নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন ‘৭১ এর রণাঙ্গনের বীর সৈনিক মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন (৭২)।

জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউপির চন্ডিনগর গ্রামে স্ত্রী জয়নব বেগমের পৈত্রিক সুত্রে পাওয়া প্রায় সাড়ে ৭ শতাংশ ভুমির ওপর ১৯৯৩ সাল থেকে বাঁশ-বেতের বেড়া ও টিনের ছাউনির বসতঘরে বসবাস করছেন মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন (৭২)। গত দুই বছর পুর্বে আত্মীয়-স্বজনের নিকট থেকে আর্থিক সহায়তা সংগ্রহ করে তিনি সেমি পাকা ঘর নির্মাণের প্রস্তুতি নেন। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধার আপন শ্যালক গ্রামের প্রভাবশালী এখলাছ আলী বসতঘর নির্মাণে বাঁধা দেন। সরেজমিনে গেলে মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিন জানান, আমার স্ত্রীর নামে রেকর্ডিয় ভুমির ওপর নির্মিত ঘরে দীর্ঘ ২৬ বছর ধরে বসবাস করছেন। এ ভুমির উত্তর আবর্তে নিজের আরো ৫ শতাংশ ভুমি রয়েছে। জরাজীর্ণ ঘর ভেঙ্গে পড়ে যেকোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই আত্মীয় স্বজনের নিকট থেকে আর্থিক সাহায্য নিয়ে সেমিপাকা ঘর নির্মাণ করতে গেলে এখলাছ আলী বাঁধা দেয়। দুই বছর ধরে গ্রাম পঞ্চায়েত এমনকি ইউপি চেয়ারম্যানের বিচারও সে মানেনি। সে এ ভুমি থেকে আমাদেরেকে উচ্ছেদের পায়তারা চালাচ্ছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন জানান, মুক্তিযোদ্ধা নিজাম উদ্দিনের শ্বশুড় আরব আলী জীবিত অবস্থায় স্ত্রী জয়নব বেগমকে (আরব আলীর মেয়ে) এ ভুমি চিহ্নিত করে দেন। এরপর তারা কাঁচা ঘর তৈরী করে বসবাস করছেন। বর্তমান (আরএস) রেকর্ডেও ভুমিটি জয়নব বেগমের নামে রয়েছে। দুই বছর আগে মুক্তিযোদ্ধার বসতঘর পুনঃনির্মাণ করতে গেলে এখলাছ আলী বাঁধা দেন। অনেকবার এ নিয়ে বিচার সালিশ হয়েছে। কিন্তু সে বিচার মানেনি।

এব্যাপারে অভিযুক্ত এখলাছ আলী জানান, ক্রয়সুত্রে তিনি এ ভুমিটির মালিক। তাই ঘর নির্মাণে তিনি বাঁধা দিচ্ছেন। বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা-মোকদ্দমা চলছে।#

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *