জুন ১৪, ২০১৯
Home » নির্বাচিত » মৃত্যুর চেয়ে জীবন অনেক বেশি ঐশ্বর্যময়

মৃত্যুর চেয়ে জীবন অনেক বেশি ঐশ্বর্যময়

প্রনব কান্তি দেব, ১৪ জুন ::

কেউ চলে যাওয়ার পর তার স্তুতি বন্দনা আমার পছন্দ নয় অথবা মৃত ব্যক্তির সাথে থাকা পুরোনো কোনো ছবি দিয়ে ইনিয়ে বিনিয়ে কথা বলাও আমার অভ্যাসে পড়েনা… কিন্তু এই ছবি কিংবা ছবি থেকে সদ্য ‘ছবি’ হয়ে যাওয়া মেয়েটাকে নিয়ে লিখতেই হলো। ছবিতে আমার সবচেয়ে কাছে থাকা মেয়েটাই এখন সবচেয়ে দূরে। ওর ব্যাচের Star মেয়েটা এখন সত্যি সত্যিই আকাশের তারা হয়ে গেল।

রিক্তা হাওলাদার। ইংরেজি বিভাগে আমার ছাত্রী ছিল। ওর বন্ধুদের কাছে শোনা- অর্নাস শেষে ঢাকা চলে যায়, ওখানেই মাস্টার্স করে সে। পড়াশোনা শেষে চাকুরির প্রস্তুতি নাকি নিচ্ছিল। ইন্টারভিউ দিচ্ছিল একের পর এক। ক্যারিয়ার নিয়ে ডিপ্রেশনে ছিলো এবং শেষ পর্যন্ত গত পরশু রাতে আত্নহত্যা করে। আহা জীবন… এরপর থেকে রিক্তার বন্ধুরা ফেইসবুকে একটা ছবি দিয়ে ওর জন্য হাহাকার করতে থাকে, আমিও এর বাইরে থাকতে পারিনা।। কারণ সম্ভবত ছবিটি তাদের অর্নাস ক্লাশের শেষদিনে তোলা এবং আমার সাথেই।

মেয়েটার মুখ মনে পড়ে, মেয়েটার কথা মনে পড়ে, মেয়েটার ক্লাসের মুহুর্তগুলো মনে পড়ে, তাঁর স্বপ্নগুলোর কথা মনে পড়ে, তাঁর অপূর্ণ আশাগুলো আমাকেও অপরাধী করে তুলে, আমাকে ব্যর্থ মানায়।

আমি কতো করে বলি, বলতে গিয়ে দুঃখ ফিরে আসে, তবুও বলি… সিলেবাসের বইগুলো আমাদের ভালো চাকুরির নিশ্চয়তা দিতে পারে কিন্তু একটা সার্থক জীবনের জন্য জীবনকে নানাভাবে জানতে হয়। আজকাল রিক্তার মতো ছেলেমেয়েরা প্রায়শই জীবনের প্রতি আস্থা হারিয়ে মৃত্যুর পথে পা বাড়াচ্ছে। কিন্তু এ কাম্য নয়… এরকম মৃত্যু আমাকে অপরাধী করে তুলে। পরিবার, সমাজ, রাস্ট্র সবারই দায়িত্ব আছে রিক্তাদের প্রতি, ওদের ছোট ছোট অনুযোগগুলো, দুঃখগুলোর মূলে ভালোবাসার জল ঢালতে হয়… কতোগুলোদিন ধরে বলছি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে Psychological Counselling দরকার, Mental Health এর গুরুত্ব দেয়া দরকার…

একটা জীবন কতো অনুপম সুন্দরে ভরা…
রিক্তা, এভাবে চলে যেতে নেই…
চলে যাবার আগে ফিরে তাকালেই দেখতে মৃত্যুর চেয়ে জীবন কতো ঐশ্বর্যময়…#

লেখক-সহকারী অধ্যাপক, ইংরেজি বিভাগ, সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি। স্টেট এলমনাই, ইউএস স্টেট ডিপার্টমেন্ট। নির্বাহী সঞ্চালক, ইনোভেটর বইপড়া উৎসব।