জুন ২১, ২০১৯
Home » ব্রেকিং নিউজ » বড়লেখার আব্দুল আহাদ জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ট মাদ্রাসা অধ্যক্ষ

বড়লেখার আব্দুল আহাদ জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ট মাদ্রাসা অধ্যক্ষ

এইবেলা, বড়লেখা, ২১ জুন ::

বড়লেখা উপজেলার ইটাউরী মহিলা আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ খান ২০১৯ সালের জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ট মাদ্রাসা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান নির্বাচিত হয়েছেন। ২০ জুন বৃহস্পতিবার ঢাকার গভর্ণমেন্ট ল্যাবরেটরিয়েট স্কুলে আনুষ্ঠানিক ভাবে এ ঘোষণা দেন ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. জিয়াউল হক। এসময় দেশ সেরা মাদ্রাসা অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল আহাদ খান উপস্থিত ছিলেন। ২০০৩ সাল থেকে তিনি এ মাদ্রাসায় অধ্যক্ষ হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

জানা গেছে, বড়লেখার নিজ বাহাদুরপুর ইউনিয়নের কানলী সেতু সংলগ্ন সুনাই নদীর তীরে অত্যন্ত মনোরম পরিবেশে অবস্থিত ইটাউরী মহিলা আলিম মাদরাসাটি জেলার প্রথম নারী দ্বীনি শিক্ষার অনন্য প্রতিষ্ঠান। নারী শিক্ষা বিস্তারে প্রতিষ্ঠানটি ব্যাপক ভুমিকা পালন করছে। প্রথম শ্রেণী হতে আলিম ২য় বর্ষ পর্যন্ত বর্তমানে মোট ৪২৩ জন ছাত্রী অধ্যয়নরত। নিয়মিত ক্লাস টেষ্ট, মাদ্রাসার সুনিপুণ পাঠ পরিকল্পনার পাশাপাশি শিক্ষক-শিক্ষার্র্থী ও অভিভাবকদের সচেতনতা প্রতি বছর এ মাদ্রাসার সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে সহায়তা করে। তাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্ঠায় মাদ্রাসাটি গতবারের চেয়ে এবার আরো এক ধাপ এগিয়েছে। প্রতিবছর ইবতেদায়ী, জেডিসি, দাখিল ও আলিম পরীক্ষায় মাদ্রাসাটি উপজেলার মধ্যে সেরা ফলাফল অর্জন করে থাকে। এবারের দাখিল পরীক্ষায় ৩১ জন ছাত্রী অংশগ্রহণ করে ২ জন এ-প¬াস, ১৪ জন এ, ১২ জন এ- এবং ৩ জন বি গ্রেড পেয়ে শতভাগ ফলাফল অর্জন করেছে। এবারের শিক্ষা সপ্তাহে বিভাগীয় পর্যায়ে ইটাউরী মহিলা আলিম মাদ্রাসা ৩ ক্যাটাগরিতে সাফল্যে অর্জন করেছে। ২০০৭ সালে মৌলভীবাজার জেলার শ্রেষ্ট অধ্যক্ষ নির্বাচিত হন মাওলানা আব্দুল আহাদ খান এবং শ্রেষ্ট শ্রেণি শিক্ষক নির্বাচিত হয়েছিলেন সহকারী শিক্ষক ইরশাদ হোসাইন।

মাওলানা আব্দুল আহাদ খান ২০০৩ সালে ইটাউরী মহিলা আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষের দায়িত্ব পেয়ে তিনি মাদ্রাসার শিক্ষার মানোন্নয়সহ নানা অবকাঠানোগত উন্নয়নে কাজ শুরু করেন। মাদ্রাসার নিজস্ব উদ্যেগে ‘ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব’ স্থাপন করেন। স্থাপন করেন দুর্লভ বই সমৃদ্ধ লাইব্রেরি, চালু করেন মাল্টিমিডিয়া শ্রেণি কার্যক্রম। মাদ্রাসায় রয়েছে ছাত্রীদের নামাজের জন্য সুবিশাল কক্ষ। ছাত্রীদের প্রতিভা বিকাশের জন্য প্রতি বছর পালন করা হয় ‘শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক সপ্তাহ’। তার প্রচেষ্টায় অত্র প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ‘ভার্চুয়াল শ্রেণিকক্ষের’ মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সাথে সংযোগ স্থাপন করতে পারছে। সবশেষে, গত বছর মৌলভীবাজার জেলা শিক্ষা অফিসার এ.এস.এম.আব্দুল ওয়াদুদ মাদ্রাসায় ছাত্রীদের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার অংশ হিসেবে ‘ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা বা সিসি টিভি’র উদ্বোধন করেন। তার অক্লান্ত পরিশ্রমে শিক্ষকবৃন্দ, মাদ্রাসার গভর্ণিংবডি ও এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতায় বর্তমানে এ মাদ্রাসাটি দেশের অন্যতম শ্রেষ্ট আধুনিক একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিনত হয়েছে।