- অর্থ ও বাণিজ্য, কুলাউড়া, ব্রেকিং নিউজ, স্লাইডার

কুলাউড়ার নলডরি বিটে সামাজিক বনায়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না

এইবেলা, কুলাউড়া, ১৬ আগস্ট ::

কুলাউড়ায় সামাজিক বনায়ন প্রকল্প ভেস্তে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। খাসিয়া কর্তৃক ইতিপূূর্বে ৩০ হাজার বীজতলার চারা পুড়িয়ে দেয়ার পর সম্প্রতি চারা রোপনেও খাসিয়াদের বাঁধার সম্মুখীন হচ্ছেন উপকারভোগিরা। ফলে কতিপয় খাসিয়ার বাঁধার কারণে সরকারি জায়গায় বনায়ন করতে পারছে না বনবিভাগ।

বন বিভাগ জানায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে নলডরী বিটের রির্জাভ ফরেষ্টের খালি জায়গায় ৫০ জন উপকারভোগি নিয়োগ দিয়ে এলাকাবাসী, স্থানীয় মেম্বার ও চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় রোশনাবাদ মৌজায় ২০ হেক্টর জায়গায় বনায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এ লক্ষ্যে গত ফেব্রুয়ারি মাসে পতিত বনভূমিতে ৪০ হাজার পলি ব্যাগে চারা উৎপাদন করা হয়। কিন্তু খাসিয়ারা গত মার্চ মাসে ৩০ হাজার চারা আগুন লাগিয়ে জ্বালিয়ে দেয়। এনিয়ে বন বিভাগের পক্ষ থেকে কুলাউড়া থানায় ইছাইছড়া পুঞ্জির হেডম্যান লেম্বু খাসিয়ারকে প্রধান আসামী করে ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। এরপর পুনরায় বন বিভাগ বনায়নের লক্ষ্যে চারা উৎপাদন এবং চারা রোপনের উদ্যোগ নিলেও খাসিয়ারা অস্ত্রসহকারে মহড়া দিয়ে বনায়নের উপকারভোগিদের ভয়ভীতি দেখিয়ে বনায়ন করতে নিষেধ করেছে বলে একাধিক উপকারভোগি ও কুলাউড়ার রেঞ্জ অফিসার মানিক রঞ্জন দে অভিযোগ করেছেন। এতে একদিকে ৫০ জন উপকারভোগি চরম ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন, অন্যদিকে সরকারি প্রকল্প শুধুমাত্র অবৈধভাবে বন বিভাগের জায়গা জবরদখলকারি কপিতয় খাসিয়ার বাঁধার কারণে ভেস্তে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

বনবিভাগ সুত্র আরও জানায়, বিষয়টি সমাধানের জন্য খাসিয়া ও বনবিভাগের মধ্যে সমঝোতা করে বনায়ন কর্মসূচি সফলের লক্ষ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম শফি আহমদ সলমান স্থানীয় কর্মধা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিককে দায়িত্ব দেন।  ফলে সামাজিক বনায়ন করার যে নির্ধারিত সময় তা অতিবাহিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এব্যাপারে উপকারভোগী সদস্য ইব্রাহিম, এলাইছ মিয়া ও মো: ইউছুফ জানান, বিগত ৭ মাস থেকে অনেক কষ্ট করে সামাজিক বনায়নের জন্য কাজ করেছি। কিন্তু খাসিয়ারা একবার চারা জ্বালিয়ে দিলো। পরে আবার চারা তৈরি করে বনায়নের চারা রোপনের সময় এখন সশ¯্র মহড়া দিয়ে খাসিয়ারা আমাদেরকে বনায়নের স্থান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছে। আমরা অনেক লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছি।

এব্যাপারে কুলাউড়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মানিক রঞ্জন দে জানান, ইতিপূর্বে গত অর্থবছরে মুরাইছড়ায় ২০ হেক্টর বনভূমিতে সামাজিক বনায়ন করা হলেও সেখানে খাসিয়ারা বাঁধা দেয়নি। কিন্তু নলডরী বিটের বন বিভাগের জায়গায় বনায়নে দফায় দফায় বাঁধা, আগুন দিয়ে চারা জ্বালিয়ে দেয়াসহ নানাভাবে বনায়ন কর্মসূচি বানচালের ষড়যন্ত্র করছে। এতে উপকারভোগী ও বন বিভাগ কয়েক লক্ষ টাকা ক্ষতির সম্মুখীন হতে হচ্ছে।

এব্যাপারে কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান এমএ রহমান আতিক খাসিয়াদের কাছ থেকে অর্থ লেনদেনের বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, আপাতত ৫০ একর জায়গা ছাড়তে প্রস্তত খাসিয়ারা। ফলে বনবিভাগ ও খাসিয়াদের উপস্থিতিতে জায়গাটি জরিপ হবে। ঈদ এবং বৃষ্টি থাকায় বিলম্ব হয়েছে। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সামাজিক বনায়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেবেন।#

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *