- কুলাউড়া, জাতীয়, ব্রেকিং নিউজ, স্লাইডার

ফলো আপ- কুলাউড়ার শরীফপুর সীমান্ত : বিজিবির ওপর হামলার ঘটনায় মামলা এলাকায় আতঙ্ক

এইবেলা, কুলাউড়া, ০৮ নভেম্বর ::

কুলাউড়া উপজেলার শরীফপুর সীমান্তের ইটারঘাট বাজারে হামলা চালিয়ে এক চোরাকারবারীকে ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ করে বৃহস্পতিবার ০৭ নভেম্বর রাতে থানায় মামলা করেছে বিজিবি। মামলার পর থেকে এলাকায় গ্রেফতার আতঙ্ক বিরাজ করছে। এছাড়া বিজিবির উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ০৭ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ঘটনা সরেজমিন তদন্ত করেন।

থানায় দায়ের করা মামলার সূত্রে জানা যায়, বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় এলাকার চিহ্নিত চোরাকারবারী লোকমান আলীকে (৪০) কে ৪ বিজিবি সদস্য ধরে ক্যাম্পে নিয়ে যাচ্ছিল। এসময় ইটারঘাট বাজারের কিছু লোক অতর্কিতে বিজিবি সদস্যদের উপর হামলা চালিয়ে তাদের আহত করে ধৃত চোরাকারবারী লোকমান আলেিক ছিনিয়ে নেয়। হামলায় ৪ জন বিজিবি সদস্য আহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) সকালে শ্রীমঙ্গলস্থ ৪৬ বিজিবি ব্যাটেলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল আরিফুল হক ও সিলেটস্থ ৪৮ ব্যাটলিয়নের উপ অধিনায়ক মেজর নাজমুল সাকিব ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

সরেজমিন এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, কয়েকদিন আগে বিজিবির গোয়েন্দা বিভাগের এক সদস্যের সাথে চোরকারবারীদের সমস্যা হয়েছিল। এজন্য বুধবার সন্ধ্যার পর চোরাকারবারীদের ধরতে এসে নিরীহ ব্যবসায়ী লোকমান আলীকে (৪০) ধরে নিয়ে যায়। নেয়ার সময় লোকমান আলী ও বিজিবি সদস্যদের মাঝে ধস্তাধস্তিতে লোকমান আলীর পরনের লুঙ্গি খোলে বিবস্ত্র হওয়ায় বাজারে থাকা লোকজন তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চালায়। ফলে বিজিবি সদস্য ও গ্রামবাসীর মাঝে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এতে ঘটনার সময় মুক্তিযোদ্ধা সোহাগ মিয়া (৭৫), আব্দুল কাইয়ুম (৪০), চা শ্রমিক রামচন্দ্র ভর (৩০) সহ কমপক্ষে ১০জন গ্রামবাসী আহত হয়। অন্যদিকে বিজিবির চার সদস্য আহত হয়েছেন ।

এলাকাবাসী আরও জানান, মামলা বিজিবি কাদের আসামী করেছে। বিষয়টি না জানায় হয়রানির ভয়ে নিরীহ মানুষ গ্রেফতার আতঙ্কে রয়েছেন। এলাকায় বিজিবির সোর্স নিরীহ মানুষকেও ধরিয়ে দিতে পারে।
শরীফপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুনাব আলী জানান, বিজিবির তদন্তকারী কর্মকর্তাদের কাছে জোর অনুরোধ করা হয়েছে, ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে। কোনভাবেই যাতে নিরিহ লোক হয়রানির শিকার না হয়। এলাকায় গ্রেফতার আতঙ্কের কথা স্বীকার করেন তিনি।
কুলাউড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সঞ্জয় চক্রবর্তী বিজিবির করা মামলার সত্যতা নিশ্চিত করলেও তদন্তের স্বার্থে এই মুহুর্তে কোন আসামীর নাম প্রকাশ করেননি। তিনি জানান, চাতলাপুর আসামী করে মামলা (নং ০৯ তাং ০৭/১১/১৯) দায়ের করেন।

ঘটনাস্থল পরিদর্শণ শেষে বিজিবি সিলেট সেক্টরের ৪৮ ব্যাটেলিয়নের উপ অধিনায়ক মেজর নাজমুল সাকিব জানান, গ্রামবাসী যে ঘটনা ঘটিয়েছে তা ঠিক নয়। অপরাধী গ্রেফতারে গ্রামবাসীর সহযোগিতা করা উচিত ছিলো। গ্রামবাসীর বক্তব্য অনুযায়ী বিবস্ত্র অবস্থায় যদি বিজিবি লোকমান মিয়াকে নিয়ে আসে সেটাও উচিত হয়নি।#

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *