সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৫
Home » জাতীয় » জগন্নাথপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স: দুই বছর ধরে অ্যাম্বুলেন্স বিকল

জগন্নাথপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স: দুই বছর ধরে অ্যাম্বুলেন্স বিকল

এইবেলা, জগন্নাথপুর, ২২ সেপ্টেম্বর:: প্রায় ৩ লাখ মানুষের চিকিৎসাস্থল জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি অ্যাম্বুলেন্স প্রায় দুই বছর ধরে বিকল হয়ে পড়ে থাকায় গুরুতর অসুস্থ রোগীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। এখানে কোনো প্রাইভেট অ্যাম্বুলেন্সও নেই। তাই মধ্যবিত্ত ও বিত্তশালী রোগীরা বাধ্য হয়ে উচ্চ মূল্যের ভাড়ায় লাইটেসসহ অন্যান্য যানবাহন ব্যবহার করলেও বিপাকে পড়েছেন নিু আয়ের গরিব শ্রেণীর লোকজন।
জানা যায়, এরশাদ সরকারের আমলে ১৯৮৭ সালে এলাকার এমপি ও পররাষ্ট্র মন্ত্রী মরহুম হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী (পরে স্পিকার) এর প্রচেষ্টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১টি অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলেন্স বরাদ্দ দেয়া হয়। দীর্ঘদিন রোগী পরিবহনে অ্যাম্বুলেন্সটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এক পর্যায়ে অ্যাম্বলেন্সটি বিকল হয়ে পড়লে ১৯৯৮ সালে শেখ হাসিনা সরকারের আমলে তৎকালীন অত্র এলাকার এমপি ও পররাষ্ট্র মন্ত্রী আবদুস সামাদ আজাদের প্রচেষ্টায় আরেকটি অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলেন্স প্রদান করা হয়। দীর্ঘদিন চালুর পর এটিও বিকল হয়ে যায়।
অবশেষে ২০০৪ সালে খালেদা জিয়া সরকারের আমলে এমপি মাওলানা শাহিনুর পাশা চৌধুরী প্রচেষ্টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নতুন আরেকটি অত্যাধুনিক অ্যাম্বুলেন্স প্রদান করা হয়। দীর্ঘদিন চালুর পর ২০১৩ সালে এটিও বিকল হয়ে পড়ে। জাপা আমলের অ্যাম্বুলেন্সটির অস্তিত্ব না থাকলেও আওয়ামী লীগ ও বিএনপি আমলের বরাদ্দকৃত দুটি অ্যাম্বুলেন্স উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গ্যারেজে পড়ে আছে।

এগুলো প্রায় দুবছর ধরে অবহেলায় পড়ে থাকলেও সচল করার কোনো উদ্যোগ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। প্রায় প্রতিদিনই উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে শত শত রোগী উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সটিতে আসেন এর মধ্যে গুরুতর অসুস্থ অধিকাংশ রোগীকে সাধারণত সিলেট এমজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। কিন্তু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অ্যাম্বুলেন্সগুলো বিকল থাকায় এ ধরনের রোগী নিয়ে আত্মীয়স্বজনরা পড়েন বিপাকে।
তাছাড়া উপজেলা সদরে বেসরকারিভাবে কোনো অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিসও গড়ে ওঠেনি। এলাকার ভুক্তভোগীদের অভিযোগ কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা ও দায়িত্বহীনতার ফলে অ্যাম্বুলেন্সগুলো সচল করা হচ্ছে না।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুল হাকিমের সঙ্গে আলাপ হলে তিনি জানান, ২ বছর ধরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি অ্যাম্বুলেন্সই বিকল হয়ে পড়ে আছে। এগুলো একেবারে অকেজো থাকায় নতুন অ্যাম্বুলেন্সের জন্য দীর্ঘ প্রায় দুই বছর ধরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি চালাচালি করে আসছি। কিন্তু কোনো ফল পাচ্ছি না। অ্যাম্বুলেন্স না থাকায় রোগী নিয়ে বেকায়দায় পড়তে হচ্ছে।
রিপোর্ট-বিশেষ প্রতিনিধি