- সুনামগঞ্জ, স্লাইডার

জামালগঞ্জে ব্রীজের কাজ হয়, হয়না সংযোগ সড়ক

এইবেলা, জামালগঞ্জ, ২৯ আগস্ট::

জামালগঞ্জে ব্রীজ নির্মান হলেও সংযোগ সড়কের কাজ হয় না, আর না হওয়াটাই এখন রেওয়াজে পরিনতি হয়েছে। জামালগঞ্জে এরকম উদাহরন একটি দুটি নয় অসংখ্য উদাহরন।

বিগত অর্থবছর গুলোতে নির্মিত সাচনা সুনামগঞ্জ রোডের শেরমস্ত পুর, গজারিয়া সড়কের চানপুরের ব্রীজ, লক্ষীপুরের ব্রীজ, সেলিমগঞ্জ সংলগ্ন নব্য নির্মিত ব্রীজের নির্মান কাজ হলেও অধ্যাবধি পর্যন্ত সংযোগ সড়কের কাজ হয়নি। উপজেলার বিভিন্ন ব্রীজের সংযোগ সড়কের কাজ না হওয়ায় প্রতিদিন পথচারী, যানবাহনের চালক ও যাত্রীদের নানা ধরনের হয়রানীর শিকার হতে হচ্ছে। নিয়মিত ছোট খাটো দুর্ঘটনার শিকার হতে হয় যাত্রীদেরকে।

অবশ্য প্রকৌশল বিভাগ বলছে যে সমস্ত  ব্রীজের সংযোগ সড়কের কাজ এখনও হয়নি, তা চলতি বছরের মধ্যে সমাপ্ত করা হবে। আর জনপ্রতিনিধিরা বলছেন কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারনেই বিলম্ব হচ্ছে সংযোগ সড়কের কাজ গুলো।

সুনামগঞ্জের সুরমা নদীর উপর সদ্য আব্দুজ জহুর সেতু উদ্বোধন হওয়ার পর বিশম্ভরপুর ও তাহিরপুরের সাথে যোগাযোগ হলেও বঞ্চিত হচ্ছেন জামালগঞ্জ উপজেলা বাসী। শেরমস্তপুরের ব্রীজের সংযোগ না থাকায় প্রতিদিনই কয়েক হাজার যানবাহন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

সাচনা বাজারের ব্যবসায়ী কবিন্দ্র দাস জানান, আমরা শেরমস্তপুরের ব্রীজের সংযোগ না থাকায় যাতায়াতে হিমশিম খাচ্ছি, ভোগান্তি ও কষ্ট হচ্ছে আমাদের আসতে যেতে। জামালগঞ্জের সাথে ধরমপাশা, মধ্যনগর, মোহনগঞ্জের উপজেলার একমাত্র সড়কের চানপুরের ব্রীজটির সংযোগ সড়ক না থাকার কারণে যানচলাচল ব্যহত হচ্ছে। প্রতিদিনই ব্রীজে উঠতে মোটর লেগুনা, সিএনজি, সাইকেল, অটোরিক্সা, টমটম দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। ব্রীজের উত্তর দিকের সড়কের একপাশে মাটির রাস্তাটি ভাঙ্গা থাকায় যানবাহন গুলো উঠা নামা করতে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

ফেনারবাক ইউনিয়নের আলী পুরের যাত্রী রহিম বলেন, আমরা এই রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করতে হয় ব্রীজের কাছে এসেই আমাদের সমস্যার সম্মুখিন হতে হয়।

জামালগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সোনাপুর চানপুর কদমতলীর একাধিক ছাত্রীরা জানান, ব্রীজের গোড়ায় গাড়ী আসার আগেই আমাদের নামিয়ে দেয়। পায়ে হেটে প্রতিদিন পাড় হতে, বৃষ্টি হলে আর যেতে পারিনা। ছাত্রীদের মধ্যে অনেকেই পিচ্ছিল খেয়ে পড়ে যাবার কথাও জানিয়েছেন। সেলিমগঞ্জ গজারিয়া সড়কে বাজার সংলগ্ন ব্রীজের কাজ সমাপ্ত হলেও সংযোগ সড়কের কাজ হয়নি এখনও।

সুজাতপুরের বাসিন্দা মোশারফ হোসেন জানান, রাস্তা দিয়ে যানবাহন চলাচল ও পথচারীদের প্রতিদিনই ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। অপর দিকে লালবাজার থেকে ফেনারবাক সড়কের তেরানগর ব্রীজটিও দিনদিন ধরে অযত্নে আর অবহেলায় পরে আছে, ব্রীজের দুপাশের সংযোগের মাটি সরে গেছে, ভেঙ্গে গেছে ঢালাই।

সাচনা থেকে বেহেলী সড়কের রাজাপুর ব্রীজটির ও নাজোহাল অবস্থা ব্রীজের মধ্যম অংশে ঢালাই উঠে গর্ত হয়ে গেছে, দুপাশের সংযোগ সড়কে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে, ব্রীজের এপ্রোচের তলা থেকে মাঠি সরে গেছে। এলাকাবাসীর দাবী দ্রুত সংযোগ সড়কটির কাজ সম্পন্ন করা হয়।

জামালগঞ্জের সমাজকর্মী  কর্মী দিল আহমেদ জানান, আমরা জামালগঞ্জের ব্রীজ ও সড়ক নিয়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় সংবাদ পরিবেশন করছি, কর্তৃপক্ষের উদাসীনতার কারণে আমাদের কাজগুলি বিলম্ব হচ্ছে।

সাচনা বাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম জানান, সাচনা-সুনামগঞ্জ সড়কের শেরমস্তপুর সংযোগ সড়কের জন্য ইতিমধ্যে রোডস এন্ড হাইওয়ের নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে, পানি কমে গেলে কাজ শুরু করবেন বলে আমাদের আশ্বস্থ করেছেন।

উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুস সাত্তার জানান, যে সমস্ত সংযোগ সড়কে সমস্যা আছে, সেগুলো আমরা দ্রুত মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহন করবো। আর যে সমস্ত ব্রীজে এখনো পর্যন্ত সংযোগ সড়ক হয়নি, চলতি অর্থ বছরে এই কাজ গুলি শুরু করতে পারবো বলে আশা রাখি।

সুনামগঞ্জ এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী ইকবাল আহমদ জানান, সংশ্লিস্ট উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে কথা বলে কাজের বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

 2

Google +0

 0  2  0

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *