- জাতীয়, ব্রেকিং নিউজ, শিক্ষাঙ্গন, সিলেট, স্লাইডার

ওসমানীনগরের তাজপুর ডিগ্রী কলেজে ভবন নির্মাণে অপর্যাপ্ত রড!

শিব্বির আহমদ, ওসমানীনগর. ২১ আগস্ট ::

ওসমানীনগরের তাজপুর ডিগ্রী কলেজে প্রায় আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত নতুন ভবনে অপর্যাপ্ত রড ছাড়া নির্মাণ কাজ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল স্থানীয় সংসদ সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া কলেজে গিয়ে নির্মিতব্য ভবনের রেলিং  ভাঙ্গলে এ তথ্য বেড়িয়ে আসে। এসময় নির্মান কাজে নিয়োজিত ঠিকাদার কাজে ত্রুটি রয়েছে বলে স্বীকারোক্তি দিয়ে লিখিতভাবে কলেজ গর্ভণিং কমিটির কাছে দায় স্বীকার করেন, এবং ত্রুটি জনিত সকল কাজ আবার সংশোধন করে দিবেন বলেন অঙ্গিকার করেন। এক মাসের ভিতরে তাজপুর ডিগ্রী কলেজ ও গোয়ালাবাজার ডিগ্রী কলেজের নির্মিতব্য নতুন ভবনে একই কায়দায় অপর্যাপ্ত রডের ব্যবহারে গোটা উপজেলায় তোলপাড় শুরু হয়েছে।

জানা যায়, গত ২০ আগস্ট বিকাল ৪টায় স্থানীয় সংসদ সদস্য ইয়াহিয়া চৌধুরী এহিয়া স্থানীয় জাতীয় পার্টির সভাপতি সুফি মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক মকবুল আলী, উপজেলা যুব সংহতির সভাপতি ও সিলেট জেলা পরিষদের স্থানীয় ওয়ার্ড সদস্য আশিক মিয়া, আ’লীগের সাবেক উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আব্দাল মিয়া, কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মনু মিয়া, শিক্ষক আবুল খায়ের, আশরাফুল ইসলাম, সাংবাদিক জুবেল আহমদ শেকেল, মো: মুহিব হাসান, আবুল কালাম আজাদ, কয়েছ মিয়া, আব্দুল মতিনসহ স্থানীয় অনেক ব্যক্তিবর্গ সাথে নিয়ে কলেজের নতুন নির্মানাধীন ভবনের রেলিং ও দরজার উপরের লিন্টার ভাঙ্গেন। এসময় দেখা যায় ভবনের দ্বিতীয় তলার সামনের রেলিং এ রড ৪টার বদলে ৩ টা , রিং ৬ ইঞ্চির বদলে ১৬ ইঞ্চি দুরে এবং তৃতীয় তলায় দরজার উপরের লিন্টেলে ৫ ইঞ্চির বদলে ১২ ইঞ্চি করে দুরে দেয়া হয়েছে, এবং রেলিং রডগুলো ভবনের পিলারের সাথে জোড়া লাগানো নয়। ভবনের নির্মিতব্য কাজ ভাংতে দেখে নির্মাণ কাজে নিয়োজিত সাব কন্ট্রাক্টর পালিয়ে যায়। এসময় উপস্থিত ভবন নির্মাণের ঠিকাদার মেসার্স নব কিশোর দাস এর প্রোপ্রাইটর নিরেশ দাসকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি ভবন নির্মাণে অনিয়ম হয়েছে বলে লিখিত প্রদান করে কলেজ কতৃপক্ষের কাছে দাবী করেন তাকে সুযোগ দিলে অনিয়মকৃত কাজ ভেঙ্গে নতুন করে নির্মান করে দিবেন।

ঠিকাদারী প্রতিষ্টান সেসার্স নব কিশোর দাস এর প্রোপ্রাইটর ঠিকাদার নিরেশ দাশ বলেন, আমার সাব ঠিকাদার ভুল করেছে। আমি এর দায় স্বীকার করে লিখিত দিয়েছি। সুযোগ দিলে আমি এর সমাধান করে দেব। কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মনু মিয়া বলেন, কলেজের নির্মান কাজে অনিয়ম ধরা পড়েছে। ঠিকাদার অনিয়ম স্বীকার করে লিখিত দিয়েছেন। কলেজের পক্ষ থেকে কাউকে তধারকির দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল কি এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, একজনকে তধারকির দায়িত্ব দিয়েছিলাম।

কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি স্থানীয় সংসদ সদস্য ইয়াহিয়া চৌধুরী এহিয়া বলেন, ভবনে রড এবং রিং কম দেয়া হয়েছে দেখতেইতো পাচ্ছেন। এখানে দুর্নীতি হয়েছে। আমরা শিক্ষা প্রতিষ্টানে নির্মিতব্য ভবনগুলোর দুর্নীতি খোঁজছি।কিছুদিন আগে গোয়ালাবাজার কলেজ একই ভাবে তদন্ত করেছি। এরই ধারাবাহিকতায় আজকে তাজপুর কলেজে এসেছিলাম। আগামীতে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে যাবো।

প্রসঙ্গত গত মাসে একই কায়দায় ওসমানীনগরের গোয়ালাবাজার মহিলা ডিগ্রী কলেজের ভবন নির্মানে রড ছাড়াই ভবন নির্মান হচ্ছে এমন তথ্য উদঘাটন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য এহিয়া চৌধুরী।#

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *