1. admin@eibela.net : admin :
সোমবার, ১০ অগাস্ট ২০২০, ০৪:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ায় কাস্টমস ও ব্যাংক কর্মকর্তাসহ নতুন ৭ জনের করোনা শনাক্ত কাতারে সড়ক দূর্ঘটনায় কুলাউড়ার জুয়েলের মৃত্যু কুলাউড়ার ব্রাহ্মণবাজারের পরিচিত মুখ মহসিনের আকস্মিক মৃত্যু বড়লেখায় পিডিবির বিরুদ্ধে গ্রাহক হয়রানীর অভিযোগ কুলাউড়ার গোগালিছড়া জলমহাল ২ বছর থেকে জবর দখল করে মাছ লুটের অভিযোগ কমলগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালিত কমলগঞ্জে এক বৃদ্ধের মৃত্যু নিয়ে ধুম্রজাল বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ গ্রন্থমালায় প্রকাশিত বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের চা শিল্প বড়লেখায় দরিদ্রের ভাতা তালিকায় ইউপি মেম্বারের স্ত্রী-কন্যা ও স্বচ্ছলরা ! বড়লেখায় সাংবাদিকদের সার্বিক সহযোগিতা চাইলেন নবাগত ওসি

বড়লেখায়  প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন : অত:পর

  • বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই, ২০২০
  • ৪৩১ বার পড়া হয়েছে

এইবেলা, বড়লেখা ::

বড়লেখায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশনকালে প্রেমিকা নাজমিন বেগমের (১৮) উপর হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার বিকেল ৩টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় পর্যন্ত তিনি প্রেমিকের বাড়িতে টানা ১৯ ঘন্টা অনশন করেন। প্রেমিকের পরিবারের লোকজনের মারধরে সকাল জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে স্থানীয় লোকজন ও গ্রাম পুলিশ তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক, বিয়েতে অসম্মতি ও হামলার ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকেলে আহত নাজমিন বেগম প্রেমিক কালন মিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ উঠেছে ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল উঠে পড়ে লেগেছে।

জানা গেছে, উপজেলার তালিমপুর ইউনিয়নের মুর্শিবাদকুরা গ্রামের আলা উদ্দিনের ছেলে কালন মিয়া পার্শ্ববর্তী খুটাউরা গ্রামের তাজ উদ্দিনের মেয়ে নাজমিন বেগমের সঙ্গে মোঠোফোন কলের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। গত ৩১ মার্চ কালন মিয়া নাজমিনের বাড়িতে গিয়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এরপর মেয়েটি বিয়ের জন্য কালনকে চাপ দিলে সে আশ্বাস দেয়। একপর্যায়ে সে বিয়েতে অসম্মতি জানালে নাজমিন বিষয়টি তার বাবা-মাকে জানায়। তারা বিষয়টি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ এলাকার মুরব্বিদের জানালে তারা নিষ্পত্তির আশ্বাস দেন।

গত ১৫ মে দুই পরিবারের অভিভাবক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ এলাকার লোকজন সালিস বৈঠক করেন। বৈঠকে প্রেমিক কালন মিয়া ও তার বাবা-মা বিয়ে করে নাজমিনকে ঘরে তুলতে সম্মত হয়। কিন্ত বিয়ের প্রস্তুতি হিসেবে তারা ২দিন সময় চায়। এরই মধ্যে প্রভাবশালীদের ইন্ধনে কালন মিয়া ও তার পরিবার বুলি পাল্টিয়ে উল্টো নাজমিন ও তার বাবাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়ায় ন্যায় বিচার চেয়ে ৮ জুন নাজমিন বেগম তালিমপুর ইউনিয়ন গ্রাম আদালতে লিখিত অভিযোগ দেন।

অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ১৪ জুন তালিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান দু’পক্ষের লোকজনকে ডেকে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করেন। কিন্তু কালনের পরিবার শেষ পর্যন্ত না মানায় ঘটনার সমাধান হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে নাজমিন বেগম বিয়ের দাবীতে বুধবার বিকেলে ৩টায় প্রেমিক কালন মিয়ার বাড়িতে অবস্থান নেয়।

 সরেজমিনে গেলে নাজমিন বেগম জানান, ‘কালনের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে তার প্রেমের সর্ম্পক। সে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করে। বিয়ের চাপ দেয়ায় প্রথমে আশ্বাস দিলেও পরে টালবাহানা শুরু করে। গ্রাম পঞ্চায়েতের সিদ্ধান্ত মেনে নিলেও পরে বিয়েতে রাজি হয়নি। শারীরিক সম্পর্কের বিষয়টিও অস্বীকার করছে। তাই বাধ্য হয়ে বিয়ের দাবীতে তার (প্রেমিক) বাড়িতে অবস্থান করেছি। এসময় তার স্বজনরা আমাকে মারধর করেছে। বাড়ি থেকে বের করে দিতে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। কিন্ত আমি বের হইনি। সে (প্রেমিক) যদি আমাকে বিয়ে না করে তবে তার বাড়িতেই আমি আত্মহত্যা করবো।’

তালিমপুর ইউপি চেয়ারম্যান বিদ্যুৎ কান্তি দাস জানান, উভয় পক্ষের কথা শুনে বিষয়টি মীমাংসার উদ্যোগ নেন। আপোস মীমাংসায় উভয়পক্ষ রাজিও হয়। কালন মিয়া নাজমিনকে স্ত্রী হিসেবে মর্যাদা দেবে স্বীকার করে তারা ৩ দিন সময় নেয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত না মানায় সমাধান হয়নি। বুধবার বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়িতে নাজমিনের অবস্থানের ও আত্মহত্যার হুমকির খবর পেয়ে রাতে তিনি দুইজন গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে পাহারা দিয়েছেন, যাতে মেয়েটি কোন দুর্ঘটনা না ঘটায়। সকালে অজ্ঞান হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শুনেছি আহত নাজমিন বেগম এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।

বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইয়াছিনুল হক জানান, এব্যাপারে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নিবেন।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews