কুড়িগ্রামে শিশু সিয়াম হত্যাকান্ড : বলৎকারের পর গলাটিপে হত্যা করা হয় কুড়িগ্রামে শিশু সিয়াম হত্যাকান্ড : বলৎকারের পর গলাটিপে হত্যা করা হয় – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কমলগঞ্জে জন্ম মৃত্যু নিবন্ধন দিবস উদযাপন কমলগঞ্জে ৪ সন্তানের জনকের রহস্যজনক মৃত্যু কমলগঞ্জে ৩ বন্ধুর মাদক সেবন নিয়ে তুলকালাম : আটক ৩ স্থলবন্দর হচ্ছে কুলাউড়ার চাতলাপুর স্থল শুল্ক স্টেশন বড়লেখার সুড়িকান্দি কওমি মাদ্রাসায় যুক্তরাজ্য প্রবাসী মারুফের কম্পিউটার দান কমলগঞ্জে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে সুবিধাবঞ্চিতদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ কুলাউড়ায় বিদ্যালয় ফটকে দূর্ঘটনার ১৪ দিন পর দপ্তরির মৃত্যু সাবেক এমপি এম নাসের রহমানের বিভিন্ন পূজামন্ডপ পরিদর্শন কুলাউড়া চারুহাট চিত্রাংকন একাডেমির রাতুলের জাতীয় পর্যায়ে সাফল্য বড়লেখায় মহাঅষ্টমীতে পরিবেশমন্ত্রীর বিভিন্ন পূজামণ্ডপ পরিদর্শণ

কুড়িগ্রামে শিশু সিয়াম হত্যাকান্ড : বলৎকারের পর গলাটিপে হত্যা করা হয়

  • শুক্রবার, ৩ জুলাই, ২০২০

বুলবুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম সদর ::

কুড়িগ্রামে চাঞ্চল্যকর শিশু সিয়াম হত্যার রহস্য উন্মোচিত হয়েছে। শিশু সিয়ামকে বলঃকারের পর গলাটিপে হত্যা করা হয়।

গত  মঙ্গলবার ৩০ জুন দুপুরে কুড়িগ্রাম পুলিশ সুপার অফিস হলরুমে সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে ঘটনার বর্ণনা তুলে ধরেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান।

তিনি জানান, জেলার ফুলবাড়ি উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নে গত ২০ জুন সকালে ৫ বছরের শিশু সিয়াসের উপর বিকৃত লালসা চরিতার্থের পর তাকে গলা টিপে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়। টানা ৬দিন অনুসন্ধানের পর ফুলবাড়ি থানা পুলিশ ঘাতক সিয়ামের চাচাতো ভাই কিশোর রাসেল বাবু রাকিবকে (১৫) হত্যার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। ঘটনার পর থেকে ঘাতক রাসেল বাবু রাকিব অস্বাভাবিক আচরণ করছিল। মেয়েলি স্বভাবের রাকিবকে অনেকেই উত্যক্ত করতো। এমনকি সিয়ামের বাবাও তাকে মেয়ে বলে রসিকতা করত। এনিয়ে ক্ষোভ ছিল রাকিবের। সে শোধ নেয়ার জন্য শিশু সিয়ামকে এর আগেও একবার বলাৎকার করেছিল। পরে তাকে এড়িয়েই চলত সিয়াম। ঘটনার দিন আম খাওয়ার লোভ দেখিয়ে শিশুটিকে বাড়ি থেকে ৪শ’ গজ দূরে প্রতিবেশী ছয়ফুলের পাট ক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে জোর করে সিয়ামের উপর বিকৃত লালসা চরিতার্থ করে।

এ ঘটনা বাড়িতে জানিয়ে দিবে শুনে শিশু সিয়ামকে ঘাতক রাসেল বাবু দু’হাত দিয়ে গলা টিপে হত্যা করে। পরে পাটের আঁশ গলায় পেচিয়ে রেখে বাড়িতে চলে যায়। ঘটনার ৬দিন পর ঘাতককে সনাক্ত করে পুলিশ। ঘাতক রাসেল বাবু একই ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামের জহুরুল হকের ছেলে।

ফুলবাড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নবীউল হাসান কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খানের নির্দেশে গোপনে সোর্স নিয়োগ করে অনুসন্ধান অব্যাহত রাখেন। পরে রাসেল বাবু ওরফে রাকিবের আচড়ণে সন্দেহ দেখা দেয়ায় তাকে ২৮ জুন গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে সে অপরাধের কথা স্বীকার করে।

পরে তাকে আদালতে তোলা হলে ফৌজদারী কার্যবিধি আইনের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। আদালত তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিশোর অপরাধী রাসেল বাবু ওরফে রাকিবকে শিশু সংশোধনাগারে রাখার আদেশ প্রদান করেন। মঙ্গলবার বিকেলে তাকে যশোর শিশু সংশোধানাগারে প্রেরণ করে পুলিশ।

উল্লেখ্য, গত ২০ জুন সকালে শিশু সিয়ামকে বাড়ি থেকে ৪শ’ গজ দূরে পাট ক্ষেতের ভিতরে গলায় পাটের আঁশ দিয়ে পেঁচানো অবস্থায় তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। তার বাবা একজন টাইলস মিস্ত্রি। চাঞ্চল্যকর এই হত্যা রহস্য এক সপ্তাহের ভেতরে অনুসন্ধান চালিয়ে উদ্ধার করতে সক্ষম হয় পুলিশ।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews