কুলাউড়ার রবিরবাজারের ব্যবসায়ীদের নিত্যদিনের দুর্ভোগ কুলাউড়ার রবিরবাজারের ব্যবসায়ীদের নিত্যদিনের দুর্ভোগ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৬ পূর্বাহ্ন

কুলাউড়ার রবিরবাজারের ব্যবসায়ীদের নিত্যদিনের দুর্ভোগ

  • শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৩৩১ বার পড়া হয়েছে

এইবেলা, কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি ::

কুলাউড়া উপজেলার দক্ষিণাঞ্চলের ৬টি ইউনিয়নের প্রাণকেন্দ্র রবিরবাজার। উপজেলার সর্ববৃহৎ বাজার। দেড়সহস্রাধিক দোকান ছাড়াও ব্যাংক, বীমা, বাসাবাড়ি মিলেয়ে অনেক উপজেলা সদর থেকেও বড় শহর। রাস্তা আর ড্রেনেজ ব্যবস্থাপনা না থাকায় ব্যবসায়ীসহ মানুষের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে।

আয়তন, অবস্থান, রাজস্ব আয় সব মিলিয়ে কুলাউড়া উপজেলা সদরের পরেই রবিরবাজারের অবস্থান। উপজেলার দক্ষিণাঞ্চল বলতে রাউৎগাঁও, পৃথিমপাশা, কর্মধা, টিলাগাঁও, হাজিপুর ও শরীফপুর এই ৫ ইউনিয়নের মিলনস্থল এই রবিরবাজার। এই বাজার হয়েই মানুষকে আসতে হয় উপজেরা সদরে। রোববার সাপ্তাহিক হাটবার হলেও রবিরবাজার প্রতিদিনই শহরের মত খোলা থাকে দোকানপাঠ ও ব্যাংক বীমা প্রতিষ্ঠান। গোটা সিলেট অঞ্চলের মধ্যে সর্ববৃহৎ রবিরবাজার মসজিদ। প্রতি শুক্রবারে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মানুষের যে সমাগম ঘটে। ফলে শুক্রবারে রবিরবাজারে রাস্তায় চলাচল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অসহনীয ভীড় লাগে।

ব্যবসায়ীরা জানান, রবিরবাজারে রয়েছে দেড় সহস্রাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। শুধু ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নয় ব্যাং বীমা এনজিও প্রতিষ্ঠান, স্কুল, কলেজ থাকার কারণে গড়ে উঠেছে বিশাল আবাসিক এলাকাও। বাজার থেকে সরকার প্রতিবছর ৬৫ লক্ষাধিক টাকা রাজস্ব পেয়ে থাকেন। কিন্তু রাজস্বের তুলনায় বাজারে উন্নয়ন হয় না।

ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারের প্রধান সমস্যা হলো ড্রেনেজ সমস্যা। ড্রেন না থাকায় বাজারের পানি সহজে নিষ্কাশন হয় না। ফলে বৃষ্টির সময় বাজারে যে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়, তা সহজে কমে না। জলাবদ্ধতার মধ্যে যানবাহন চলাচল করে রাস্তারও দু:সহ অবস্থা। এসব দুর্ভোগ যেন নিত্যদিনের। মানুষের হাটাচলাও দুষ্কর হয়ে পড়ে।

রবিরবাজারে একাধিক ডায়গনষ্টিক সেন্টার ও পৃথিমপাশা ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আসা রোগিদের কষ্টের যেন সীমা থাকে না। করোনা ভাইরাসের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ না থাকলে শিক্ষার্থীদের নবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হতো।

রবিরবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও পৃথিমপাশা ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান মাসুদ রানা আব্বাছ জানান, দুর্ভোগের কারণে ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। বাজারের ড্রেনেজ ব্যবস্থা আর রাস্তাটা ঠিক করা প্রয়োজন। রাজস্ব আয়ের ১৫ শতাংশ স্থানীয়ভাবে বাজারের উন্নয়নখাতে ব্যয় হওয়ার কথা থাকলেও সেটা করা সম্ভব হচ্ছে না। উপজেলা থেকে এই উন্নয়ন কাজ করানো হয়। ফলে বাজার প্রকৃত উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

পৃথিমপাশা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ জানান, রবিরবারের দুর্ভোগ চরমে। বাজারে হাটাচলাও মুশকিল। বর্তমান চেয়ারম্যান কিংবা বাজার কমিটি এই দুর্ভোগ লাঘবে কোন উত্যোগ নিচ্ছেন না। তিনি বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে কথা বলেছেন।

পৃথিমপাশা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নবাব আলী বাখর খান জানান, আমি চেষ্টা করেছি। প্রায় ৮লাখ টাকা ব্যয়ে ড্রেন সংস্কার করা হয়েছে। এছাড়া শেডঘর উন্নয়ন হয়েছে। গরু বাজারের শেড ঘরের জন্য প্রস্তাব করেছি। ক্রমে আরও উন্নয়ন হবে।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews