কুড়িগ্রামে জমি নিয়ে বিরোধ : মাছ ও গাছ নিধন কুড়িগ্রামে জমি নিয়ে বিরোধ : মাছ ও গাছ নিধন – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৩:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম হলে কঠোর ব্যবস্থা : ইউএনও, বড়লেখা কুলাউড়ায় পানীবন্দি মানুষদের মাঝে জামায়াতের উপহার! কুলাউড়ায় ৫ ইউনিয়নে বন্যার্তদের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান কুলাউড়ায় রেললাইনে পানি, ট্রেন চলাচলে নতুৃৃন নির্দেশনা বড়লেখায় আশ্রয়কেন্দ্রে ছুটছে দুর্গতরা, ত্রাণের জন্য হাহাকার বড়লেখায় ৭ হাজার গ্রাহকের সংযোগ বিচ্ছিন্ন, পানিবন্দী মানুষের চরম ভোগান্তি বড়লেখায় ঢলের পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু স্পেনে যুবলীগ কাতালোনিয়া শাখার উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনা মৌলভীবাজারে বন্যার পানিতে ডুবে ২ জনের মৃত্যু কুলাউড়ায় বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র পরিদর্শণ করলেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক

কুড়িগ্রামে জমি নিয়ে বিরোধ : মাছ ও গাছ নিধন

  • সোমবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২১

মো: বুলবুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম সদর ::

কুুড়িগ্রাম জেলার সদর উপজেলার ভোগডাঙ্গা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের (আবিরের ভিটা) আঃ হাকিম মিয়ার বাড়ির সামনে পুকুরে কীটনাশক (বিষ) দিয়ে প্রায় ৩লক্ষাধিক টাকার মাছ মেরে ফেলে ও ৪শতাধিক ইউক্যালিপটাস, জাম, আমগাছ ও শতাধিক সুপারির চারা ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার (২৪ জানুয়ারি) আনুমানিক রাত আড়াইটায় আঃ হাকিম মিয়ার বাড়ীর পাশে এ ঘটনা ঘটে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, আঃ হাকিম মিয়া এর সাথে একই গ্রামের আব্বাস ও লালচাঁদ এর সাথে দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে ৪/৫ বার শালিস বৈঠকের মাধ্যমে মীমাংসা করলেও মানতেছে না আব্বাস ও লালচাঁদের পক্ষের লোকজন।

ঘটনার দিন একই গ্রামের আব্বাস, লালচাঁদ ও তার সহযোগীরা রাতের আধারে আঃ হাকিম মিয়ার বাড়ীর সামনের পুকুরে কীটনাশক (বিষ) দিয়ে প্রায় ৩লক্ষাধিক টাকার মাছ মেরে ফেলে ও ৪শতাধিক ইউক্যালিপটাস, জাম, আমগাছ ও শতাধিক সুপারির চারা ভেঙ্গে ফেলার অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে আঃ হাকিম মিয়া জানান, আমার ক্রয় কৃত জমিতে পুকুর দিয়ে দীর্ঘদিন যাবত মাছ চাষ করতেছি ও গাছপালাসহ বিভিন্ন ফসল আবাদ করতেছি। পার্শ্ববর্তী আব্বাস ও লালচাঁদ গংরা শালিস বৈঠক অমান্য করে বারবার আমার বিভিন্ন ক্ষতি করে আচ্ছে।

একই গ্রামের মফিজুল (৪৭) ও জোবেদা (৪২) জানান, কয়দিন আগে হাইবুল, মনছের সহ কয় জন আসি কয় তোমার বাড়ি/ গাছ ফুকে উরে দিব। হামরা গরীব মানুষ বলে এর বিচার কি পাবো না ?

বিষয়টি নিয়ে উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ সাইদুল ইসলাম জানান, এর আগে কয়েক বার শালিসে বসলে আব্বাস ও লালচাঁদ গংরা শালিস বৈঠক অমান্য করে। তাই আঃ হাকিম গংদের আইনি ব্যবস্থার জন্য বলা হয়েছে।

এ বিষয় কুড়িগ্রাম সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খান মোঃ শাহরিয়ার জানান, থানায় অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews