কুলাউড়ায় টিলাকাটার অভিযোগে একই পরিবারের ৪ জনকে জরিমানা কুলাউড়ায় টিলাকাটার অভিযোগে একই পরিবারের ৪ জনকে জরিমানা – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০৪:০৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ভোরের কাগজের বিরুদ্ধে মামলা : বড়লেখায় প্রেসক্লাবের প্রতিবাদ সভা কুলাউড়ায় অগ্নিকান্ড জনিত দূর্যোগ মোকাবেলায় করণীয় বিষয়ক প্রশিক্ষণ সমাপ্ত রাজনগরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সাথে পুলিশের গাড়ির ধাক্কা এসআই’র মৃত্যু কুলাউড়ায় চা শ্রমিক সমাবেশে নাদেল – চা শ্রমিকদের সকল সুবিধা নিশ্চিত করবে সরকার বড়লেখায় কেক কেটে ইউএনও’র বর্ষপূর্তি পালন বড়লেখায় সাংবাদিক লাভলুর চাচা আরব আলীর কোলখানি বড়লেখায় ইউএনও’র এক বছর পূর্ণ হচ্ছে ২০ মে কুুড়িগ্রামে ডিবির অভিযানে হেরোইনসহ মাদক কারবারি গ্রেপ্তার ২০ মে চা-শ্রমিক দিবস : শতবর্ষেও স্বীকৃতি পায়নি শ্রমিকরা আত্রাইয়ে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ড কাপের ফাইনাল সম্পন্ন

কুলাউড়ায় টিলাকাটার অভিযোগে একই পরিবারের ৪ জনকে জরিমানা

  • সোমবার, ১২ এপ্রিল, ২০২১

প্রধান অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৩ জন খালাস-

এইবেলা, কুলাউড়া ::

কুলাউড়া উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নে টিলাকাটার ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততার অভিযোগে একই পরিবারের ৪ জনকে ২ লাখ ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদফতর। ১১ এপ্রিল রোববার পরিবেশ অধিদফতরের সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ে শুনানীতে অভিযুক্তদের এই জরিমানা করা হয়।

এছাড়া টিলা কাটার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন প্রধান অভিযুক্ত ভাটেরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ একেএম নজরুল ইসলাম ছাড়াও আব্দুছ শুকুর ও বেগুন বেগম নামক স্থানীয় দু’জন অভিযুক্ত।

যে ৪ জনকে জরিমানা করা হয়েছে তারা হলেন- ভাটেরা ইউনিয়নের ইসলামনগরের বাসিন্দা মৃত তৈয়ব আলীর ৪ পুত্র নুরই মিয়াকে ১ লাখ ৮৭ হাজার টাকা, মতিন মিয়াকে ১২ হাজার ৫শ টাকা, সিরন মিয়াকে ১২ হাজার ৫শ টাকা, নিজাম মিয়াকে ১২ হাজার ৫শ টাকা জরিমানা করা হয়।
পরিবেশ অধিদফতর মৌলভীবাজার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক বদরুল হুদা কুলাউড়া উপজেলার ভাটেরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ একেএম নজরুল ইসলামসহ ৭ জনকে টিলাকাটার সাথে জড়িত থাকার সত্যতা নিশ্চিত হওয়ায় ১১ এপ্রিল রোববার শুনানীতে অংশগ্রহণের নোটিশ দেন।

রোববার শুনানী পরিচালনা করেন পরিবেশ অধিদফতরের বিভাগীয় পরিচালক মোহাম্মদ এমরান হোসেন।

ইউপি চেয়ারম্যান কিভাবে অব্যাহতি পেলেন এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মৌলভীবাজার পরিবেশ অধিদফতরের সহকারি পরিচালক বদরুল হুদা কোন সুদুত্তর না দিয়ে বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে পরিবেশ অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক ভালো বলতে পারবেন।

এ ব্যাপারে ভাটেরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ একেএম নজরুল ইসলাম জানান, টিলা থেকে মাটি ধসে স্কুল ও মসজিদের দেয়ালে ধ্বসে পড়বে। তাই জনস্বার্থে ধ্বসে পড়া মাটিগুলো এলাকাবাসী সরিয়ে নেয়। মাটি বিক্রির অভিযোগ মিথ্যা। প্রতিপক্ষ নির্বাচনী ফায়দা লুটার জন্য আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, কুলাউড়া উপজেলার ভাটেরায় টিলার মাটি কেটে একটি সংঘবদ্ধ চক্র দীর্ঘদিন থেকে মাটি বিক্রি করছে। এই টিলা কাটা ও মাটি বিক্রির অভিযোগ এনে স্থানীয় ইউপি চেয়াম্যানসহ ৭ জনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেন পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়। এ নিয়ে স্থানীয় এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews