বড়লেখায় পরাজিত মেয়রপ্রার্থীর বিরুদ্ধে গুম হত্যা ও মিথ্যা মামলায় জড়ানোর অভিযোগ বড়লেখায় পরাজিত মেয়রপ্রার্থীর বিরুদ্ধে গুম হত্যা ও মিথ্যা মামলায় জড়ানোর অভিযোগ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বড়লেখার ১০ ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়ন চান ৫৩ জন কুমিল্লার ঘটনা সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রেরই অংশ : পরিবেশমন্ত্রী ড. আবেদ চৌধুরীর উদ্ভাবিত আমন ধান কাটা হলো নির্ধারিত সময়ের দেড় মাস আগে  বড়লেখায় সোয়া ৩ কোটি টাকার নদী খননে ব্যাপক লুটপাটের অভিযোগ কুলাউড়ায় ৩টি পূজামন্ডপ ভাঙচুরের ঘটনায় ৫ শতাধিক আসামী : ১০ গ্রামে গ্রেফতার আতঙ্ক কবি ও কথা সাহিত্যিক দিলারা রুমার দু’টি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন বড়লেখায় টিলা কাটায় ঘরে ফাটলে দুর্ঘটনার আশংকা কমলগঞ্জের লক্ষ্মীপুর সার্বজনীন পুজামন্ডপে সুবিধাবঞ্চিদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ  বিএনপি নেতার জামিনে আ’লীগ নেতাকর্মীদের আনন্দ মিছিল কুমিল্লার বিচ্ছিন্ন ঘটনায় দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি যেন বিনষ্ট না হয়- সুলতান মো.মনসুর এমপি

বড়লেখায় পরাজিত মেয়রপ্রার্থীর বিরুদ্ধে গুম হত্যা ও মিথ্যা মামলায় জড়ানোর অভিযোগ

  • শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১
  • ১৪৮ বার পড়া হয়েছে

প্রবাসীর সংবাদ সম্মেলন

বড়লেখা প্রতিনিধি ::

বড়লেখা পৌরসভা নির্বাচনের পরাজিত মেয়রপ্রার্থী সাইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে গুম, হত্যা ও মিথ্যা মামলায় জড়ানোর ভয়ভীতি প্রদর্শন ও মানসিক চাপ প্রদানের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন প্রবাসী সাবুল আহমদ। শুক্রবার বিকেলে সদর ইউপি হলরুমে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব অভিযোগ করেছেন। সাবুল আহমদ উপজেলার কেছরিগুল গ্রামের সাজ্জাদ আলীর ছেলে। অভিযুক্ত সাইদুল ইসলাম পৌরসভার গাজিটেকা আইলাপুরের মৃত আব্দুল খালিকের ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সাবুল আহমদ জানান, তিনি ২০০২ সাল থেকে মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী। মাতৃভূমি ও আত্মীয়-স্বজনের টানে প্রতিবছর দেশে আসেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে সময়মতো কর্মস্থলে যেতে পারেননি। প্রবাস থেকে দেশে আসার পর বিগত পৌরসভা নির্বাচনের পরাজিত মেয়রপ্রার্থী সাইদুল ইসলামের সঙ্গে পরিচয় হয়। সেই সুবাধে তিনি আমার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা ঋণ নেন। এরমধ্যে ৩ লাখ টাকা ফেরত দিলেও বাকি দেড় লাখ টাকা এখনও ফেরত দেননি। প্রবাস থেকে দেশে আসলে আমাকে নিয়ে বিভিন্নস্থানে ঘুরতে যেতেন। সাম্প্রতিক তার সম্পর্কে ভয়ংকর কিছু তথ্য জানতে পেরে দূরত্ব বজায় রেখে চলার চেষ্টা করি এবং পাওনা টাকা ফেরতের তাগিদ দিলেও ফেরত দেননি। সম্প্রতি তিনি আমাকে সিলেট নিয়ে যাওয়ার বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করলে আমার সন্দেহ হয়। পরে জানতে পারি তিনি সিলেট নিয়ে ফাঁসিয়ে পাওনা টাকা আত্মসাতের পরিকল্পনা করছেন। আমাকে সিলেট নিতে ব্যর্থ হয়ে তিনি হুমকি দিয়ে বলেন, ‘সিলেটে তোর বাসা থেকে ডিবি ২৮০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করেছে। এখন বাঁচবে কেমনে? অথচ সিলেটে আমার কোনো বাসা নেই। ঢাকায় এক লোক খুন হয়েছে, সিআইডির সঙ্গে যোগাযোগ হয়েছে। তুই সেই খুনের সঙ্গে জড়িত, তুই আমার কাছ থেকে দেড় কোটি টাকা ঋণ নিয়েছিস। আমার কথামতো না চললে তিনি তোকে মামলায় জড়িয়ে সারাজীবন জেলে ঢুকিয়ে রাখবো’, হত্যার ও গুম করারও হুমকি দেন। এ কারণে ২৫ মে ফেসবুকে লাইভে আমি ঘটনার আংশিক ব্যাখা দিয়ে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি (নং-১২২০) করেছি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সাবুল আহমদের বড়ভাই আবুল হোসেন আবু, ছোটভাই সাইফুল ইসলাম, আব্দুল কাদির, চাচাতো ভাই ফরহাদ হোসেন প্রমুখ।

থানার ওসি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, সাবুল আহমদের জিডির অভিযোগটি পুলিশ তদন্ত করে দেখছে।

সাইদুল ইসলাম হুমকির বিষয় সঠিক নয় দাবী করে জানান, সাবুল আহমদের নিকট তিনি ধারদেনা ও ব্যবসা সংক্রান্ত বিরাট অংকের টাকা পাবেন। এ পাওনা টাকা মেরে দিতে সে বিভিন্ন মিথ্যা নাটক করছে। এব্যাপারে তিনি আইনী পদক্ষেপ নিবেন।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews