ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কমলগঞ্জের ফার্ণিচার ব্যবসায়ী সুমনকে হত্যা করা হয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কমলগঞ্জের ফার্ণিচার ব্যবসায়ী সুমনকে হত্যা করা হয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১১:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ায় সামাজিক বনায়নের অর্ধশত গাছ কাটার অভিযোগ বড়লেখায় ৩শ’ টিলা ধ্বসে দু’সহস্রাধিক বসতবাড়ি বিধ্বস্ত বড়লেখা আদালত ভবন ধসে পড়ার শঙ্কায় : ঝুঁকি নিয়ে বিচারকার্য ঈদের আগে শতভাগ বোনাসসহ চাকরী জাতীয়করণের দাবীতে সংবাদ সম্মেলন ভূরুঙ্গামারীতে জমতে শুরু করেছে কোরবানির হাট কমলগঞ্জে এক রাতে ৪ দোকানে দুর্ধর্ষ চুরি বড়লেখা দুর্ঘটনায় আহত মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্চনার প্রতিবাদে কমলগঞ্জে শিক্ষক-কর্মচারীদের মানববন্ধন শিক্ষক হত্যা ও নির্যাতনের প্রতিবাদে মৌলভীবাজারে প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক সমাবেশ বড়লেখায় সাংবাদিকদের সাথে প্রশাসনের মতবিনিময়, বন্যার্তদের ত্রাণের কোন সংকট নেই

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কমলগঞ্জের ফার্ণিচার ব্যবসায়ী সুমনকে হত্যা করা হয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে

  • মঙ্গলবার, ৫ এপ্রিল, ২০২২

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি::

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পৌর এলাকার ৪নং ওয়ার্ড আলেপুর গ্রামের বাসিন্দা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে আতিকুর রহমান সুমন (২৮) নামে এক ফার্নিচার ব্যবসায়ীকে হত্যার ঘটনায় নবীনগর থানা পুলিশ জিঞ্জাসাবাদের জন্য ১ জনকে আটক করেছে। এদিকে ময়নাতদন্তকারীরা বলেছেন, নিহত সুমনের শরীরে কোন গুলির চিহু পাওয়া যাযনি। ধারলো কোন অস্ত্র দিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে। অপরদিকে সোমবার রাতেই সুমনের লাশ কমলগঞ্জ পৌর এলাকার আলেপুর গ্রামের বাড়ীতে দাফন করা হয়েছে।

জানা যায়, কমলগঞ্জ পৌর কাউন্সিলর শেখ জসিম উদ্দিন সাকিল ও নিহতের দুই ভাই সুমনের মূত্যুর ঘটনা জানতে পেয়ে ব্রাক্ষণবাড়ীয়ার নবীনগর থানায় মাধ্যমে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর হাসপাতালে সুমনের মরদেহের ময়না তদন্ত করানো হয়। ময়না তদন্ত শেষে সোমবার রাতে সুমনের লাশ নিজ বাড়ী আলেপুর গ্রামে নিয়ে আসা হলে তার মা রহিমা বেগম ও ভাই-বোন আতœীয় স্বজনের মধ্যে কান্নার রোল পড়ে যায়। তার মা ও বোনেরা বার বার মুর্ছা যেতে দেখা যায়। এ সময় মৃত্যের বাড়ী আশপাশে এলাকায় এক হৃদয় বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। নিহতের লাশ এক নজর দেখার জন্য মানুষজন হুমড়ি খেয়ে পড়ে। পরে সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় আলেপুর জামে মসজিদের সম্মুখে নামাজের জানাযা শেষে মরহুমের লাশ আলেপুর কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এদিকে কমলগঞ্জ পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ জসিম উদ্দিন সাকিল বলেন, ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকরা তাকে নিশ্চিত করেছেন নিহত সুমনের শরীরের কোথাও গুলির অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। তাকে ধারলো কোন অস্ত্রের আঘাতে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ময়না তদন্তকারী চিকিৎসক তাকে স্ব-শরীরে লাশ কাটা ঘরে নিয়ে গিয়ে কাটা-চেঁড়া লাশ দেখান।

অপরদিকে ঘটনার পর নবীনগর থানা পুলিশ এ ঘটনায় তার সাথে থাকা (কমলগঞ্জের আলেপুর গ্রামের) একই গ্রামের ফারুক মিয়ার ছেলে সোহেল মিয়াকে জিঞ্জাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

নবীনগর থানার ওসি (তদন্ত) নুরে আলমের সাথে মোবাইল ফোনে আলাপ করলে তিনি বলেন, সুমনকে গুলি করে নয়, ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, সুমনের সাথে থাকা একই এলাকার যুবক সোহেলের কথাবার্তায় সন্দেহ হওয়ার কারনে তাকে জিঞ্জাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। এখনো জিঞ্জাসাবাদ চলছে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার ভোর ৫টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের বাঘাউড়া গ্রামে ফানির্চার দোকানের মালিক সুমনকে হত্যা করার ঘটনা ঘটেছিল । #

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews