কমলগঞ্জ সাব রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগে কর্মবিরতি কমলগঞ্জ সাব রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগে কর্মবিরতি – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ায় দাবা প্রতিযোগিতা ১৮ আগস্ট একজন বৃন্দারাণী শিকড় আকড়ে আছেন! কমলগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলায় সাংবাদিক আব্দুল বাছিত গুরুতর আহত কমলগঞ্জে সাংবাদিক বাছিতের ওপর উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত : অবস্থা আশংকাজক, সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতার দাবী বড়লেখায় বন্যাদুর্গত ৫০ পরিবারকে কানাডাস্থ মৌলভীবাজার জেলা এসোসিয়েশনের অনুদান বিতরণ কমলগঞ্জ উপজেলার ২২টি বাগানে চা শ্রমিকদের লাগাতার কর্মবিরতি কুলাউড়ায় কলেজ শিক্ষিকাকে মারধর শিক্ষাথীদের ক্লাস বর্জন মজুরি নিয়ে চা শ্রমিকদের ক্ষোভ অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ও সড়ক অবরোধ  বড়লেখায় আব্দুল করিম সিআইপি’র অর্থায়নে দুস্থ রোগিদের ফ্রি চিকিৎসা ও ওষুধ প্রদান বিয়ানীবাজারে বৈরাগীবাজার পিবিএস কালচারাল একাডেমীর প্রবাসী সংবর্ধনা

কমলগঞ্জ সাব রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগে কর্মবিরতি

  • সোমবার, ১১ এপ্রিল, ২০২২

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি ::  মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার রহমত উল্লা লতিফের বিরুদ্ধে দলিল প্রতি ঘুষ বানিজ্য ও অসদাচরণ করাসহ বিভিন্ন অভিযোগে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ঘোষনা দিয়েছে কমলগঞ্জ দলিল লেখক সমিতি। সোমবার (১১ এপ্রিল) দুপুর থেকে কর্মবিরতি ঘোষণা করে দলিল লেখা বন্ধ রেখেছে উপজেলার দলিল লেখকরা। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে জমির ক্রেতা-বিক্রেতারা।

কমলগঞ্জ দলিল লেখক সমিতির সভাপতি, পৌর কাউন্সিলর মো. বখতিয়ার খাঁন সাংবাদিকদের জানান, দলিল রেজিস্ট্রি করাতে গেলে দলিল প্রতি অতিরিক্ত টাকা দাবি করে সাব রেজিস্ট্রার রহমত উল্লা লতিফ। এমনকি জাতীয় পরিচয়পত্র আরএস ফর্সার সাথে নামের একটা অক্ষর ভুল থাকলেও তাকে অতিরিক্ত টাকা দিতে হয়। নাহলে তিনি দলিল রেজিস্ট্রি করে না। প্রতিটি দলিল দাখিল করার আগে তার সাথে কন্টাক্ট করা লাগে না করলে দলিল হয়না।

এছাড়া তার ব্যবহারও সম্মানজনক নয়, দলিল দাতার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি দিলে তিনি গ্রহন করেন না। এসব বিষয়ে আমরা প্রতিবাদ করলে এজলাস থেকে আমার দিকে তেড়ে আসেন তখন অন্য দলিল লেখকরা এগিয়ে এলে তিনি হুমকি দিয়ে বলেন ভার্সিটির গন্ধ নাকি এখনো যায়নি। আমরা তাকে অপসারণ না করা পর্যন্ত কর্মবিরতি চালিয়ে যাব।
দলিল করতে আসা শমশেরনগর বাজারের মো. মনির হোসেন জানান, জাতীয় পরিচয়পত্রে আফরোজ আলী ও আরএস ফর্সায় আফরোজ মিয়া থাকায় প্রত্যায়নপত্র প্রদান করার পরও টাকা দাবী করেন সাব রেজিস্ট্রার।

তবে এ বিষয়ে উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার রহমত উল্লা বলেন তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উঠেছে তা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। দলিল লেখক সমিতির সভাপতিকে লাঞ্চিতের বিষয়ে তিনি তা সঠিক নয় বলে জানান।

তবে উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার সোহেল রানা বলছেন তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে তা সঠিক নয়।

মাদারীপুর এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মৌলভীবাজার জেলা রেজিস্ট্রার এস, এম, সোহেল রানা মিলন বলেন, বিষয়টি আমি এখনো জানি না। তবে এখানে অনিয়ম বা দুর্নীতি করার কোন সুযোগ নেই। যদি কেউ এই ধরনের কোন কাজ করে থাকে তাহলে আমাদের উর্ধতন কর্মকর্তাদের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেবো। জনগন যেন আর ভোগান্তির শিকার না হয় দ্রুত সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews