তাহিরপুরে প্রাণ ভিক্ষা চাওয়ার পরও মুয়াজ্জিনকে পিটিয়ে হত্যা তাহিরপুরে প্রাণ ভিক্ষা চাওয়ার পরও মুয়াজ্জিনকে পিটিয়ে হত্যা – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৩৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
প্রতিবন্ধি দিবস : শতাধিক প্রতিবন্ধি ব্যক্তি কর্মক্ষম হয়ে উঠার গল্প কুলাউড়ায় সরকারি রাস্তা জবরদখল করে সীমানা প্রাচীর নির্মাণের অভিযোগ কানাডায় ১১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেছে সরগরম মিউজিক একাডেমি কুলাউড়ায় মিছিরা খাতুন একাডেমি নামক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধন কুড়িগ্রামে ৩৩ কেজি গাঁজাসহ আটক-১  কমলগঞ্জে আল্ট্রা ট্রেইল ম্যারাথন অনুষ্ঠিত কমলগঞ্জের শমশেরনগরে মাংস ও মাছ বিক্রেতার দ্বন্ধ : ৩ ঘন্টা মাছ বিক্রি ছিলো বন্ধ কমলগঞ্জে প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের সাথে যুক্তরাজ্য প্রবাসীর মতবিনিময় সভা ‘সেদিন বেশি দূরে নয় যেদিন প্রশাসন পুলিশ আইন আদালত জনগনের পাশে আসবে’ বড়লেখায় ট্রাইবাল ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের কমিটি গঠন
বেকারি ভাড়া দেয়া হবে
মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলা সদরে সম্পূর্ন চালু অবস্থায় একটি বড় বেকারি (৬ হাজার স্কয়ার ফুট) ভাড়া দেয়া হবে। গ্যাস, বিদ্যুৎসংযোগ, ওভেন ও তান্দুরি আছে।
যোগাযোগ- ০১৮১৯৯৭৮৫৫৫

তাহিরপুরে প্রাণ ভিক্ষা চাওয়ার পরও মুয়াজ্জিনকে পিটিয়ে হত্যা

  • বৃহস্পতিবার, ২৫ আগস্ট, ২০২২

 

স্টাফ রিপোর্ট, সিলেট :: সিলেট পুত্রবধূকে রক্ষা করতে গিয়ে আব্দুল হাশিম (৭০) নামে মসজিদের এক মুয়াজ্জিনকে বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় নারী ও শিশুসহ নিহতের পরিবারের আরও তিন সদস্য আহত হয়েছেন। বুধবার রাত ১১টায় পুলিশ নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। নিহত আব্দুল হাশিম সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের উত্তর বড়দল ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী বড়গোপ টিলার মৃত আব্দুল জব্বারের ছেলে ও বড়গোপ উত্তরপাড়া জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন ছিলেন।

নিহতের পরিবার ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলার বড়গোপ টিলার মৃত ইউনুছ আলীর ছেলে জামির আলীর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মুয়াজ্জিন আব্দুল হাশিমের পরিবারের সদস্যদের মঙ্গলবার ঝগড়া হয়। এরই জের ধরে সালিশ উপেক্ষা করে জামির আলী তার জায়গার ওপর দিয়ে চলাফেরা ও মসজিদের টিউবওয়েল থেকে পানি না নিতে মুয়াজ্জিন পরিবারের সদস্যদের নিষেধ করেন। বুধবার বাদ আসর সাড়ে ৫টার দিকে মসজিদের টিউবওয়েল থেকে পানি নিতে এলে জামির আলী, স্ত্রী শহর বানু, ছেলে নজির মিয়া, মেয়ে শিরিনা, অপর মেয়ের জামাতা সোহেল মিয়াসহ তার পরিবারের সদস্যরা সংঘবদ্ধ হয়ে মুয়াজ্জিনের পুত্রবধূ জবেদা খাতুনকে বাঁশের লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর করতে থাকে। তার চিৎকার শুনে বসতঘর থেকে বের হয়ে পুত্রবধূকে রক্ষায় এগিয়ে এলে জামির আলীর ভগ্নিপতি পার্শ্ববর্তী কড়ইগড়ার রাশিদ মিয়া, তার ছেলে আল আমিন, রাশিদের চাচাতো ভাই এরকান মিয়া মুয়াজ্জিন আব্দুল হাশিমকে বাঁশের লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকে। একপর্যায়ে বর্বর কায়দায় মারধর থেকে রেহাই পেতে প্রাণ ভিক্ষা চান। হামলাকারীদের লাঠির আঘাতে মুয়াজ্জিন আব্দুল হাশিম ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এরপর তারা মুয়াজ্জিনের ছেলে মাসুক, তার স্ত্রী জবেদা এবং তাদের আট বছরের শিশুপুত্র সাকিতকে পিটিয়ে হাত ভেঙে দেয়।

তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদার জানান, এ বর্বর হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার করতে পুলিশের একাধিক টিম অভিযানে রয়েছে।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
সুরমা ব্রিকস্, ঢুলিপাড়া (মৈশাজুরী) কুলাউড়া, মৌলভীবাজার।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews