কমলগঞ্জে পতিত জমি চাষের আওতায় আসছে কমলগঞ্জে পতিত জমি চাষের আওতায় আসছে – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০২:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বড়লেখা জামেয়া দাখিল মাদ্রাসার নির্মাণাধীন ভবনের নিচ ভরাটে বালুর পরিবর্তে মাটি মৌলভীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত কাউকে বাদ দিয়ে নয় জোটের বিভাগীয় সমন্বয় কমিটি গঠন বড়লেখায় নবীন এগ্রো ফুডের ব্রাঞ্চ অফিস উদ্বোধন ও বর্ষপূর্তিতে দোয়া ওয়ার্কার্স পার্টির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশ সফল করার আহবান কমরেড মেননের আত্রাইয়ে শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাবের ১৩টি ল্যাপটপ চুরি কমলগঞ্জে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে বিদ্যা দেবীর আরাধনা নিয়োগ বাণিজ্য কমলগঞ্জে শিক্ষক নিয়োগের ফলাফর ৩ মাসেও প্রকাশ হয়নি কুলাউড়া প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলের কম্বল বিতরণ করেন প্রটোকল অফিসার রাজু ভাতিজির বাল্য বিবাহে বাঁধা দেওয়ায় কাল হলো চাচার পরিবারের 

কমলগঞ্জে পতিত জমি চাষের আওতায় আসছে

  • সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২২

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় রবিশস্য ও বোরো মৌসুমে প্রতি বছরই চাষের আওতায় আসছে পতিত জমি। ফসল উৎপাদন বাড়ানোর জন্য কৃষকেরা একই সাথে এক ফসলি জমিকে দ্বিফসলি, তিন ফসলি জমিতে রূপান্তর করছেন। এ ছাড়া যেসব জমি বা জলাশয় কখনও চাষ করা হয়নি এসব জমিতে শুষ্ক মৌসুমে ফসল উৎপাদন করা হচ্ছে।

উপজেলার কৃষকেরা জানান, ফসল উৎপাদন বাড়ানোর জন্য পতিত জমিতে বিভিন্ন সবজি চাষ করছেন। বিশেষ করে রবিশস্য ও বোরো ধান চাষ হচ্ছে। পর্যাপ্ত সেচের ব্যবস্থা ও সরকারি প্রণোদান প্রদান করলে আরও পতিত জমি চাষের আওতায় আনা সম্ভব। এ ছাড়া এক ফসলি জমিতে তিন ফসিলি জমি রূপান্তর করে সবজি ও বিভিন্ন জাতের ধান চাষ করছেন বলে তাঁরা জানান।

উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, গত ২০১৭-১৮ মৌসুমে উপজেলায় বোরোধান চাষ করা হয়েছে ৩ হাজার ৯৪০ হেক্টর, সরিষা ৮৫ হেক্টর, সবজি ১ হাজার ৩২০ হেক্টর ও আলু ৪৯০ হেক্টর। যা ৫ বছরের ব্যবধানে ২০২১-২২ মৌসুমে ৫৭০ হেক্টর বেড়ে বোরোধান ৪ হাজার ৫১০ হেক্টর চাষ করা হয়। একই সাথে সরিষা ৩০ হেক্টর বেড়ে ১১৫ হেক্টর, সবজি ২৬০ হেক্টর বেড়ে ১৫৮০ হেক্টর এবং আলু ৩৫ হেক্টর বেড়ে ৫২৫ হেক্টর জমিতে চাষ করা হচ্ছে। সেচের ব্যবস্থা বাড়ানো গেলে এ উপজেলায় পতিত জমিতে বোরোধানসহ অন্যান্য সবজি চাষ আরও বাড়বে বলে জানা যায়। পতিত জমি চাষাবাদের আওতায় আনার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে প্রতি বছর সেচের ব্যবস্থা বাড়ানো হচ্ছে।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে দেখা যায়, গত কয়েকবছর ধরে কৃষকেরা সবজি ও বোরোধানের প্রতি ঝুঁকেছেন। তাঁরা বিভিন্ন পতিত জমিতে সরিষা, আলু, শাকসবজি চাষ করছেন। এ ছাড়া বোরোধানের বীজতলার জন্য পতিত জলাশয় প্রস্তুুত করছেন। কৃষিতে খরচ বাড়লেও সারা বছর সবজিতে ভাল দাম পাওয়া যায়। এ জন্য পতিত জমিসহ সব জমিতে চাষ বেড়েছে।

উপজেলার কৃষক শামসুল মিয়া বলেন, আমি গত তিন বছর ধরে আমরা ১ একর জলাশয়ে বর্ষা মৌসুমে মাছের সাথে ধান আর শুষ্ক মৌসুমে সবজি চাষ করছি। অথচ এ জমিগুলো কয়েকবছর আগেও পতিত ছিল। একই উপজেলার কৃষক জহুর মিয়া বলেন, আমি আগে আমার জমিতে শুধু আমন ধান চাষ করতাম। আমন চাষ করে আমার পরিবারের খাদ্যের চাহিদায় ঘাটতি থাকতো। পরে একই জমিতে গত তিন বছর ধরে আউশ, আমন ও বোরোধান চাষ করছি। এখন পরিবারের খাদ্যের চাহিদা পূরণ হয়ে বাজারে ধান বিক্রি করি।

কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জনি খান বলেন, গত কয়েকবছর ধরে এ উপজেলায় অনেক পতিত জমি চাষের আওতায় এসেছে। পর্যাপ্ত সেচ থাকলে আরও পতিত জমি চাষের আওতায় আসবে। কৃষকেরা পতিত জমিতে সরিষাসহ বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করছেন। বর্তমান সময়ে কৃষকেরা অতি সহজে এক ফসলি জমিতে দ্বিফসলি, তিন ফসলি ফসল উৎপাদন করছেন। কৃষকদেরকে সেচ ও প্রণোদনার ব্যবস্থা করলে আরও পতিত জমি চাষের আওতায় আনা সম্ভব বলে মনে করেন।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews