কাজে আসছে না ১৯ কোটি ব্যয়ে নির্মিত আত্রাইয়ের ‘রাবার ড্যাম’ কাজে আসছে না ১৯ কোটি ব্যয়ে নির্মিত আত্রাইয়ের ‘রাবার ড্যাম’ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৮:২৮ পূর্বাহ্ন

কাজে আসছে না ১৯ কোটি ব্যয়ে নির্মিত আত্রাইয়ের ‘রাবার ড্যাম’

  • বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ, ২০২৩

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি :: শষ্য ভান্ডার খ্যাত উত্তর জনপদের জেলা নওগাঁ। কৃষি নির্ভর এ জেলার আত্রাই উপজেলার শুটকিগাছা নামক স্থানে ১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত রাবার ড্যাম অকেজো হয়ে পড়ে রয়েছে প্রায় দুই বছর ধরে।

কৃষি ভান্ডার খ্যাত উপজেলায় কৃষকের কথা চিন্তা করে পানি ধরে রাখাতে সেচ সুবিধার জন্য ২০১৭ সালে প্রায় সাড়ে ১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে আত্রাই নদীর উপরে শুটকিগাছা নামক স্থানে নির্মাণ করা হয় ১৩৫ মিটার দীর্ঘ এই রাবার ড্রাম। তবে নির্মাণ হওয়ার কয়েক বছর চলার পর প্রায় দুই বছর ধরে রাবার ড্রাম নষ্ট হয়ে পরে থাকায় সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলার কয়েক হাজার হাজার কৃষক।

সুবিধাভোগী কৃষক বেলাল হোসেন বলেন, অনেক দিন থেকে এ রাবারড্যাম নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। বর্তমানে আমাদের এ অঞ্চলের কৃষকদের বোরো ধানে সেচের জন্য নদীর পানি ধরে রাখা বিশেষ প্রয়োজন। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় আমরা ফসল উৎপাদনে নদীর পানির উপরই নির্ভশীল হয়ে থাকি।

আরেক কৃষক হারুনুর রশিদ বলেন, জ¦ালানী তেলে মূল্য বৃদ্ধির কারনে শ্যালো মেশিন দিয়ে পানি সেচে ফসল উৎপাদানে অনেক খরচ। তাই রাবারড্যাম চালু থাকলে অনেক কম খরচে নদী থেকে পানি সেচ দিয়ে ফসল উৎপাদন করতে পারতাম। রাবার ড্যাম অকেজো হয়ে থাকায় আমরা কিভাবে কৃষিপণ্য উৎপাদন করব তা এখন আমাদের চিন্তার বিষয়।

স্থানীয়রা বলেছেন, প্রায় দুই বছর ধরে রাবার ড্যাম নষ্ট হয়ে পড়ে রয়েছে। অথচ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এদিকে কোন নজর নেই। সরকারের বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয়ে কৃষকদের উপকারের জন্য যে রাবার ড্যাম তৈরি করা হয়েছে। তা এখন মুখ থুবড়ে পড়ে রয়েছে।

শুটকিগাছা-রসুলপুর রাবার ড্রাম পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোসলেম আলী বলেন, এই রাবার ড্রাম প্রায় দুই বছর আগে রাবার ছিদ্র হয়ে গেছে যার কারণে আমরা পানি ধরে রাখতে পারিছিনা, তরে আমরা রাবার ড্রামের সমস্যা সমাধানের জন্য নওগাঁতে আবেদন করেছি। এই রাবার ড্রামের সমস্যার কারণে কৃষকদের বোরোসহ বিভিন্ন ফসলের আবাদ করতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। আশা করছি খুব তারাতারি এই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কে.এম কাউছার হোসেন বলছেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে উপজেলার ওই এলাকার সেচ সুবিধার আওতায় আসবে প্রায় ১০৬৫ হেক্টর আবাদি জমি এবং উপকৃত হবে প্রায় ৪৩৯৩ জন কৃষক।

উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মো. জোনায়েত আলম বলেন, বেশ কিছুদিন পূর্বে রাবার ছিদ্র হয়ে যাওয়ায় ড্যামটি ফুলানো সম্ভব হচ্ছে না। তাই পানি ধরে রাখা যাচ্ছে না। এ মেরামতের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে। আশা করা যায় অল্প দিনের মধ্যে রাবার ড্যামের সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।

এলাকাবাসীর দাবি দ্রুতই মেরামতের কাজ শেষ করে রাবার ড্যামটি সচল করার।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews