জুড়ীতে গর্ভবতি হাতি দিয়ে টানানো হচ্ছে বিশাল গাছের গুঁড়ি, নিষ্টুর, অমানবিক! জুড়ীতে গর্ভবতি হাতি দিয়ে টানানো হচ্ছে বিশাল গাছের গুঁড়ি, নিষ্টুর, অমানবিক! – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সানি খানের নিপূণ হাতে চিত্রগ্রহণ হচ্ছে ব্যাড গার্লস সিরিজ ‘আমি কষ্টকর ও অগোছালো জীবন চাইনা – প্রভা উপজেলা নির্বাচন, কমলগঞ্জে ভোট গ্রহণ কাল, বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেও নির্বাচনের প্রস্তুুতি নদী ভাঙ্গনে বন্যা কবলিত কমলগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা, ১০টি স্থান ঝুঁকিপূর্ণ দুদকে জি-সিরিজের বিরুদ্ধে অভিযোগ শিরোনামহীন ব্যান্ডের ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকীত দিল স্পেন ও নরওয়ে ভারি বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ী ঢলে প্লাবিত কুলাউড়ার বিভিন্ন এলাকা ব্যাড বয় হয়ে পর্দায় আসছেন সীমান্ত রেমালের তান্ডব : ১০ জনের মৃতু, ৩৫ হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত, বিদ্যুৎহীন ২ কোটি ৩৫ লাখ গ্রাহক সাধারণ সম্পাদকের দায়ীত্ব ফিরে পেলেন ডিপজল

জুড়ীতে গর্ভবতি হাতি দিয়ে টানানো হচ্ছে বিশাল গাছের গুঁড়ি, নিষ্টুর, অমানবিক!

  • রবিবার, ২ এপ্রিল, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক ::

মৌলভীবাজারের জুড়ীর দুর্গম পাহাড়ি বনাঞ্চল থেকে গর্ভবতি হাতি দিয়ে বিশাল গাছ টেনে সমতলে নিয়ে আসা হচ্ছে। গত বৃহস্পতিবার উপজেলার গোয়ালবাড়ি ইউনিয়নের কচুরগুলের কুচাইথল পাহাড়ে সরেজমিনে এমন অমানবিক দৃশ্য দেখা যায়। পাশাপাশি এই হাতিটি গর্ভবতি ছিল উল্লেখ করে বোবা প্রাণির প্রতি এমন নির্দয় আচরণের চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয়রা ।

এদিকে বন্যপ্রাণি সংরক্ষণ আইন-২০১২ অনুযায়ি কোন প্রাণি দিয়ে ভারি, অমানবিক ও নিষ্টুর কাজ করানো দন্ডনীয় অপরাধ।

সরেজমিনে গেলে হাতির মাহুত দুদু মিয়া জানান, কুচাইথল পান পুঞ্জির উচে খাসিয়া কামরুল ইসলাম নামে জুড়ীর জনৈক কাঠ ব্যবসায়ির নিকট তার দখলিয় পাহাড়ের ২৫টি বনজ গাছ বিক্রি করেন। ওই কাঠ ব্যবসায়ি গাছগুলো কেটে সমতলে নিয়ে আসার জন্য দৈনিক পাঁচ হাজার টাকা (মাহুতসহ) মজুরিতে হাতিটি ভাড়া করেছেন। মাহুতের দাবি গাছ কাটার সরকারি অনুমতি থাকায় তারা শুধু গাছগুলো টেনে সমতলে পৌঁছে দেওয়ার চুক্তিতে গত বুধবার থেকে হাতিটি দিয়ে কাজ করছেন। সবগুলো সমতলে পৌঁছাতে আরো কয়েক দিন লেগে যাবে। তবে হাতিটি গর্ভবতি এবং এর মালিক জুড়ী উপজেলার একজন জনপ্রতিনিধি বলে উপস্থিত একাধিক ব্যক্তি এই প্রতিবেদককে নিশ্চিত করে অর্থ উপার্জনে নিরীহ প্রাণিটির উপর এমন নির্দয় আচরণের তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

বন্যপ্রাণি ব্যবস্থাপনা ও সংরক্ষণ বিভাগের এসিএফ (শ্রীমঙ্গল) শ্যামল কুমার মিত্র জানান, এক সময় পোষা হাতি দিয়ে গাছ টানানোয় কোন বিধি নিষেধ ছিল না। কিন্তু বন্যপ্রাণি সংরক্ষণ আইন-২০১২ অনুযায়ি কোন প্রাণি দিয়ে নিষ্টুর কোন কাজ করানো অমানবিক, আইন বর্হিভুত ও দন্ডনীয় অপরাধ। হাতিটি যদি গর্ভবতি হয়ে থাকে তবে এখানে দুটো অপরাধ সংগঠিত হয়েছে। খোঁজ নিয়ে এব্যাপারে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews