ওসমানীনগরে শিক্ষার্থীর হাত ভাঙ্গলেন শিক্ষক! ওসমানীনগরে শিক্ষার্থীর হাত ভাঙ্গলেন শিক্ষক! – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১০:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ার জয়চন্ডীতে পঞ্চায়েত প্রধানের উপর হামলা: ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী প্রধানমন্ত্রী চান না খাদ্যাভাবে কোনে মানুষ মারা যাক : প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী এমপি বড়লেখায় এলজিইডি’র নারী কর্মীদের সঞ্চয়ের সোয়া কোটি টাকার চেক বিতরণ বড়লেখার বোবারথলের রাস্তা ও কালভার্ট বিধ্বস্ত-চরম দুর্ভোগ কুলাউড়ার পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু  কুলাউড়ায় পথে পথে গরুর হাট : বাজারবিমুখ ক্রেতারা কুলাউড়ার বরমচালে শিশুর মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে হামলা ও ঘরবাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ বড়লেখা থানা পুলিশের অভিযানে ৫ চোরাই গরু উদ্ধার, গ্রেফতর ২ কমলগঞ্জে মাগুরছড়া ট্র্যাজেডি দিবস পালিত ১৪ হাজার কোটি টাকার ক্ষতিপূরণ দাবি ১৪ জুন কমলগঞ্জের মাগুরছড়া বিস্ফোরণের ২৭ বছর

ওসমানীনগরে শিক্ষার্থীর হাত ভাঙ্গলেন শিক্ষক!

  • শুক্রবার, ৯ জুন, ২০২৩
মো. রাহিম

ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি :: সিলেটের ওসমানীনগরে মো. রাহিম (১১) নামের এক  মাদরাসা শিক্ষার্থীকে পিঠিয়ে হাতের হাড় ভেঙে দিয়েছেন শিক্ষক। এঘটনায়  দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বুধবার আহত শিক্ষার্থীর পিতা উপজেলার উমরপুর ইউনিয়নের খাদিমপুর গ্রামের আবদুল জলিল বাদী হয়ে ওসমানীনগর থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় অভিযুক্তরা হলেন- উপজেলার গোয়ালাবাজার করনসী রোডের ইমদাদিয়া হিফজুল কুরআন সেন্টারের শিক্ষক আসাউজ্জামান আসাদ (৪০) ও সাব্বির আহমদ (১৬)।

জানা গেছে, শিশু রাহিম গত তিন বছর ধরে ইমাদাদিয়া হিফজুল কুরআন সেন্টারে পড়ালেখা করে আসছে। গত ২৮ মে সে পড়া না পারায় কাঠের লাঠি দিয়ে তাকে পেটানো শুরু করেন শিক্ষক আসাউজ্জামান আসাদ ও সাব্বির। এতে শিশু রাহিমের শরীরের বিভিন্ন স্থান ও মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে মাটিতে পরে গেলে শিক্ষক আসাদ তার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে রহিমের বাম হাতের কনুইয়ের ওপর আঘাত করলে হাড় ভেঙে যায়।

খবর পেয়ে রাহিমের পিতা আব্দুল জলিল তার ছেলেকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করিয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার বাদী আবদুল জলিল বলেন, পড়া না পারায় আমার ছেলের ওপর শাসনের নামে অমানবিক নির্যাতন করা হয়েছে। তার বাম হাতের কনুইয়ের উপর হাড় ভেঙে গেছে এবং শরীরসহ মাথায় শক্ত আঘাত রয়েছে। ছেলেকে হাফিজি পড়ানোর জন্য মাদ্রাসায় মাসিক সাড়ে তিন হাজার টাকা হারে ফি দিয়ে আসছেন বলে জানান তিনি।

অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক আসাউজ্জামান আসাদ বলেন, পড়া না পারায় শাসন করতে দুই-একটা মেরেছি।

ওসমানীনগর থানার ওসি মাছুদুল আমিন বলেন, আহত শিক্ষার্থীর পিতার অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামিদের ধরতে পুলিশি অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews