আদম্য মেধাবী : কমলগঞ্জে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী তুর্যের সাফল্য আদম্য মেধাবী : কমলগঞ্জে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী তুর্যের সাফল্য – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ায় লক্ষাধিক মানুষ পানি বন্দি, বাড়ছে পানি, বাড়ছে দুর্ভোগ! দুর্যোগ মোকাবেলায় বিশ্বে বাংলাদেশ রোলমডেল : দুর্যোগ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী হাকালুকি হাওরপারে বন্যার অবণতি-বড়লেখায় ২৫২ গ্রাম প্লাবিত, আশ্রয় কেন্দ্রে ২২০ পরিবার, লাখো মানুষ পানিবন্দি মৌলভীবাজারে বন্যা কবলিত ৪৩২ গ্রাম, পানিবন্দি প্রায় ২ লাখ মানুষ সবার সমন্বয়ে বন্যা মোকাবেলা করতে হবে: প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী বড়লেখায় ৫ হাজার মানুষ পানিবন্দী, আশ্রয় কেন্দ্রে আসা শুরু দুর্গতদের ফের সিলেটের পর্যটন কেন্দ্রগুলো বন্ধ ঘোষণা যৌতুকের দাবীতে বড়লেখায় ফ্রান্স প্রবাসীর স্ত্রীকে বাড়ি থেকে বের করে দিল শ্বশুর-ভাসুর আবারও সিলেট নগর পানির নিচে, ঈদ পালনে ভোগান্তি কুলাউড়ার জয়চন্ডীতে পঞ্চায়েত প্রধানের উপর হামলা: ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী

আদম্য মেধাবী : কমলগঞ্জে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী তুর্যের সাফল্য

  • বৃহস্পতিবার, ১৬ মে, ২০২৪

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পরানধর গ্রামের বুদ্ধি প্রতিবন্ধী অম্লান দাস তুর্য এবারের এসএসসি পরীক্ষায় ৩.৭৪ পেয়ে পাশ করে সবাইকে অবাক করে দিয়েছে। সে মুন্সীবাজার কালীপ্রসাদ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে পড়াশুনা করে অদম্য সাহস আর ইচ্ছা শক্তির জোরে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিল।

জন্মগতভাবে অম্লান দাস তুর্য কম স্মৃতি শক্তি সম্পন্ন হওয়ায় তার পড়াশুনা নিয়ে বাবা-মায়ের চিন্তার শেষ ছিল না। অবশেষে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে ভালো ফলাফল করায় তার বাবা-মা ও স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে। সে পরানধর গ্রামের বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা আশা বালাগঞ্জ শাখা ব্যবস্থাপক ফনীভুষন দাস ও মা সরিষকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শম্পা রায়ের ছেলে।

কালীপ্রসাদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সত্যেন্দ্র কুমার পাল জানান, অম্লান দাস তুর্য তার স্কুলের ছাত্র। তার মধ্যে কোনো বোধশক্তি ও স্মৃতি শক্তি নেই বললেই চলে। তিনি ও অন্য শিক্ষকরা অত্যন্ত যত্ন সহকারে তাকে কিছু শেখানোর চেষ্টা করতেন। অম্লান দাস তুর্য বুদ্ধি প্রতিবন্ধী নিশ্চিত হওয়ার পর সমাজসেবা অধিদপ্তর থেকে একটি প্রতিবন্ধী সনদ সংগ্রহ করে শিক্ষাবোর্ড থেকে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীর কোটায় তাকে এবারের এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করিয়েছেন। প্রধান শিক্ষক আশরাফ হায়দার আরো জানান, যে কোন প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত নিয়ে আসতে পারলে তাকে দিয়ে এসএসসি পরীক্ষা দেওয়ানো কঠিন কোনো কাজ নয়। শিক্ষাবোর্ড প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীর পরীক্ষা গ্রহণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

এসএসসি পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের ব্যাপারে অম্লান দাস তুর্য জানায়, এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়ে পাস করেছি। খুবই ভালো লাগছে।

অম্লান দাস তুর্য এর বাবা ফনীভুষন দাস (বাবলু) বলেন, জন্ম থেকে আমার সন্তান বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হলেও পড়াশুনার প্রতি প্রবল আগ্রহ ছিল। আমাদের পরিবার ও বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দের আন্তরিক প্রচেষ্টায় সে ভাল ফলাফল লাভ করে। সে নিয়মিত প্রতিবন্ধী ভাতা পেয়ে আসছে। ছেলের ভবিষ্যতে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের জন্য সকলের দোয়া ও আশীর্ব্বাদ কামনা করেন তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews