কুলাউড়ায় পথচারিদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে পুলিশের প্রশংসনীয় উদ্যোগ কুলাউড়ায় পথচারিদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে পুলিশের প্রশংসনীয় উদ্যোগ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কমলগঞ্জে মসজিদের কমিটি নিয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত-৩ কমলগঞ্জে ব্যবসায়ী নেতার বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ বড়লেখায় পুষ্টি বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে ইমামদের প্রশিক্ষণ কুলাউড়ায় এক ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন : মামলার বাদীসহ স্বাক্ষীদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল  বড়লেখা চৌকি আদালত লিগ্যাল এইড বিশেষ কমিটির মাসিক সভা কমলগঞ্জে প্রেম সংক্রান্ত জেরে বন্ধুর ছুরিকাঘাতে বন্ধু আহত কমলগঞ্জে আড়াই মাস পর শিশুধর্ষণ চেষ্টাকারী পুলিশের হাতে আটক মৌলভীবাজারে সাংবাদিকদের প্রধানমন্ত্রীর চেক বিতরণ তালিকায় অনিয়ম মুরগি-ডিমের টাকাও আত্মসাৎ করল এহসান গ্রুপ! বড়লেখা চৌকি আদালত লিগ্যাল এইড বিশেষ কমিটির সভা

কুলাউড়ায় পথচারিদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে পুলিশের প্রশংসনীয় উদ্যোগ

  • রবিবার, ২৬ জুলাই, ২০২০
  • ১৮১ বার পড়া হয়েছে

এইবেলা, কুলাউড়া ::

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মাস্ক পরার গুরুত্ব ও আইনগত কঠোরতার কথা উল্লেখ করে কুলাউড়া থানা পুলিশ ২৬ জুলাই রোববার দিনব্যাপী থানা এলাকায় ফ্রি মাস্ক বিতরণ করে। পথচারি সাধারণ মানুষ মাস্ক পরে পরবর্তীতে রাস্তায় নামার প্রতিজ্ঞাও করেন। বিষয়টি সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলে।

কুলাউড়া থানার সম্মুখে ইন্সপেক্টর (তদন্ত) সঞ্জয় চক্রবর্তীর নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল সকাল থেকে কুলাউড়া শহরে মাস্ক ছাড়া চলাচলকারী পথচারিদের মাস্ক না পরা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ এবং করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মাস্ক পরার জন্য হ্যান্ড মাইকে প্রচার করা হয়। এসময় মাস্ক ছাড়া পথচারিদের একটি ফি মাস্ক দেয়া হয়। মুখে মাস্ক লাগিয়ে আগামীতে রাস্তায় বের না হওয়ার ব্যাপারে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন পথচারিরা। শুধু পথচারি নয় ব্যবসায়ী, রিক্সাচালকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ আন্তরিকতার সাথে মাস্ক গ্রহণ করে এবং পরবর্তীতে মাস্ক পরে রাস্তায় বের হওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়।

এদিকে কুলাউড়া উপজেলা প্রশাসন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মাস্ক ছাড়া রাস্তায় বের হওয়া মানুষকে প্রতিদিন জরিমানা করছেন। এমনি মুহুর্তে পুলিশের ফ্রি মাস্ক বিতরণ ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে মাইকিং করায় মানুষও উৎসাহিত।

কুলাউড়া থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) সঞ্জয় চক্রবর্তী জানান, এসপি স্যারের নির্দেশে আমরা দেখলাম মানুষ বিষয়টা কিভাবে গ্রহণ করে। মানুষ স্বত:স্ফুর্তভাবে মাস্ক পরার ব্যাপারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। কোন সংগঠন যদি করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মাস্কের গুরুত্বের বিষয়টি মানুষকে বুঝায়, তাহলে মানুষ আরও সচেতন হবে। এব্যাপারে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে এগিয়ে আসতে হবে। আর মানুষ সচেতন হলে করোনাভাইরাস মোকাবেলা করা আরও সহজ হবে।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews