আরডিআরএস বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মসূচির প্রধান হিসেবে যোগদান করলেন কুলাউড়ার সামাদ আরডিআরএস বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মসূচির প্রধান হিসেবে যোগদান করলেন কুলাউড়ার সামাদ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১১ অপরাহ্ন

আরডিআরএস বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মসূচির প্রধান হিসেবে যোগদান করলেন কুলাউড়ার সামাদ

  • বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১
  • ৩৭৭ বার পড়া হয়েছে

আবদুল আহাদ ::

দেশের শীর্ষ বেসরকারি সংস্থা আরডিআরএস বাংলাদেশের উন্নয়ন কর্মসূচি প্রধান হিসেবে যোগদান করেছেন কুলাউড়ার কৃতি সন্তান মুহাম্মদ আব্দুস সামাদ। তিনি পহেলা আগস্ট থেকে এই দায়িত্বভার গ্রহন করেন। সামাদ সংস্থাটির হয়ে দেশের সবকটি বিভাগে বাস্তবায়নাধীন উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর মাধ্যমে জনসাধারণের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করবেন।

জানা যায়, আরডিআরএস দেশের ২৯টি জেলায় প্রায় ৩৪ লক্ষ মানুষকে প্রতিবছর তাদের সেবা কার্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করে থাকে। খাদ্য নিরাপত্তা, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে সৃষ্ট সমস্যা প্রতিরোধ, অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন, ইমার্জেন্সি রেসপন্স, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন, সক্ষমতা বৃদ্ধি ইত্যাদি ক্ষেত্রে দেশব্যাপী সংস্থাটির কর্মসূচি রয়েছে। সংস্থাটির ৫০০০ স্টাফ ও ভলান্টিয়ার মানুষের দোরগোড়ায় সেবাগুলো পৌঁছে দিতে নিরলসভাবে কাজ করছে।

আরডিআরএস বাংলাদেশে কাজ শুরু করে ১৯৭২ সালে এবং দাতাদের সহায়তায় ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত সংস্থাটি এদেশে একটি আন্তর্জাতিক সংস্থা হিসেবে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যায়। পরবর্তীতে সংস্থাটি বাংলাদেশের এনজিও বিষয়ক ব্যূরোতে নিবন্ধিত হয়ে একটি দেশীয় উন্নয়ন সংস্থা হিসেবে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজ করছে।

মুহাম্মদ সামাদ একজন প্রথিতযশা উন্নয়ন ও মানবিক সহায়তা কর্মী। দেশ ও বিদেশে নানা সংস্থায় তিনি সুনামের সাথে কাজ করেছেন। আরডিআরএসে যোগদান করার আগে তিনি ইন্টারন্যাশনাল রেসকিউ কমিটির বাংলাদেশ মিশনের শীর্ষপদে কাজ করেছেন। তার আগে তিনি মুসলিম এইড ইউকে, ব্র‍্যাক ইন্টারন্যাশনালের হয়ে পশ্চিম আফ্রিকার লাইবেরিয়া, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা রুম টু রিডসহ কয়েকটি সংস্থায় নেতৃস্থানীয় পদে ভূমিকা রেখেছেন।

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার ৪ নং জয়চন্ডী ইউনিয়নের রংগীরকুল এলাকার বাসিন্দা এই কৃতি সন্তান সমসাময়িক বিষয় নিয়ে পত্রপত্রিকায় নিয়মিত কলাম লেখেন। তিনি একজন সুসাহিত্যিক। তার রচিত ভ্রমনকাহিনী “আবাদির চোখে আফ্রিকা ” এবং ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট উপজীব্য করে লেখা উপন্যাস “দুন্দুবুড়ি” পাঠকমহলে খুবই সমাদ্রিত হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews