কমলগঞ্জে স্বেচ্ছাশ্রমে শ্মশান ভূমি পরিস্কার পরিচ্ছন্ন কমলগঞ্জে স্বেচ্ছাশ্রমে শ্মশান ভূমি পরিস্কার পরিচ্ছন্ন – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০২:৫৪ অপরাহ্ন

কমলগঞ্জে স্বেচ্ছাশ্রমে শ্মশান ভূমি পরিস্কার পরিচ্ছন্ন

  • শুক্রবার, ৬ আগস্ট, ২০২১
  • ৮৩ বার পড়া হয়েছে

যাতায়াতের রাস্তা নির্মাণের দাবী এলাকাবাসীর
কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি ::

স্বেচ্ছাশ্রমে শ্মশান ভূমি পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা কাজ করেন মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী মাধবপুর ইউনিয়নের গকুলসিংহের গাঁওয়ের গ্রামবাসীরা। শুক্রবার (৬ আগষ্ট) সকাল ১০ টা থেকে গকুলসিংহের গাঁওয়ের গ্রামের শ্মশান ঘাট উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা কমিটির আহব্বানে গ্রামের সকল যুবক ও বয়স্করাও অংশগ্রহণ করেন। এলাকাবাসী শ্মশান ভূমিতে যাতায়াতের রাস্তা নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশুদৃষ্টি কামনা করছেন।
ভানুগাছ-পাত্রখোলা সড়কের বাঘবাড়ি গ্রামের পশ্চিমে জবলাছড়ার তীর ঘেঁষে মাধবপুর মৌজার প্রায় ৫৬ শতক জায়গায় শ্মশান ভূমি হিসাবে গ্রামের মৃতদেহ সৎকার করে আসছেন। দীর্ঘদিন থেকে ঝোপঝাড় আচ্ছন্ন থাকায় গ্রামবাসী সকলে মিলে তা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করে বৃক্ষরোপন করেন।

শ্মশান ঘাট উন্নয়ন কমিটির সভাপতি কমলা বাবু সিংহ জানান, ভানুগাছ-পাত্রখোলা সড়ক থেকে শ্মশান ঘাটে যাতায়াতের রাস্তা একসময় অনেক বড় ছিল। পাশের ধানী জমির মালিকেরা কেটে দখল করে এখন যাতায়াতের রাস্তা একেবারে সরু হয়ে গেছে। যা মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। কমিটির সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার সিংহ বলেন, শ্মশানে ঘাটে যাবার রাস্তা একেবারে ছোট ও কর্দমাক্ত হয়ে যাওয়ায় বর্ষাকালে গ্রামের মৃতদেহ সৎকার করতে নিয়ে যেতে পারিনা। একসময় পার্শবর্তী কয়েকটি গ্রামের লোকজন শ্মশান ভূমিটি ব্যবহার করতেন। রাস্তা দখল ও দুপাশে ধানী জমি থাকায় বর্ষা কাদা ও জলে ডুবে থাকে।

গ্রামবাসী সরকারের কাছে জোর দাবী জানান রাস্তাটি দখলমুক্ত করে যাতায়াতের জন্য রাস্তা পুণ:নির্মাণ করলে কয়েকটি গ্রামের লোকজন শ্মশান ঘাট ব্যবহার সহ উপকৃত হবেন।

মাধবপুর ইউপি চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু বলেন, শ্মশানঘাটের রাস্তাটি নির্মাণের জন্য ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হবে।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews