বড়লেখায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড টানিয়ে সরকারি খাস ভুমির টিলা কর্তন ! বড়লেখায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড টানিয়ে সরকারি খাস ভুমির টিলা কর্তন ! – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০২:১৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ার জয়চন্ডীতে রাজু ফাউন্ডেশনের ত্রাণ উপহার বালাগঞ্জের বোয়ালজুর ইউপির উপ-নির্বাচন : চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলার অভিযোগ হাকালুকি হাওর তীরের ৩ উপজেলার জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে কুলাউড়ায় মতবিনিময় কমলগঞ্জে ওমান প্রবাসীর বাড়ির সীমানা প্রাচীর নির্মাণে বাঁধা নতুন ঘোষণা কোটা আন্দোলনকারীর, কাল সারাদেশ শাটডাউন রাজারহাটে ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের দক্ষতা বৃদ্ধি বিষয়ক ৩ দিন ব্যাপী ওরিয়েন্টশন সভা কবি সঞ্জয় দেবনাথ ও মাহফুজ রিপনকে ভারতের কুমারঘাটে সম্মাননা প্রদান . সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ : প্রতিপক্ষের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় প্রবাসী পরিবার কুড়িগ্রামে ৯ উপজেলায় কৃষিতেই ১০৫ কোটি টাকা ক্ষতি সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে খাসিয়াদের গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত

বড়লেখায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড টানিয়ে সরকারি খাস ভুমির টিলা কর্তন !

  • বৃহস্পতিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

বড়লেখা প্রতিনিধি ::

বড়লেখার পাহাড়ি জনপদ উত্তর ডিমাই গ্রামের কতিপয় ব্যক্তি কথিত মসজিদ নির্মাণের সাইনবোর্ড টানিয়ে সুউচ্চ সরকারি প্রাকৃতির টিলা কেটে পাশের ষাটমা ছড়ার পাড় ভরাট করছে। এছাড়া টিলা কেটে ব্যাপক গাছপালাও ধ্বংশ করা হয়। প্রায় দেড় মাস ধরে টিলা ধ্বংস ও ছড়া ভরাট চললেও স্থানীয় ইউনিয়ন সহকারি ভুমি কর্মকর্তারা ছিলেন নির্বাক। তবে বুধবার বিকেলে সহকারী কমিশনার (ভুমি) মো. জাহাঙ্গীর হোসাইন টিলা কর্তনকারীদের উচ্ছেদ করেছেন। এব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে।

সরেজমিনে জানা গেছে, বড়লেখা সদর ইউনিয়নের উত্তর ডিমাই গ্রামের ষাটমার পাড় বাজারে স্থানীয় বাসিন্দাদের একটি জামে মসজিদ রয়েছে। এর মাত্র ৫০ গজের মধ্যে স্থানীয় প্রভাবশালী বাবলুর রহমান, সুমন আহমদ, আব্দুল কুদ্দুছ, আমির হোসেন, আব্দুল কাদির প্রমুখ আরেকটি মসজিদ নির্মাণের সাইনবোর্ড টানিয়ে সরকারি প্রাকৃতিক টিলা সাবাড় করতে থাকেন। তারা ৪০-৫০ ফুট উঁচু সরকারি প্রাকৃতিক টিলা কেটে পাশের ষাটমা ছড়ার তীর ভরাট করছেন। টিলা ধ্বংসের কারণে প্রাকৃতিক পরিবেশ বিনষ্টের পাশাপাশি ছড়ার পাড় ভরাট করায় পাহাড়ি ঢলের পানি প্রবাহেও মারাত্মক প্রতিবন্ধতা সৃষ্টির আশংকা রয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় বাসিন্দাদের অনেকে জানান, এখানে মসজিদ নির্মাণের কোন প্রয়োজনই নেই। ৫০ গজের মধ্যেই জামে মসজিদ রয়েছে। মুলত ধর্মীয় অনুভুতিকে কাজে লাগিয়ে মসজিদের সাইনবোর্ড টানিয়ে এরা সরকারি টিলা দখলের পায়তারা চালাচ্ছে। প্রায় দেড় মাস ধরে টিলা কর্তন চললেও রহস্যজনক কারণে ভুমি কর্মকর্তাদের কেউ ব্যবস্থা নেননি।

সহকারি কমিশনার (ভুমি) মো. জাহাঙ্গীর হোসাইন জানান, খবর পেয়েই বুধবার বিকেলে তিনি টিলা কর্তনকারীদের উচ্ছেদ করেছেন। ইউনিয়ন সহকারি ভুমি কর্মকর্তার প্রতিবেদন পাওয়ার পর টিলা কর্তনকারিদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews