বড়লেখায় সালিশ সদস্যের নেতৃত্বে আ’লীগ নেতার বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৬ বড়লেখায় সালিশ সদস্যের নেতৃত্বে আ’লীগ নেতার বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৬ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৬:৪১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ার সীমান্তবর্তী শরীফপুরে ঝড়ে গাছ পড়ে ৩ সন্তানের জননীর মৃত‌্যু কুলাউড়ার সদপাশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিদায় সংবর্ধনা কমলগঞ্জে মণিপুরি কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজম বিষয়ক মতবিনিময় ফুলবাড়ীর মানুষের দাবি বাংটুর ঘাটে ব্রিজ চাই কমলগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা রানার স্বেচ্ছায় অব্যাহতি মায়ের ওড়নাকে শাড়ীতে রুপান্তর করলেন জেফার আজ আইপিএলের ফাইনাল, বৃষ্টির শঙ্কা জুড়ীতে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের স্থান নির্বাচন করার দাবি দ্রোহী আর সাম্যের কবি নজরুল বাঙালি মনীষার এক তুঙ্গীয় নিদর্শন ও দার্শনিক  উপজেলা নির্বাচন : আত্রাইয়ে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত-৪, আটক-৮

বড়লেখায় সালিশ সদস্যের নেতৃত্বে আ’লীগ নেতার বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৬

  • বৃহস্পতিবার, ২৫ মে, ২০২৩

এইবেলা ডেস্ক::

বড়লেখায় আদালতে বিচারাধীন একটি মামলার আপোস মীমাংসার বৈঠকে সালিশ সদস্যের ওপর আপত্তি দেওয়ার আক্রোশে ওই সালিশ সদস্য সঙ্গবদ্ধভাবে আপত্তিকারীর বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছেন। এতে উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বড়লেখা উপজেলা সদরের ব্যবসায়ী আব্দুল কাদির ও মায়ের কোলে থাকা দুই শিশুসহ ৬ জন আহত হয়েছেন। গতকাল বুধবার (২৪ মে) রাতে উপজেলার তালিমপুর গ্রামে আহত আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল কাদিরের বাড়িতে এই সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটেছে।

হামলায় আহত অন্যরা হলেন- আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল কাদিরের ছেলে মাহী হাসান নিলয়, স্ত্রী মাছুমা আক্তার, পুত্রবধু মনিরা আহমদ মুনা ও দুই বছর বয়সী দুই শিশু সন্তান।

এই হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় আহত আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে মাহি হাসান নিলয় বৃহস্পতিবার বিকেলে অভিযুক্ত সালিশ সদস্য জাহাঙ্গীর আলমসহ আট জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।

জানা গেছে, তালিমপুর গ্রামের বাসিন্দা জাকির হোসেন ও আবু বক্করের মধ্যে আদালতে একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। ওই মামলার আপোস মীমাংসার জন্য বুধবার রাতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদিরের বাড়িতে সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আব্দুল কাদির একপক্ষের হয়ে উক্ত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। উশৃঙ্খল আচরণ ও পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে তিনি সালিশ বোর্ডের সদস্য জাহাঙ্গীর আলমের ওপর অনাস্থা দেন। এতে ক্ষীপ্ত হয়ে জাহাঙ্গীর আলম অশ্লীল গালিগালাজ করে বৈঠক থেকে বেরিয়ে আত্মীয় স্বজনদের নিয়ে দেশিয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আব্দুল কাদিরের বাড়িতে প্রবেশ করে তাদের ওপর সন্ত্রাসী হামলা চালান এবং দরজা জানালা, গ্রীল ও আসবাবপত্র ভাংচুর করেন।

আহত আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল কাদির জানান, সালিশ সদস্য সৎ, নিরপেক্ষ ও ক্লিন ইমেজের সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি হওয়ার কথা। জাহাঙ্গীর আলম চিহ্নিত চোরাকারবারী ও মাদক ব্যবসায়ী। চোরাচালানের পণ্যসহ একাধিক বার সে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে জেল কেটেছে। তার বিরুদ্ধেথ থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। এরপরও সংশ্লিষ্ট পক্ষ মেনে নিয়েছিল। কিন্তু জাহাঙ্গীর আলম বৈঠকে বসেই প্রকাশ্যে উশৃঙ্খল আচরণ ও পক্ষপাতিত্ব শুরু করেন। আমি একপক্ষের মানিত ব্যক্তি হিসেবে ন্যায় বিচারের স্বার্থে জাহাঙ্গীর আলমের ওপর আপত্তি জানিয়ে তাকে বিচারে না থাকার দাবী জানাই। এরপরই সে তার দলবল নিয়ে আমার বাড়িতে ঢুকে সন্ত্রাসী হামলা চালায়। এতে আমিসহ আমার পরিবারের ৬ ব্যক্তি আহত হই। এসময় জাহাঙ্গীর আলম ও সহযোগিরা মহিলাদের শ্লীলতাহানী ঘটায় ও মোবাইল ফোন, স্বর্ণালংকার লুটপাট করেছে।

বড়লেখা থানার ওসি মো. ইয়ারদৌস হাসান জানান, ঘটনার খবর পেয়েই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করে হামলা ও ভাংচুরের কিছু আলামত উদ্ধার করেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে আহত মাহী হাসান নিলয় আটজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। এব্যাপারে পুলিশ যথাযত আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews