কুলাউড়ায় বন্যা কবলিত এলাকায় শিশু খাবার পানি বিশুদ্ধকরণ টেবলেট ও খাবার স্যালাইন বিতরণ কুলাউড়ায় বন্যা কবলিত এলাকায় শিশু খাবার পানি বিশুদ্ধকরণ টেবলেট ও খাবার স্যালাইন বিতরণ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১১:৩৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কমলগঞ্জে পূজা উদযাপন পরিষদের বৃক্ষরোপন কুড়িগ্রামে শিশুদের প্রতি সহিংসতা বন্ধে স্থানীয় স্টেক হোল্ডারদের সাথে সংলাপ সুজানগর ইউপি : বন্যার্তদের ২০ লাখ টাকার খাদ্যসামগ্রী দিচ্ছেন প্রবাসীরা ইউপি চেয়ারম্যান উপ-নির্বাচন-বড়লেখায় প্রতীক পেয়েই প্রচারণায় প্রার্থীরা কুলাউড়ায় বন্যা কবলিত এলাকায় শিশু খাবার পানি বিশুদ্ধকরণ টেবলেট ও খাবার স্যালাইন বিতরণ কুলাউড়ায় আশ্রয়ন প্রকল্পে ঘর বরাদ্দের নামে অসহায় মহিলার ভিক্ষার টাকা আত্মসাত! ব্যারিস্টার সুমনকে হত্যার হুমকি দাতা কুলাউড়ার সোহাগ গ্রেফতার! ওসমানীনগরে শতাধিক শিক্ষার্থী পেল স্কুল ড্রেস বার্সেলোনায় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের সাথে বাংলার মেলা আয়োজক সংঠনের মতবিনিময় কুলাউড়া পৌরসভার ৬৯ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা

কুলাউড়ায় বন্যা কবলিত এলাকায় শিশু খাবার পানি বিশুদ্ধকরণ টেবলেট ও খাবার স্যালাইন বিতরণ

  • বৃহস্পতিবার, ১১ জুলাই, ২০২৪

এইবেলা, কুলাউড়া ::: কুলাউড়ায় বন্যা কবলিত এলাকায় শিশু খাবার পানি বিশুদ্ধকরণ টেবলেট ও খাবার স্যালাইন বিতরণ করেছে এশিয়া আর্সেনিক নেটওয়ার্ক।  ১০ জুলাই বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন , পুষ্টিকর শিশু খাবার, খাবার স্যলাইন, পানি বিশুদ্ধ করন টেবলেট বিতরণ স্যানিটেশন ও হাইজিন সম্পর্কে সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

এশিয়া আর্সেনিক নেটওয়ার্কের জিওবি ইউনিসেফ টিএ প্রকপ্লের প্রজেক্ট ম্যানেজারের নেতৃত্বে একটি ওয়াস প্রতিনিধিদল কুলাউড়া উপজেলার বিভিন্ন বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেন । প্রতিনিধি দল কুলাউড়ার কাদিপুর, ছকাপন, ভূকশিমইল ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম পরিদর্শন করে শশারকান্দি, বড়দল ও চিলাকান্দিতে পানি বন্দী মানুষের সাথে কথা বলেন। এ সময় তাদের নিরাপদ পানির স্থাপনা, স্যানিটেশন ব্যবস্থা নীবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করেন। এলাকার মানুষের ব্যবহার ও খাবার পানি ব্যবস্থাপনা, নিরাপদ পানি সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও পরিবেষণ ব্যবস্থা, পানি বিশুদ্ধ করনের সঠিক ও সহয নিয়মাবলী উপস্থাপন করেন ।

এশিয়া আর্সেনিক নেটওয়ার্কের জিওবি-ইউনিসেফ টিএ প্রজেক্টের প্রজেক্ট ম্যানেজার সাইয়েদ এ এইচ সানী বলেন বন্যার কারণে শিশুদের পানিতে ডুবে যাওয়া আশংকা বেশী থাকে, বিভিন্ন চর্ম রোগ,ডায়রিয়া, অপুষ্টি, পানিবাহিত রোগ এবং শিশু ও নারীরা হারিয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে থাকে। আমাদের এসব শিশু ও তাদের পরিবারকে রক্ষা করতে হবে। তিনি বন্যা কবলিত পরিবারের মধ্যে নারী প্রধান পরিবার , বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন মানুষ ও শিশু সদস্য পরিবারের প্রতি বিশেষ মনোযোগ রাখার পরামর্শ প্রদান করেন । এ সময় প্রকল্প এলাকার এরিয়া ম্যানেজার মুহাম্মদ সাদেক সফিউল্লা, প্রজেক্ট ইঞ্জিয়ার নাহিদ রায়হান, ডকুমেন্টেশন –মনিটরিং অফিসার মোস্তাফিজুর রহমান ইউনিয়ন সুপারভাইজার মোঃআমিনুর রহমান, আনোয়ার হোসেন,রাজিব দেবনাথ ও ওয়াস মটিভেটর স্মৃতি রানী দাস উপস্থিত ছিলেন ।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews