ইউএনওর’ গোপন সম্মতিকে সরকারের ২৫ লাখ টাকার খনিজ বালু বিক্রি ইউএনওর’ গোপন সম্মতিকে সরকারের ২৫ লাখ টাকার খনিজ বালু বিক্রি – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শুক্রবার, ২৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৭ পূর্বাহ্ন

ইউএনওর’ গোপন সম্মতিকে সরকারের ২৫ লাখ টাকার খনিজ বালু বিক্রি

  • বৃহস্পতিবার, ২৭ মে, ২০২১
  • ১৯৩ বার পড়া হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক::

কোন রকম নিলাম মুল্য আয়কর ভ্যাট ছাড়াই ক্ষমতার অপব্যবহার দেখিয়ে সরকারের প্রায় ২৫ লাখ টাকার খনিজ বালু বিক্রিতে সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার গোপন সম্মতি থাকার অভিযোগ উঠেছে।

কয়েক দফায় মজুদকৃত প্রায় ২৫ লাখ টাকার লক্ষাধিক ঘনফুট খনিজ বালু উপজেলার পাটলাই নদীর তীর থেকে ইউএনও পদ্মাসন সিংহের সম্মতিতে একটি চক্র বিক্রি করছে।

এ নিয়ে এলাকার লোকজন বারবার আপক্তি জানানোর পর জেলা প্রশাসনের অনুমতি পত্রের অজুহাত দেখিয়ে বালু বিক্রেতাদের বালু বিক্রিতে নিরবে সায় দিয়ে যাচ্ছেন ইউএনও।

বিসিএস ৩৩ তম ব্যাচের এ কর্মকর্তা বিগত ২০২০সালের ১৮ জুন সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে যোগদান করার পরপরই সীমান্তের পাহাড়ি ছড়া,মাহারাম শান্তিপুর নদী হতে অবৈধভাবে উক্তোলকৃত বালু পাথর জব্দ করার পর নিলাম কান্ডে ও নিলাম ভন্ডুলের পর গোপন সমঝোতায় বালু পাথর বিক্রিতে সায় দেয়ায় তাকে নিয়ে নানা বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

সম্প্রতি উপজেলার উওর শ্রীপুর ইউনিয়নের পাটলাই নদীর তীরে জামালপুর ও ভুড়াঘাট গ্রামে অন্যদের মজুদকৃত প্রায় ২৫ লাখ টাকা মুল্যের লক্ষাধিক ঘনফুট খনিজ বালুর মালিকানা দাবি করেন তাহিরপুরের ধীমান চন্দ নামক এক যুবক।

এরপর জেলা প্রশাসক বরাবর বালু সড়িয়ে নিতে আবেদন করলে বিষয়টি প্রতিবেদন দেয়ার জন্য ইউএনওর নিকট প্রেরণ করা হয়। অনৈতিক সুবিধা নিয়ে ২০ হাজার ঘনফুট বালু মজুদ রয়েছে বলে ভুল তথ্যের আলোকে প্রতিবেদন প্রেরণ করেন ইউএনও। এরপর জেলা প্রশাসন বালু সড়িয়ে নিতে কোন ক্ষমতাপত্র বা লিখিত নির্দেশনা না দিলেও ইউএনও’র নিরব সম্মতিতে দুটি ষ্টিল বডি ট্রলারে করে প্রায় ১৪ হতে ১৫ হাজার ঘনফুট বালু সড়িয়ে অন্যত্র বিক্রি করে দিয়েছেন চলতি সপ্তাহে।

ধীমান চক্র জেলা প্রশাসন হতে মজুদকৃত জব্দ বিহিন বালু নিলাম বা ডাক পেয়েছে বলে প্রচার করে বুধবার দিনভর আরো দুটি ষ্টিল বডি ট্রলারে বালু লোড করতে থাকেন।

বৃহস্পতিবার ও বুধবার এ বিষয়ে ধীমানের নিকট দু’দফায় জানতে চাইলে তিনি প্রথমে বলেন বালু নেয়ার অনুমতি পত্র রয়েছে,ইউএনও স্যার অনুমতি দিয়েছেন। পরবর্তীতে বলেন, কেউ অনুমতি দেননি, আগে এক নৌকায় (ট্রলারে) ৭ হাজার ঘনফুট বালু নিয়েছি, বুধবার আরো দুটি ষ্টিল বডি ট্রলারে বালু লোড করা হয়েছে।

এরপর তার নিকট বালু নেয়ার অনুমতি পত্র দেখাতে বললেও দিনভর সময় ক্ষেপন করতে থাকেন।

তাহিরপুর থানার ওসি মো. আব্দুল লতিফ তরফদারের নিকট এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন , কয়েকদিন পুর্বে ইউএনও স্যার আমাকে ফোন করে বলেছিলেন জেলা প্রশাসনের একটি কাগজ ধীমান থানায় দিয়ে যাবে বিষয়টি দেখার জন্য।

তাহিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পদ্মাসন সিংহর নিকট বালু বিক্রির অনুমতি প্রদান, বালু মজুদ, মালিকানা দাবির প্রতিবেদন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কোন অনুমতি দেই নাই।

বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, জেলা প্রশাসন থেকে বালু নেয়া বা বিক্রির কোন অনুমতি কাউকে দেয়া হয়নি, এসব যে বলছে তাকে কাগজপত্র দেখাতে বলেন।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews