কমলগঞ্জের লাঘাটা ও পলক নদীতে অবৈধ বাঁশের খাঁটিয়া বাঁধাগ্রস্থ মাছের প্রজনন ও গতিপ্রবাহ কমলগঞ্জের লাঘাটা ও পলক নদীতে অবৈধ বাঁশের খাঁটিয়া বাঁধাগ্রস্থ মাছের প্রজনন ও গতিপ্রবাহ – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৯:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বড়লেখায় ঢলের পানিতে ডুবে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু স্পেনে যুবলীগ কাতালোনিয়া শাখার উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী ও আলোচনা মৌলভীবাজারে বন্যার পানিতে ডুবে ২ জনের মৃত্যু কুলাউড়ায় বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র পরিদর্শণ করলেন মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক বড়লেখায় জেলা প্রশাসকের বন্যাদুর্গত এলাকা পরিদর্শন ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ সিলেটে ৮ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত কুলাউড়ায় লক্ষাধিক মানুষ পানি বন্দি, বাড়ছে পানি, বাড়ছে দুর্ভোগ! দুর্যোগ মোকাবেলায় বিশ্বে বাংলাদেশ রোলমডেল : দুর্যোগ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী হাকালুকি হাওরপারে বন্যার অবণতি-বড়লেখায় ২৫২ গ্রাম প্লাবিত, আশ্রয় কেন্দ্রে ২২০ পরিবার, লাখো মানুষ পানিবন্দি মৌলভীবাজারে বন্যা কবলিত ৪৩২ গ্রাম, পানিবন্দি প্রায় ২ লাখ মানুষ

কমলগঞ্জের লাঘাটা ও পলক নদীতে অবৈধ বাঁশের খাঁটিয়া বাঁধাগ্রস্থ মাছের প্রজনন ও গতিপ্রবাহ

  • বুধবার, ১১ আগস্ট, ২০২১

কমলগঞ্জ (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি :

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার লাঘাটা ও পলক নদীতে অবৈধভাবে বাঁশের খাঁটি (বেড়া) দিয়ে চলছে মাছ শিকার। ফলে দেশীয় প্রজাতির প্রাকৃতিক মাছের প্রজনন ও গতি প্রবাহে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। একটি অসাধু শিকারী চক্রের কবলে মারা যাচ্ছে দেশীয় প্রজাতির ছোটবড় মাছসহ জলজ প্রাণী। এতে নদী ও জলাশয়ে প্রাকৃতিক মাছের উপস্থিতি হ্রাস পাচ্ছে। তবে অবৈধ এসব মাছ শিকারীদের কখনো আইনের আওতায় আনা হচ্ছে না। ফলে নদী দু’টির পতনঊষার এলাকায় একাধিক বাঁশের খাটি বসানো হয়েছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, উজানের ভারতীয় সীমান্তে পাহাড়ি এলাকা থেকে লাঘাটা নদীর উৎপত্তি হয়ে হাওরের মাঝ দিয়ে প্রবাহিত হয়ে মনু নদীতে গিয়ে শেষ হয়েছে। এই নদীকে কেন্দ্র করে হাওর, বিল, জলাশয়ে দেশীয় মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি ও কৃষিতে সেচের বাড়তি মাত্রা যুক্ত করেছে। তবে একটি অসাধু শিকারী চক্র এসব নদীতে বাঁশের খাঁটি স্থাপন করেছে। লাঘাটা নদীর পতনউষার ইউনিয়নের শ্রীরামপুর ও গোপীনগর এলাকায় দু’টি বাঁশের খাঁটি এবং পলক নদীতেও কয়েকটি বাঁশের খাঁটি বসানো হয়েছে। ফলে মাছের অবাধ গতি ও পানি প্রবাহে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। খাঁচায় আটকে মাছ, ব্যঙ, সাপ, কুচিয়াসহ নানা প্রজাতির জলজ প্রাণী মারা যাচ্ছে।

ধূপাটিলা গ্রামের কৃষক তাজু মিয়া, শেরওয়ান আলী, ফারুক মিয়া, কদর আলী, পতনঊষারের তোয়াবুর রহমান, মনু মিয়া, মসুদ মিয়া বলেন, কয়েক বছর আগেও লাঘাটা নদী, কেওলার হাওরে প্রচুর দেশীয় মাছের উপস্থিতি দেখা গেলেও এখন মাছের বিরানভূমি চলছে। প্রশাসনের নাকের ডগায় তারা নদী সেচ, বাঁশের খাটি স্থাপন করে মাছ শিকার করলেও এদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। তারা আরও বলেন, যদি স্বার্থাম্মেষী মহলের অবৈধ পন্থায় মাছ শিকার বন্ধ করা যেত তাহলে চলতি মৌসুমে মনু নদীর মাছে লাঘাটা নদী ভরপুর হয়ে উঠতো। এভাবে স্থানে স্থানে বাঁশের দেয়ার কারণে মাছ উজানে উঠতে পারছে না।

পরিবেশকর্মী নুরুল মোহাইমীন বলেন, প্রতিবছর এই নদীগুলোর উপর নানা অত্যাচারে মাছসহ জলজ প্রাণির মৃত্যু ঘটছে। ফলে নদী ভরাট, সংকোচন হয়ে পড়ছে। অথচ এসব অপরাধীদের বিরুদ্ধে কখনও কোন আইনী পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

কমলগঞ্জ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, লাঘাটা ও পলক নদীতে অবৈধ বাঁশের খাঁটি দেয়ার কোন অভিযোগ আসেনি। তবে সরেজমিনে তদন্তপূর্বক নদী থেকে বাঁশের খাঁটি অপসারণ করা হবে।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews