বড়লেখায় অনেক প্রতিষ্ঠানে পতাকা রাখা হয়নি অর্ধনমিত : শহীদ মিনারে আবর্জনা! বড়লেখায় অনেক প্রতিষ্ঠানে পতাকা রাখা হয়নি অর্ধনমিত : শহীদ মিনারে আবর্জনা! – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ায় দাবা প্রতিযোগিতা ১৮ আগস্ট একজন বৃন্দারাণী শিকড় আকড়ে আছেন! কমলগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলায় সাংবাদিক আব্দুল বাছিত গুরুতর আহত কমলগঞ্জে সাংবাদিক বাছিতের ওপর উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত : অবস্থা আশংকাজক, সন্ত্রাসীদের দ্রুত গ্রেফতার দাবী বড়লেখায় বন্যাদুর্গত ৫০ পরিবারকে কানাডাস্থ মৌলভীবাজার জেলা এসোসিয়েশনের অনুদান বিতরণ কমলগঞ্জ উপজেলার ২২টি বাগানে চা শ্রমিকদের লাগাতার কর্মবিরতি কুলাউড়ায় কলেজ শিক্ষিকাকে মারধর শিক্ষাথীদের ক্লাস বর্জন মজুরি নিয়ে চা শ্রমিকদের ক্ষোভ অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট ও সড়ক অবরোধ  বড়লেখায় আব্দুল করিম সিআইপি’র অর্থায়নে দুস্থ রোগিদের ফ্রি চিকিৎসা ও ওষুধ প্রদান বিয়ানীবাজারে বৈরাগীবাজার পিবিএস কালচারাল একাডেমীর প্রবাসী সংবর্ধনা

বড়লেখায় অনেক প্রতিষ্ঠানে পতাকা রাখা হয়নি অর্ধনমিত : শহীদ মিনারে আবর্জনা!

  • সোমবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

বড়লেখা প্রতিনিধি ::

বড়লেখায় মহান শহীদ দিবস ও আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসে অনেক প্রতিষ্ঠানে টানানো হয়নি জাতীয় পতাকা। একটি স্কুলে বিশাল শহীদ মিনার থাকলেও ছিলনা কোন আয়োজন। ভাষা সৈনিকদের শ্রদ্ধা নিবেদনে শহীদ মিনারে দেয়া হয়নি ফুল। মহান শহীদদের স্মরণে এদিন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে উত্তোলনের সরকারি নির্দেশ থাকলেও একটি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র, একটি প্রাইমারী স্কুল ও একটি ডাকঘরে তা মানা হয়নি। পরিস্কার করা হয়নি স্কুলের শহীদ মিনারের বেদিও।

সোমবার সরেজমিনে উপজেলার গোয়ালী বিহাইডহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দক্ষিণভাগ (৩২৫২) ডাকঘরে গিয়ে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত না রেখে ষ্ট্যান্ডের একেবারে ওপরে টানানো থাকতে দেখা যায়। গোয়ালী বিহাইডহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের বেদিতে শহীদদের শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে ফুল দেয়াতো দূরের কথা তা পরিস্কারও করা হয়নি। শহীদ মিনারের বেদির উপরে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে ময়লা-আবর্জনা। মহান মাতৃভাষা দিবসেও মিনারটি পরিস্কার করার প্রয়োজন মনে করেনি স্কুল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া ফ্ল্যাগ স্ট্যান্ডের একেবারে উপরে পতাকা টানানো হয়েছে। ভাষা শহীদদের এমন অবমাননায় প্রত্যক্ষদর্শীদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। স্থানীয় যুবক জাফর হিসাম বলেন, উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের সবচেয়ে বড় শহীদ মিনার হচ্ছে গোয়ালী বিহাই ডহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহীদ মিনারটি। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসেও এই শহীদ মিনারে আবর্জনা, ফুল না দেয়া, জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত না রাখা আমাদের স্বাধীনতা অর্জনের মুল প্রতীক পতাকার প্রতি মারাত্মক অবমাননা ও ভাষা শহীদদের চরম অসম্মান। প্রধান শিক্ষক ও স্কুল কর্তৃপক্ষের এমন গাফিলতি মেনে নেয়া যায়না। দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউপির স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে টানানোই হয়নি জাতীয় পতাকা।

উপজেলা সহকারি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এসএম আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, উপজেলার ১৫১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের মহান আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসে যথাযথভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, শহীদ মিনার পরিস্কার পরিচ্ছন্ন ও শহীদদের শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এরপরেও ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কেন সরকারি এ নির্দেশনা প্রতিপালন করেননি, এব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইউএনও খন্দকার মুদাচ্ছির বিন আলী জানান, আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবসে সকল সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে যথাযথ নিয়মে জাতীয় প্রতাকা উত্তোলনের সরকারি নির্দেশনা রয়েছে। শহীদ মিনার পরিস্কার না করা ও শ্রদ্ধাঞ্জলি না জানানো অত্যন্ত দুঃখজনক। এব্যাপারে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।#

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৫ - ২০২০
Theme Customized By BreakingNews