সিসিক নির্বাচন: প্রতীক বরাদ্দ, প্রচারণায় প্রার্থীরা! সিসিক নির্বাচন: প্রতীক বরাদ্দ, প্রচারণায় প্রার্থীরা! – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৪:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুলাউড়ার জয়চন্ডীতে রাজু ফাউন্ডেশনের ত্রাণ উপহার বালাগঞ্জের বোয়ালজুর ইউপির উপ-নির্বাচন : চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলার অভিযোগ হাকালুকি হাওর তীরের ৩ উপজেলার জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে কুলাউড়ায় মতবিনিময় কমলগঞ্জে ওমান প্রবাসীর বাড়ির সীমানা প্রাচীর নির্মাণে বাঁধা নতুন ঘোষণা কোটা আন্দোলনকারীর, কাল সারাদেশ শাটডাউন রাজারহাটে ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের দক্ষতা বৃদ্ধি বিষয়ক ৩ দিন ব্যাপী ওরিয়েন্টশন সভা কবি সঞ্জয় দেবনাথ ও মাহফুজ রিপনকে ভারতের কুমারঘাটে সম্মাননা প্রদান . সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ : প্রতিপক্ষের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় প্রবাসী পরিবার কুড়িগ্রামে ৯ উপজেলায় কৃষিতেই ১০৫ কোটি টাকা ক্ষতি সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে খাসিয়াদের গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত

সিসিক নির্বাচন: প্রতীক বরাদ্দ, প্রচারণায় প্রার্থীরা!

  • শুক্রবার, ২ জুন, ২০২৩

এইবেলা ডেস্ক :: সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচন ২০২৩ এ অংশ নেয়া মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। শুক্রবার (২ জুন) সকাল ১০টায় সিলেট জালালাবাদ গ্যাস মিলনায়তনে নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ফয়সল কাদের প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দের ঘোষণা দেন। প্রতীক ঘোষনার পর প্রার্থীরা আনুষ্ঠানিক ভাবে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন। মেয়র পদে জসমর্থনে এগিয় আছে নৌকা ও লাঙ্গল প্রতীক। ধারণা করা হচ্ছে এবারের সিসিক নির্বাচনে বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী না থাকায় মূল লড়াই হবে আওয়ামী লীগের নৌকা ও জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের মধ্যে।

এতে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মো.আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী ( নৌকা), জাতীয় পার্টির নজরুল ইসলাম বাবুল (লাঙ্গল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাফেজ মাওলানা মাহমুদুল হাসান (হাতপাখা) ও জাকের পার্টির মো. জহিরুল আলম ( গোলাপফুল)।

এছাড়া স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ আবদুল হানিফ কুটু ( ঘোড়া), মো. ছালাহ উদ্দিন রিমন (ক্রিকেট ব্যাট) এবং মো. শাহজাহান মিয়া (বাস গাড়ি) প্রতীক ঘোষণা ঘোষনা করা হয়।

অন্যদিকে সাধারণ ওয়ার্ডে (পুরুষ কাউন্সিলর) প্রার্থীর হলেন, ১নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর সৈয়দতৌফিকুল হাদী, মুফতি কমর উদ্দিন, সৈয়দ আনোয়ারুছ সাদাত, সলমান আহমদ চৌধুরী, ২নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর বিক্রম কর সম্রাট ও সাবেক কাউন্সিলর মো. রাজিক মিয়া, ৩নং ও ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আবুল কালাম আজাদ লায়েক, সাবেক কাউন্সিলর এস এম আবজাদ হোসেন, মিজানুর রহমান, বদরুল ইসলাম লস্কর; ৪নং ওয়ার্ডে আব্দুল করিম চৌধুরী, শেখ তোফায়েল আহমদ শেপুল, আলম খান মুক্তি, আহমদুল হক, ৫নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর রেজওয়ান আহমদ, খালেদ আকবর চৌধুরী, কামাল মিয়া, নাজমুল রহাসাইন, শেখ মো. সাহেদ সিরাজ, রিমাদ আহমদ রুবেল, আমিনুর রহমান; ৬নং ওয়ার্ডে শাহিন মিয়া, সৈয়দ আতিকুর রব চৌধুরী, মাজহারুল ইসলাম, ফরহাদ হোসেন শামীম, মাহমুদ আহমদ; ৭নং ওয়ার্ডে আফতাব হোসেন খান, সায়ীদ মো. আবদুল্লাহ, জাহিদ খান সায়েক; ৮নং ওয়ার্ডে ইলিয়াছুর রহমান, সুমন ইসলাম, ফয়জুল হক, রানা আহমদ, সাব্বির খান, বিদ্যুৎ দাস, জগদীশ চন্দ্র দাশ, সুদীপ রঞ্জন দেব, হাবিবুর রহমান হাবিব; ৯নং ওয়ার্ডে মখলিছুর রহমান কামরান ও বাবুল খান; ১০নং ওয়ার্ডে মোস্তফা কামাল, তারেক উদ্দিন, গোলাম কিবরিয়া মাসুক, আব্দুল হাকীম, আফতাব, ছাইদুর রহমান; ১১নং ওয়ার্ডে রকিবুল ইসলাম ঝলক, আব্দুর রহিম মতচ্ছির, মীর্জা এম.এস. হোসেন, আব্দুর রকিব বাবলু, ১২নং ওয়ার্ডে সিকন্দর আলী, আব্দুল কাদিও, ১৩নং ওয়ার্ডে শাহদাত হোসেন লোলন, শান্তনু দত্ত সন্তু, নুরুল ইসলাম, বিশ্বজিৎ দাস; ১৪নং ওয়ার্ডে নজরুল ইসলাম মুমিন, মোস্তাফিজুর রহমান, মাহবুবুর রহমান জনি, ১৫নং ওয়ার্ডে ছয়ফল আমিন বাকের, আনোয়ার হোসেন জাহেদ, কায়ছার হাসান শিমন, মুজিবুর রহমান শওকত, আব্দুল গাফফার, আবু তামিম; ১৬ নং ওয়ার্ডে ফয়জুল হাসান, আফরাফ খান, আব্দুল মুহিত জাবেদ, কামরুল হোসেন রাজীব, তামিম আহমদ খাঁন, তমাল রহমান, জামাল আহমদ; ১৭নং ওয়ার্ডে মীর জসিম উদ্দিন, রাশেদ আহমদ, দিলওয়ার হোসাইন সজীব; ১৮নং ওয়ার্ডে সালমান চৌধুরী, এবি এম জিল্লুর রহমান, মো. নজমুল ইসলাম এহিয়া, মাহবুব খান মাসুম, শামছুর রহমান কামাল, বেলাল আহমদ; ১৯ নং ওয়ার্ডে এস এম শওকত আমীন তৌহিদ, রুমেল আহমদ, ২০ নং ওয়ার্ডে শুভ্র চক্রবর্তী, মিঠু তালুকদার, বিহিত গুপ্ত চৌধুরী বাবলা, আজাদুর রহমান আজাদ, ২১নং ওয়ার্ডে আব্দুল রকিব তুহিন, আসাদ বখত জুয়েল, সাহেদুর রহমান, গোলাম রহমান চৌধুরী; ২২নং ওয়ার্ডে ছালেহ আহমদ সেলিম, আবু জাফর, শোয়াইবুর রহমান শোয়াইব, ফজলে রাব্বী চৌধুরী, দিদার হোসেন, বদরুল আজাদ রানা, ইব্রাহিম খান সাদেক; ২৩নং ওয়ার্ডে মোস্তাক আহমদ, মামুনুর রহমান মামুন, শেখ সোহেল আহমদ কবির, সোয়েব আহমদ শিপলু; ২৪নং ওয়ার্ডে হুমায়ুন কবির সুহিন, হাবিবুর রহমান, আব্দুস শহীদ লস্কর, সোহেল আহমদ রিপন, মোহাম্মদ শাহজাহান, আবুল কাশেম খায়ের, ২৫নং ওয়ার্ডে রোকসানা বেগম শাহনাজ, মোফাজ্জল হোসেন, তাকবির ইসলাম পিন্টু, সাহাব উদ্দিন সিহাব, আশিক আহমদ; ২৬ নং ওয়ার্ডে তৌফিক বক্স, সেলিম আহমদ রনি, সাহেদ আহমদ, মামুনুর রশিদ; ২৭নং ওয়ার্ডে আব্দুল জলিল নজরুল, আজম খান, সুজিত কুমার গোপ, শাহীন আহমদ, জালাল উদ্দিন আহমদ, মঈন উদ্দিন, বিপ্লব কান্তি দে মাধব; ২৮নং ওয়ার্ডে শিব্বির আহমদ, ফখরুল ইসলাম, ইমতিয়াজ আহমদ জগলু, রায়হান হোসেন, আশিকুর রহমান আশিক, এস এম মিনহাজ মাহমুদ, আব্বাছ আলী, সুহেল রানা, এমদাদ হোসেন, ২৯ নং ওয়ার্ডে লাহিনুর রহমান লাহিন, মাজহারুল ইসলাম শাকিল, জাবেদ আহমদ জীবন, রেজাউল ইসলাম, ইসমাইল হোসেন মুরাদ, রাজীব আহসান, পংকি মিয়া, গোলাম মোস্তফা কামাল, শাহেদ খান স্বপন, ৩০নং ওয়ার্ডে রাজু মিয়া, আতাউর রহমান, জামাল উদ্দিন, প্রমথ দাস, আব্দুল মান্নান, আজাদ মিয়া, শাহ ইকবাল হোসেন, মকসুদ আহমদ, আলী আআছকর, আব্দুল গফ্ফার, সেলিম আহমদ জাবেদ, ফজলুল করিম, জাকির হোসেন, নুরুল ইসলাম মাসুম, রকিব খান, রাউল করিম সুমন, এনামুল হক, লয়লু মিয়া, সানর মিয়া, ৩১ নং ওয়ার্ডে রাজিব আহমদ, আব্দুল আহাদ, ইলিয়াস মিয়া, আব্দুল মুকিত, দেলোয়ার হোসেন, ইউনুছ আহমদ, নজমুল হোসেন, শফিকুর রহমান; ৩২নং ওয়ার্ডে কাবুল আহমদ, আব্দুল হান্নান, সৈয়দ ফরহাদ হোসেন, মোতাহার হোসেন, দুলাল আহমদ মতিউর রহমান রিপন, হোদায়েত হোসেন তানভীর, আফছর আহমদ, রুহেল আহদ, স্বপন আহমদ রুমন; ৩৩নং ওয়ার্ডে ফখরুল ইসলাম দুলু, গৌছ উদ্দিন, দেলোয়ার হোসেন, সেলিম আহমদ, শামীম আহমদ পিন্টু, ইকবাল হোসেন শামীম, রমিজ উদ্দিন হুমায়ূন কবির চৌধুরী, মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, বাহার উদ্দিন, আবু সাদেক মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম চৌধুরী, মঞ্জুর রহমান, ইন্দ্রজিত বিশ্বাস, শাহাজাহান আহমদ খাদিম, আব্দুল আহাদ, হিমেল আহমদ; ৩৪নং ওয়ার্ডে আমিনুর রহমান, সোলেমান আহমদ, মাওলানা রফিকুল ইসলাম, শামীম আহম্মদ, আবু বকর লিলু, জয়নাল আবেদীন, পারভেজ আহমদ, আনোয়ার হোসেন আনু, সুহেল আহমদ, নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, আলী আক্তার চৌধুরী, কাজি মো. রুনু মিয়া মইন, জয়নাল আবেদীন জুয়েল, হাবিবুর রহমান পংকি, মো. রকিবুজ্জামান, রমজান আলী; ৩৫নং ওয়ার্ডে মনজুর আহমদ মনজু, সৈয়দ আহমদ আলী, জাহাঙ্গীর আলম; ৩৬নং ওয়ার্ডে রাজা মিয়া, বদরুর রহমান বাবর, এ এইচ এম জহিরুল হক, হিরন মাহমুদ নিপু, সৈয়দ জয়নাল আবেদীন আহমদ, তজমুল ইসলাম; ৩৭নং ওয়ার্ডে শেখ লোকমান মিয়া, দিলোয়ার হোসেন জয়, শায়খুল ইসলাম, নজনুল ইসলাম নজু, কবির আলম, রিয়াজ মিয়া, আব্দুর রাজ্জাক ডালীম, আলী হোসেন রফিকুল ইসলাম, বিপ্লব চক্রবর্তী, মোয়াজ বিন আজহার, পারভেজ আহমদ, বিজিত লাল দাস, ৩৮নং ওয়ার্ডে গিয়াস উদ্দিন, আক্তার হোসেন, কামরুল হাসান নুর, আল আমিন, বেলাল আহমদ, মো. জাকারিয়া, হেলাল উদ্দিন, উসমান হারুন পনির, আজিজুর রহমান সুমন, ৩৯নং ওয়ার্ডে রেজাউল রহমান মোস্তাক, শাহাব উদ্দীন লাল, ফজলুল করিম ফুল মিয়া, আব্দুর রহমান খোরাসানী, আমির উদ্দিন আহমদ, আলতাফ হোসেন সুমন, মাসুম আহমদ; ৪০নং ওয়ার্ডে রাজ কুমার পাল রাজু, লিটন আহমদ, হাজী আব্দুল শহীদ, এস এম জুলফিকার আলী, সামরান সাবের, আব্দুল হাছিব, কামাল আহমদ কাবুল, তারেক আহমদ; ৪১নং ওয়ার্ডে মোহাম্মদ রাজ্জিক, নাজির আহমদ স্বপন, মনজুর আহমদ, খসরুজ্জামান, রফিকুল ইসলাম রফু, জিয়াউর রহমান, দিবাকর দেবনাথ, ফখরুল আলম, আক্তার হোসেন এবং ৪২নং ওয়ার্ডে মাওলানা আব্দুল হাফিজ খান, আব্দুল কাদির ছাদেক, মনছুরুল আরিফিন শিকদার সুমন, রিহাদ আহমদ, সাইফুল আলম, নজরুল ইসলাম কামাল, আলতাফুর রহমান, আবুল কালাম মনছুর, মতিউর রহমান।

সংরক্ষিত ওয়ার্ডে (নারী কাউন্সিলর) প্রার্থীরা হলেন, ১নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর সালমা সুলতানা ও আছিয়া বেগম; ২নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর কুলসুমা বেগম পনি, রুনা বেগম, জোসনা আহমদ, তাহমিনা রহমান রোবা; ৩ নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর রেবেকা বেগম, রোবি বেগম, নেহারুন বেগম, শ্যামলী সরকার, মুসলিমা নাজনিন হাসান, নাছরিন আহমদ নুপুর ও রুকসানা খানম; ৪নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর মাসুদা সুলতানা, সাবেক কাউন্সিলর রুহেনা খানম মুক্তা, উম্মে সালমা, অ্যাডভোকেট জোহরা জেসমিন, তাহমিনা বেগম, রুবি বেগম, সালমা বেগম, সুনয়া আক্তার সূচনা ও রুপিয়া খানম, ৫নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর শাহানা বেগম শানু, সাবেক কাউন্সিলর দীবা রানী দে, জয়শ্রী দাস জয়া; ৬নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর শাহানারা বেগম ও মোছা. কামরুন নাহার চৌধুরী. ৭ নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর নাজনীন আক্তার কনা, মাহমুদা নাজিম রুবি, নার্গিস সুলতানা ও ডায়না বেগম সুমাইয়া, ৮নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর রেবেকা আক্তার লাকী, সাবেক কাউন্সিলর সালেহা কবীর সেপী, শারমিন আক্তার রুবি ও হেনা বেগম; ৯ নং ওয়ার্ডে সাদিয়া শারমিন সুমি, নাজমা বেগম, শিউলি আক্তার, ছামিরুন নেছা ও আছমা বেগম; ১০নং ওয়ার্ডে হাছিনা বেগম, রুমা আক্তার, আয়েশা খাতুন কলি, হোছনে আরা বেগম, অর্পনা রানী ঘোষ, জুলেখা বেগম, মাহমুদা ইসলাম চৌধুরী ও তাহমিনা সুলতানা; ১১নং ওয়ার্ডে সাজেদা বেগম, খেলা রাণী নাথ, ফাতেমা বেগম সাথী, রাহেলা বেগম, রোপসানা আক্তার, রুকসানা বেগম, পারবিন বেগম, মাজরানা তাহরীন খালিক ও আমিনা বেগম; ১২নং ওয়ার্ডে ছালেহা বেগম, আছমা আক্তার পারভীন, হাজেরা বেগম, নাজমা আক্তার, ফাতেমা আক্তার পারুল, রুমি আহমদ, শিরিন আক্তার, সেলিনা আক্তার ও লিপি বেগম, ১৩নং ওয়ার্ডে ফাতেমা বেগম, নেখবুল বেগম, রেজিয়া বেগম, ডলি বেগম, লাভলী বেগম, খালেদা আক্তার শাপলা, শিউলী পারভীন, কুলসুমা বেগম তাহমিনা, শোভা আক্তার, রেসমা বেগম, জলি পুরকায়স্থ ও শেখ তাসলিমা আলী হেনা, ১৪নং ওয়ার্ডে নুরজাহান বেগম ও সুবিনা বেগম সুবনা।

এদিকে, প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে নগরের আনাচে কানাচে মাইকিং শুরু করেছেন প্রার্থীরা। এমনকি ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে ভোট আদায়ে তাদের মন জয়ের চেষ্টাও চালাচ্ছেন প্রার্থীরা। প্রার্থীরা ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে তাদের কর্মী সমর্থকদের নিয়ে শুরু করেছেন মিছিল-মিটিং। প্রার্থীদের সমর্থনে বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে মোটরসাইকেলের শোভাযাত্রা দেয়ঢা হয়েছে।

প্রতীক পাওয়ার পর আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী সাংবাদিকদের বলেন, আচরণবিধি েেমনেই ২১ জুনের নির্বাচনের প্রচারণা করবেন। নৌকা দেশের উন্নয়নের প্রতীক। তিনি এ প্রতীক পাওয়ায় সিলেট সিটি করপোরেশন এলাকার প্রায় পাঁচ লাখ ভোটার নৌকায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন।
জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলামও নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে প্রচারণা চালানোর কথা বলেন। তিনি আগামী সময়ে সিলেট সিটিকে সুন্দর ও পরিকল্পিত নগরী হিসেবে গড়তে লাঙ্গল প্রতীকে ভোট দেয়ার জন্য নগরবাসীর কাছে আহ্বান জানান। পরে তিনিও নগরের মেন্দিবাগ ও শাহজালাল উপশহর এলাকায় লিফলেট বিলির মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করেন।

ইসলামী আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী মাহমুদুল হাসান বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশনে গত ২০ বছরে যে উন্নয়ন হয়নি, তিনি নির্বাচিত হলে সে উন্নয়ন করবেন। এ সময় তিনি নির্বাচিত হলে হোল্ডিং ট্যাক্স ২০ শতাংশ কমানো ও ব্যবসায়ীদের ট্রেড লাইসেন্স পেতে বিড়ম্বনা থেকে মুক্তি দিতে উদ্যোগ নেয়ার কথা জানান।
সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে চূড়ান্ত লড়াইয়ে মোট ৭ জন মেয়র, সাধারণ কাউন্সিলর ২৭৩ ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর ৮৭ জন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

উল্লেখ্য, ৪২টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৪ লাখ ৮৬ হাজার ৬০৫ জন। এরমধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৫৩ হাজার ৭৬৩ ও নারী ২ লাখ ৩২ হাজার ৮৪২ জন। মোট কেন্দ্র ১৯০টি এবং ভোটকক্ষ ১হাজার ৩৬৪টি। ২০০২ সালে সিলেট সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর সিলেটের সকল ওয়ার্ডে এবারই প্রথম হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ।

জেএইচজে/ এইবেলা

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews