বড়লেখায় মহিষ আটক, চাপ দিয়ে চেয়ারম্যানের ভাইয়ের নাম বলানো হয় বড়লেখায় মহিষ আটক, চাপ দিয়ে চেয়ারম্যানের ভাইয়ের নাম বলানো হয় – এইবেলা
  1. admin@eibela.net : admin :
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১২:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কুড়িগ্রামে ৯ উপজেলায় কৃষিতেই ১০৫ কোটি টাকা ক্ষতি সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে খাসিয়াদের গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত কমলগঞ্জে বিনামূল্যে চক্ষু শিবির অনুষ্ঠিত কুলাউড়ায় আশ্রয়ণের ঘর বরাদ্দের নামে অর্থ আত্মসাতে অভিযুক্ত ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু ব্যারিস্টার সুমনের সহযোগিতায় বাঁচার আকুতি প্রবাসে বন্দী যুবকের! সিলেটের বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে মেডগ্লোবাল শিশু হত্যা মামলার সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার কোটা সংস্কারে আদালতের রায় না আসা পর্যন্ত কিছু করার নেই – প্রধানমন্ত্রী কমলগঞ্জে পূজা উদযাপন পরিষদের বৃক্ষরোপন কুড়িগ্রামে শিশুদের প্রতি সহিংসতা বন্ধে স্থানীয় স্টেক হোল্ডারদের সাথে সংলাপ

বড়লেখায় মহিষ আটক, চাপ দিয়ে চেয়ারম্যানের ভাইয়ের নাম বলানো হয়

  • মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০২৩

এইবেলা, বড়লেখা :

বড়লেখায় সম্প্রতি বিজিবির অভিযানে ভারতীয় মহিষ আটকের পর অসাধু চক্র বৃদ্ধাকে চাপ দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিনের ভাইয়ের নাম বলানোর অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার ওই বৃদ্ধা মহিষ আটকের মুল ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন।

উপজেলার গজভাগ গ্রামের ছাদু মিয়ার বৃদ্ধা মাতা সোমা বেগম (৭০) জানান, মুছেগুলে তাদের পুরাতন বাড়ি রয়েছে। গজভাগের নতুন বাড়ি ও মুছেগুলের পুরাতন বাড়িতে তিনি যাওয়া আসা করেন। ঘটনার দিন গত রোববার বিকেলের দিকে মুছেগুল থেকে খবর পান বেশ কিছু লোক বিজিবি নিয়ে গজভাগের নতুন বাড়ি ঘেরাও করে তার ছেলের পালিত ৪টি মহিষ ভারতীয় চোরাই মহিষ দাবী করে তা আটক করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। এই খবর পেয়ে সন্ধ্যায় তিনি গজভাগে ছুটে আসেন। এসময় তার ছেলে ছাদু মিয়া হাওরে ছিলেন। তিনি মহিষগুলো নিজের ছেলের দাবী করলেও উপস্থিত লোকজন ও বিজিবি সদস্যরা তা না মেনে তার উপর নানা চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। তারা মহিষগুলোর মালিক দক্ষিণভাগ উত্তর ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিনের ভাইয়ের বলতে আমাকে ভয়ভীতি দেখায়। একপর্যায়ে বাঁচার জন্য ভয়ে তাদের কথা মতো আমি মহিষগুলো ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিনের ভাইয়ের বলেছি। যা সত্য নয়। প্রকৃতপক্ষে মহিষগুলো আমার ছেলের পালিত ছিল। কিন্তু শত্রæতা করে স্থানীয় লোকজন ভারতীয় চোরাই মহিষ বলে বিবিজিকে দিয়ে আটক করে নিয়ে যায়। এতে আমার ছেলের কয়েক লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।

দক্ষিণভাগ উত্তর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিন জানান, ‘ওই দিন আমার বাবা অসুস্থ্য ছিলেন। এর আগে বাবাকে নিয়ে আমরা সিলেটে ছিলাম। মহিষ আমার ভাইয়ের হওয়ার প্রশ্নই আসে না। আমার কোনো রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ অসৎ উদ্দেশ্যে ‘সম্মান হানি’ করতে বৃদ্ধাকে আমার ভাইয়ের নাম বলাতে বাধ্য করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২২ - ২০২৪
Theme Customized By BreakingNews