- জাতীয়, ব্রেকিং নিউজ, মৌলভীবাজার, স্থানীয়, স্লাইডার

দীর্ঘ ৪৬ বছর পর ‘রাজনগর মুক্ত দিবস’ উদযাপিত

এইবেলা, রাজনগর, ০৬ ডিসেম্বর :: 

দীর্ঘ ৪৬ বছর পর মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলায় ‘রাজনগর মুক্ত দিবস’ উদযাপিত হয়েছে। ১৯৭১ সালের এই দিনে রাজনগর উপজেলা পাক হানাদার মুক্ত হয়। এদিন উপজেলার কামারচাক ইউনিয়নের তারাপাশা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম বিজয় পতাকা উত্তোলন করেন মুক্তিযোদ্ধারা। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে রাজনগর উপজেলা প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট এ দিবস পালন করে। ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান বিজয় পতাকা উত্তোলন করেন। যদিও উপজেলা সদরের জামতলায় তৎকালীন ক্লাব প্রাঙ্গনে মিত্রবাহিনীর কামান্ডার এমএ হামিদ বিজয় পতাকা উত্তোলন করেছিলেন।

raj 2
বুধবার ৬ ডিসেম্বর  সকাল ১১টার সময় উপজেলা পরিষদের সামনে স্থাপিত মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভের সামনে পতাকা উত্তোলন, পুষ্পস্তবক অর্পন, উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে বিজয় র‌্যালী ও পরে জেলা পরিষদ অডিটরিয়ামে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদুজ্জামান পাভেলের সভাপতিত্বে ও কামারচাক ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নজমুল হক সেলিমের সঞ্চালনায় মূখ্য আলোচক ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুর রহমান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নেছার আহমদ, সাধারণ সম্পাদক মিছবাহুর রহমান, রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মো. আছকির খান, ভাইস চেয়ারম্যান ফারুক আহমদ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার জামাল উদ্দিন আহমদ, উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়ছল আহমদ, উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যানদের পক্ষে মনসুরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মিলন বখত, মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন রামলাল রাজভর। সভার শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সজল চক্রবর্তী।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ডলি বেগম, রাজনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বণিক, মুন্সীবাজার ইউপি চেয়ারম্যান ছালেক মিয়া, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক প্রতিষ্টাতা সভাপতি আব্দুর রশিদ খান, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেগম রশিদা জাফর, মনসুরনগর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান সাদিকুর রহমান, যুবলীগের আহ্বায়ক আব্দুর কাদির ফৌজি, ছাত্রলীগের সভাপতি রুবেল আহমদ, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল সাম্মু প্রমুখ।

এছাড়াও সরকারী-বেসরকারী কর্মচারী, মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের  সন্তানরা, সাংবাদিক, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।  ##

About eibeleamialabula

Read All Posts By eibeleamialabula

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *